যশোরে বিএনপি নেতা ডন এর মৃত্যু জানাজা সম্পন্ন ও শোক জ্ঞাপন

0
820

বিশেষ প্রতিনিধি : মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণজনিত কারণে শনিবার রাত সাড়ে ৮ টায় মারা গেছেন জেলা বিএনপির সহ-সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক ও জেলা যুবদলের সহ-সভাপতি জিয়াউল ইসলাম ডন। (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। তিনি যশোর শহরের বেজপাড়ার মৃত কাদের মিয়ার ছেলে। তিনি মা, এক ভাই, দুই মেয়ে, এক ছেলে এবং স্ত্রীসহ অনেক গুনগ্রাহী রেখে গেছেন। রোববার জানাজা শেষে কারবালায় তার মরদেহ দাফন করা হয়েছে।
ভাই আশরাফুল ইসলাম বাবু জানান,শনিবার এশার আজানের সময় ডন তার জেস টাওয়ারের দোকানে বসে ছিলেন। এসময় হঠাৎ তার রক্তচাপ বেড়ে যায়। আশপাশের দোকানিদের সহযোগিতায় তাকে যশোর জেনারেল হাসপাতালের করোনারি কেয়ার ইউনিটে ভর্তি করা হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত সাড়ে আটটায় শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন।
হাসপাতালের করোনারি কেয়ার ইউনিটের সিনিয়র নার্স জেসমিন ডাক্তার রাশেদ রেজার উদ্ধৃতি দিয়ে বলেন,মস্তিস্কে রক্তক্ষরণের কারণে ডনকে রাত আটটা দশ মিনিটে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসাধীন অবস্থায় সাড়ে ৮ টায় তার মৃত্যু হয়।
রোববার জোহরের পর যশোর কেন্দ্রীয় ঈদগাহে তার নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। তার জানাজায় বিএনপি জাতীয় স্থায়ী কমিটির সদস্য তরিকুল ইসলাম, যশোর জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সাইফুজ্জামান পিকুল, পৌরসভার মেয়র জহিরুল ইসলাম চাকলাদার রেন্টু, বিএনপি খুলনা বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক অনিন্দ্য ইসলাম অমিত, জেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শামসুল হুদা, সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সৈয়দ সাবেরুল হক সাবু, জাতীয় পার্টির অ্যাডভোকেট মাহবুব আলম বাচ্চু, বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ফারাজী মতিয়ার রহমান, নগর সভাপতি মারুফুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক মুনির আহমেদ সিদ্দিকী বাচ্চু, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মীর জহুরুল ইসলাম, দপ্তর সম্পাদক মাহমুদ হাসান বিপু, পৌরসভার কাউন্সিলর মুস্তাফিজুর রহমান মুস্তা, যুবদল জেলা কমিটির ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক এম তমাল আহমেদ, স্বেচ্ছাসেবকলীগ সভাপতি আসাদুজ্জামান মিঠু, জাগপার কেন্দ্রীয় হ-সভাপতি নাজিমউদ্দিন অমিত প্রমুখ অংশ নেন।এছাড়া জানাজায় বিভিন্ন রাজনৈতিক দল, সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতাকর্মী এবং বিপুল সংখ্যক সাধারণ মানুষ উপস্থিত ছিলেন। ইমামতি করেন বেজপাড়া জামে মসজিদের ইমাম মুফতি রফিকুল ইসলাম। জানাজা শুরুর আগে বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা অনিন্দ্য ইসলাম অমিত, জেলা সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সাবু, যুবদলের পক্ষে মরিুজ্জামান মাসুম, পরিবারের পক্ষে ডনের একমাত্র সন্তান বক্তব্য দেন। তারা মরহুম ডনের আত্মার শান্তি কামনা করেন। জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সৈয়দ সাবেরুল হক সাবু বললেন, ডন অন্য সব রাজনৈতিক নেতাকর্মীদের মতো ছিলেন না। তার বিশ্বস্ততা ছিল প্রশ্নাতীত। স্বৈরাচারী এরশাদবিরোধী আন্দোলনে তিনি যেমন সক্রিয় ছিলেন, চলমান ফ্যাসিস্ট সরকার’বিরোধী আন্দোলনেও তিনি রাজপথেই ছিলেন। ডনের মৃত্যু যশোর বিএনপি ও যুবদলের রাজনীতিতে শূন্যতা সৃষ্টি করবে বলে মনে করেন অ্যাডভোকেট সাবু। ডনের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেছেন জেলা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শামসুল হুদা ও সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট সৈয়দ সাবেরুল হক সাবু এবং নগর বিএনপির সভাপতি মারুফুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক মুনির আহমেদ সিদ্দিকী বাচ্চু। পৃথক বিবৃতিতে বিএনপির দুই কমিটির নেতারা শোকসন্তপ্ত পরিবার-সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন। অনুরুপ বিবৃতি দিয়েছেনডনের মৃত্যুতে শোক জানিয়েছেন, ২০ দলীয় জোটের শীর্ষ নেতা,জাগপা যশোর জেলার প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ত্ত কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি নিজামদ্দিন অমিত, জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক কামাল চৌধুরী,সহ সভাপতি ইদ্রিস মৃধা, নুরজাহান ইসলাম,সাবিত্রী বিশ্বাস, বজলু হাত্তলাদার, খন্দকার আলমগীর হোসেন আলম,সহ সাধারণ সম্পাদক খন্দকার জাহিদ হাসান,শেখ কায়েম আলী, আব্দুল মজিদ,সাংগঠনিক সম্পাদক আনোয়ার হোসেন মধু,প্রচার সম্পাদক শাহাজান, দপ্তর সম্পাদক ডাঃ রবিউল ইসলাম,অর্থ সম্পাদক আফসানা ইয়াসমিন অনুরুপা,সহ সাংগঠনিক সম্পাদক কাজী জাবেদ,সহ প্রচার সম্পাদক সৈয়দ মনজুর হাসান রাব্বু, সহ-দপ্তর সম্পাদক মিল্টন গাজী,জাগপা নেতা মুকুল শেখ, রফিকুল ইসলাম রফিক,ফরহাদ আহম্মেদ, রেজোয়ান বাবু,মজিবুর রহমান,সরুজ খান,প্রতাপ বিশ্বাস, সৌরভ বিশ্বাস, সোহানুর রহমান সোহেল,দিপু হোসেন,মনঞ্জুর ইসলাম,জিয়াউর রহমান ভান্ডারী,আমিনুর রহমান প্রমুখ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here