যশোরে বিআরটিএ চুক্তিবদ্ধ ব্যাংকগুলোর কর্মকর্তারা যানবাহন মালিক ও শ্রমিকদের সাথে হয়রানীর অভিযোগ 

0
322

এম আর রকি : সরকারের রাজস্ব আদায়ের অন্যতম দপ্তর বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথোরিটি (বিআরটিএ)। এই খাত থেকে সরকার প্রতিমাসে প্রায় একশ’ কোটি টাকার অধিক রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্য মাত্রার টার্গেট নিলেও চুক্তিবদ্ধ ব্যাংকগুলিতে কর্মরত কর্মকর্তা এবং কর্মচারীদের অবহেলার কারণে রাজস্ব আদায়ের সুযোগ ব্যাহত হচ্ছে। এ তথ্য বিভিন্ন দায়িত্বশীল সূত্রের।
যশোর বিআরটিএ দপ্তর সূত্রে জানাগেছে, প্রতিমাসে এ দপ্তর থেকে সরকারের রাজস্ব আদায় হচ্ছে ১ কোটি ৪০লাখ টাকা। সরকারের সাথে চুক্তিবদ্ধ ব্যাংকগুলোর কর্মকর্তা ও কর্মচারীরা আন্তরিক হলে রাজস্ব আদায় সম্ভব ১ কোটি ৭৫ লাখ টাকা। যশোর বিআরটিএ দপ্তরে প্রতিদিন যানবাহনের বিভিন্ন কার্যক্রমের মাধ্যমে রাজস্ব আদায় হয় সাড়ে ৫ লাখ টাকার অধিক। গাড়ীর রেজিষ্ট্রেশন,ফিটনেস,রুট পারমিট,লাইসেন্স নবায়ন, ট্যাক্সটোকেন,পুরাতন লাইসেন্স নতুন ইস্যু,ডিজিটাল প্লেট,ডিজিটাল ব্লু বুক,মালিকানা বদলী,ডুব্লিকেট রেজিষ্ট্রেশন,অন্তর্ভূক্তি,ধরন পরিবর্তন, দায়বদ্ধতা,ফিটনেস ইস্যু, ডুপ্লিকেট ফিটনেস ইস্যু,শিক্ষানবীশ ড্রাইভিং লাইসেন্স ও বিবিধ খাত থেকে সরকার প্রতিদিন লাখ লাখ টাকা রাজস্ব আদায় করলেও ইদানিং এই রাজস্ব বাঁধা হয়ে দাঁড়িয়েছে ব্যাংকগুলো। সূত্রগুলো জানিয়েছেন,যশোর বিআরটিএ দপ্তরে যানবাহনের কার্যক্রম পরিচালনার জন্য সরকারের শর্ত সাপেক্ষে চুক্তিবদ্ধ ব্যাংকগুলোতে টাকা জমা নেওয়া হয়। যশোর শহরের আরএনরোড এলাকায় ইষ্টার্ন ব্যাংক,চৌরাস্তা মোড়ে ওয়ান ব্যাংক,এমকে রোডস্থ শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক ও যশোর কালেক্টরেট চত্বরে এনআরবি ব্যাংক রয়েছে। এই ব্যাংক গুলো সরকারের সাথে চুক্তিবদ্ধ হয়ে যানবাহন সংক্রান্ত টাকা পয়সা জমা নেওয়ার কথা রয়েছে। অথচ এই বাংকগুলো যানবাহনের মালিকদের সাথে নানা ভাবে হয়রানী করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। যশোর বিআরটি এ দপ্তরে কর্মরত মোটর যান পরিদর্শক হুমায়ূন কবীর বলেছেন,বিআরটিএ বিভাগের টাকা জমা নেওয়ার ক্ষেত্রে যানবাহনের মালিক গাড়ীর নাম্বার বলার সাথে সাথে ব্যাংকগুলিতে দায়িত্বরত কর্মকর্তা ফি’র ধরন অনুসারে টাকা জমা নেবেন। অথচ তা না করে বিআরটিএ দপ্তর থেকে চালান লিখে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে হয়রানী করে থাকেন। তার কারণ ব্যাংকগুলোর কর্মকর্তাদের কথা মতো চালান লিখে নিয়ে যাওয়ার পর ব্যাংক থেকে বলা হয় দাখিলকৃত চালানে মিল না নাই। এই বলে যানবাহনের মালিক ও শ্রমিকদের সাথে হয়রানী করেন।এছাড়া, ব্যাংকগুলোতে কর্মরত যারা বিআরটি সংক্রান্ত যানবাহনের বিভিন্ন ফি নেওয়ার দায়িত্ব পালন করেন তিনি অধিকাংশ ক্ষেত্রে টাকা জমা নেওয়ার কার্যক্রম সচল রাখার মেশিন বিকল বলে থাকেন। যার ফলে রাজস্ব জমা দিতে গিয়ে যানবাহনের মালিক ও শ্রমিকেরা ব্যাংক থেকে ফিরে আসেন। এভাবে যশোরে সরকারের সাথে চুক্তিবদ্ধ ব্যাংকগুলোর অধিকাংশ কাউন্টারে হয়রানীর শিকার হতে হয় রাজস্ব জমা দিয়ে যাওয়া ব্যক্তিরা। এই হয়রানী দেশের বিভিন্ন জেলার বিআরটিএ সংক্রান্ত টাকা জমা নেওয়ার ব্যাংকগুলিতে কর্মরত কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের বিরুদ্ধে। ব্যাংকগুলো এই হয়রানী মূলক কর্মকান্ড বদ্ধ করে টাকা জমা নিলে সরকার এই খাত থেকে প্রতিমাসে ১শ’ কোটি টাকার অধিক রাজস্ব আদায়ে সক্ষম হতো।ব্যাংকগুলির বিরুদ্ধে যানবাহন মালিক ও শ্রমিক এবং গ্রাহকদের হয়রানীর ব্যাপারে ওয়ান ব্যাংকের যশোরে দায়িত্বরত ব্যবস্থাপকের কাছে জানতে চাইলে তিনি অভিযোগ অস্বীকার করেন। ওয়ান ব্যাংকের ন্যায় চুক্তিবদ্ধ ব্যাংকের কর্মকর্তারা অস্বীকার করেন। অনেক সময় তারা অকোপটে স্বীকার করেন,যানবাহনে যারা দায়িত্ব পালন করেন তারা শ্রমিক পেশার মানুষ। তাদের কারণে ব্যাংকগুলোর টিপটপ পরিবেশ বিঘিœত হয়। টাকা জমা নেওয়ার ক্ষেত্রে ব্যাংকগুলোর হয়রানী কর্মকান্ড বন্ধের জন্য সরকারের উধ্বর্তন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন ভূক্তভোগীরা।#

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here