যশোরে বাসের মধ্যে নারী ‘ধর্ষণ’ কাণ্ডে তোলপাড়,৭ বাস শ্রমিক আটক

0
229

নিজস্ব প্রতিবেদক:যশোরে বাসের মধ্যে এক নারী ধর্ষণের শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এ ঘটনার সংবাদে শুক্রবার দিনব্যাপী তোলপাড় হয়। বৃহস্পতিবার রাত থেকে শুক্রবার বিকেল পর্যন্ত পুলিশ ও সংবাদকর্মীরা এ বিষয়ে খোঁজ খবর নিয়ে একেক সময় একেক রকম তথ্য পান। সন্ধ্যার দিকে বিষয়টি পরিষ্কার হয়। মূলত ওই নারী তথ্য গোপন করায় পুলিশ ও সংবাদকর্মীদের সঠিক তথ্য পেতে কালক্ষেপন হয়।
ধর্ষণের শিকার ওই নারী প্রথমে পুলিশ ও সংবাদকর্মীদের কাছে মিথ্যা পরিচয় দেন। বলেন তাকে একাধিক ব্যক্তি ধর্ষণ করেছে। নিজের নাম পরিচয় সব গোপন করেন। পরে বিকেলে পুলিশ তার আসল পরিচয় জানতে পারে।
এ ঘটনায় কোতয়ালি থানায় ধর্ষণের অভিযোগে একটি মামলা হয়েছে। মামলায় মোট ৭জনকে আসামি করা হয়েছে। তবে ধর্ষণের মামলা হয়েছে মনিরুল ইসলাম নামে এক বাস শ্রমিকের বিরুদ্ধে। সে ঝিনাইদহের মহেশপুর উপজেলার কাশিমনগর গ্রামের ওহিদুল ইসলামের ছেলে। বর্তমানে কাজের সূত্রে যশোর সদর উপজেলার রামনগর ধোপাপাড়ায় শহিদুল ইসলামের বাড়িতে ভাড়া থাকে। বাকি ৬জনের বিরুদ্ধে ধর্ষণের চেষ্টা এবং মারপিটের অভিযোগ আনা হয়েছে।
মনিরুল ছাড়াও এই মামলার বাকি ৬জন হলো, শহরের বারান্দী মোল্লাপাড়ার মহিদুল ইসলাম বাবুর ছেলে শাহিন হোসেন জনি, সিটি কলেজপাড়ার রনজিৎ বিশ্বাসের ছেলে কৃষ্ণ বিশ্বাস, একই এলাকার মৃত সমর সিংহের ছেলে সুভাষ সিংহ, বারান্দী কাঁঠালতলা বৌ বাজার এলাকার জাবেদুল ইসলামের ছেলে রাকিবুল ইসলাম রকিব, বারান্দীপাড়ার কাজী আব্দুস সামাদের ছেলে কাজী মুকুল এবং বেজপাড়া কবরস্থান রোডের গোলাম মাওলার ছেলে মাঈনুল ইসলাম।
ওই নারী জানান, রাজশাহী থেকে যশোরে বাড়ি ফেরার জন্য বৃহস্পতিবার বিকেলে এমকে পরিবহনে ওঠেন । রাত ১১টার দিকে তিনি মণিহার এলাকায় গাড়ি থেকে নামেন। কিন্তু এত রাতে বাড়িতে ফেরার উপায় না থাকায় তিনি বাসেই অবস্থান করছিলেন। বাসটি যশোর শহরের বকচর কোল্ড স্টোর মোড়ে গিয়ে থামে। সেখানে তাকে হেলপার মনিরুল পানীয় দেয়। পান করার পরে তিনি গভীর ঘুমে ঢলে পড়েন। এরপর তাকে বাসের মধ্যে পরিবহন শ্রমিক মনিরুল ধর্ষণ করে। চেতনা ফিরে পেয়ে তিনি ‘ধর্ষণের শিকার’ হয়েছেন বলে বুঝতে পারেন। পরে স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে কোতয়ালি থানার এসআই পলাশ বিশ্বাস তাকে উদ্ধার করে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন।
ওই ঘটনায় জড়িতদের আটক ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির জন্য প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন ওই নারী। তবে পুলিশ অন্য কথা বলছে। এটি সংঘবদ্ধ ধর্ষণের ঘটনা নয় বরং প্রেমিকের সঙ্গে স্বেচ্ছায় শারীরিক সম্পর্কে লিপ্ত হওয়ার ঘটনা বলে পুলিশের কাছে প্রাথমিকভাবে প্রতীয়মান হয়েছে।
কোতয়ালি থানার পরিদর্শক (তদন্ত) শেখ তাসমীম আলম জানিয়েছেন, ওই নারী (২৫) স্বামী পরিত্যক্ত। রাজশাহীর লক্ষীপুর এলাকার জিপিও নামক একটি বেসরকারি হাসপাতালে আয়ার কাজ করেন। বাড়ি যশোরের বাঘারপাড়া উপজেলার বন্দবিলা ইউনিয়নের মীর্জাপুর গ্রামে। যশোর থেকে এমকে পরিবহনের দুইটি বাস সরাসরি রাজশাহী যায়। ওই নারী প্রত্যেকবার এমকে পরিবহনের বাসে করে রাজশাহী থেকে যশোরে যাওয়া আসা করতেন। যাতায়াতের পথে বাসের হেলপার মনিরের সাথে তার পরিচয় হয়। মাঝেমধ্যে মনিরের সাথে মোবাইল ফোনে তার কথাবার্তা হতো। বৃহস্পতিবার রাজশাহী থেকে তিনি যশোরে আসার জন্য মনিরকে ফোন দেন। কিন্তু তিনি প্রথম ট্রিপ ধরতে পারেননি। মনির প্রথম ট্রিপে যশোরে চলে আসে। তিনি দ্বিতীয় ট্রিপে বিকেল ৫টার দিকে রাজশাহী থেকে রওনা দেন। বৃহস্পতিবার রাত ১১টার দিকে তিনি বাসে করে মণিহার প্রেক্ষাগৃহের সামনে নামেন এবং মনিরকে মোবাইল করেন। মনির ফোন পেয়ে তার সাথে দেখা করেন।
পরিদর্শক তাসমীম আলম জানিয়েছেন, মনির ওই রাতে জানান বাঘারপাড়ায় যাওয়ার কোনো বাস পাওয়া যাবে না। তাকে যশোরে থাকতে হবে। সে সময় ওই নারী তার বাড়িতে যাওয়ার প্রস্তাব দিলে মনির জানায় তার বাড়িতে বৌ আছে। সেখানে নিয়ে যাওয়া যাবে না। বাসের মধ্যে রাতে থাকতে হবে। মনির প্রথম ট্রিপে এসে বাসটি (যশোর-ব-১১-০১২৪) যশোর বিসিএমসি কলেজের সামনে রেখে ধোয়া মোছার কাজ করছিলেন। ওই নারীর ফোন পেয়ে মনির তার সাথে দেখা করেন। পরে মণিহার প্রেক্ষাগৃহের বিপরীতে রাজপ্রিয়া নামক একটি খাবার হোটেলে রাতে খাবার খান। পরে মনির বাসের মধ্যে ওই নারীর যাত্রীযাপনের ব্যবস্থা করেন। কিন্তু বাসটি পরে হেলপার ওই স্থান থেকে কোল্ডস্টোরেজ মোড়ে নিয়ে যায়। এ দৃশ্য দেখেন সেখানে থাকা অন্য শ্রমিকরা। তারা পিছু নেয়। এবং বাসের মধ্যে তাদের আপত্তিকর অবস্থায় ধরে ফেলে। তখন অন্য তিন শ্রমিক ওই নারীকে ধর্ষণের চেষ্টা করে। সে সময় তিনি বাধা দিলে তাকে মারপিট করা হয়। এবং তিনি চিৎকার দেন। পরে পুলিশ সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে ওই নারীকে উদ্ধার করে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে। আর মনিরসহ ৬জনকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।
তিনি জানিয়েছেন ওই নারীর ডাক্তারি পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে।
যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসক জাহিদ হাসান হিমেল বলেন, ওই তরুণী শারীরিকভাবে সুস্থ আছেন। তাকে পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে। তার শরীর থেকে আলামত সংগ্রহ করা হয়েছে।
পুলিশ জানিয়েছে, ওই নারী রাতে প্রথমে নিজের নাম মিতু এবং বয়স ২১ বলে জানায়। তার পরিচয় জানতে চাইলে মাগুরার শালিখা উপজেলা শতপাড়া গ্রামের গফফার বিশ্বাসের মেয়ে বলে পরিচয় দেন। হাসপাতালে সাংবাদিকরা ওই নারীর কাছে জানতে চাইলে তিনি একই কথা বলেন। তাকে তিনজনে ধর্ষণ করেছে বলে তিনি জানান। পুলিশ তার কাছ থেকে পরিচয় পেয়ে সে মোতাবেক কাগজপত্র তৈরি করে। কিন্তু শুক্রবার একাধিক জিজ্ঞাসাবাদে তিনি পরে তার আসল পরিচয় জানান। পুলিশ জানিয়েছেন, মনিরের সাথে আগেই ওই নারীর সম্পর্ক ছিলো। সেই সূত্রে তারা যৌন সম্পর্ক স্থাপন করেছিলেন বাসের মধ্যে। পরে জানাজানি হলে বিষয়টি অন্যদিকে ঘুরিয়ে দেয়ার চেষ্টা করেন। ওই নারী সারাদিন পুলিশকে ভুগিয়েছেন তথ্য গোপন করে।
বাংলাদেশ পরিবহন সংস্থা শ্রমিক সমিতি যশোর জেলার সাধারণ সম্পাদক মোর্ত্তজা হোসেন জানিয়েছেন, এমকে পরিবহনের মালিক যশোরের রমেন মন্ডল। তার বাসটি প্রত্যেক রাতে বিসিএমসি কলেজের সামনে রাখা হয়। বাসটি গভীর রাতে যখন খুলনার দিকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল সে সময় সেখানে দায়িত্বপালন করার নৈশ প্রহরীরা ফোন করে মালিক রমেন মন্ডলকে জানায়। সে সময় রমেন মন্ডল কয়েকজন শ্রমিককে জানালে তারা খোঁজখবর নিয়ে বাসের সন্ধান পান এবং ধর্ষণের ঘটনার সাথে জড়িয়ে পড়েন। এ ঘটনায় যারা নির্দোষ তাদের ছেড়ে দেয়ার দাবি করেন তিনি। একই সাথে দোষিদের শাস্তির দাবি করেন।