যশোরে বিনা জামিনে আসামিকে কারামুক্ত করার চেষ্টা!

0
124

নিজস্ব প্রতিবেদক : জামিন না পেলেও আসামি আব্দুর রহিমকে যশোর কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মুক্ত করার চূড়ান্ত আয়োজন করা হয়েছিল। কিন্তু জানাজানির পর একেবারে শেষ ধাপে আটকে যায় ওই আসামি। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় এমন ঘটনায় অভিযুক্ত ওই দুজনকে কোর্ট পুলিশ জিজ্ঞাসাবাদ করেন। পরে মুচলেকা নিয়ে তাদের ছেড়ে দেয়া হয়েছে।
জানা যায়, গত ১১ মার্চ বেলা পৌনে ১১টার দিকে যশোর শহরের শংকরপুর এলাকার আব্দুল হাকিমের ছেলে আব্দুর রহিমসহ মাদক সেবনরত ৬ জন কোতয়ালি পুলিশের হাতে আটক হন। তাদের ডোপ টেস্ট করা হলে পরীক্ষার রিপোর্টেও মাদক সেবনের আলামত মেলে। আদালত আটক ৬ জনকে কারাগারে প্রেরণ করেন। বৃহস্পতিবার আব্দুর রহিম বাদে অন্য ৫ জনের জামিন দেন আদালত।

এদিকে, ৬ জনই জামিন পেতে জুলফিক্কার আলী জুলুকে আইনজীবী নিয়োগ দেন। তবে আইনজীবী শরিফা বেগম আসামি আব্দুর রহিমের মামলাটি দেখভালের জন্য মৌখিকভাবে (জুলুর কাছ থেকে) তার অধীনে নিয়ে নেন। বৃহস্পতিবার আইনজীবী জুলফিকার আলী জুলুর আবেদনে ৫ আসামির জামিন হয়। বাদ ছিল আব্দুর রহিম। কিন্তু অ্যাডভোকেট জুলফিকার আলী জুলুর মহুরী মামুনুর রশিদ মামুন এবং অ্যাডভোকেট শরিফা বেগমের মহুরী মেহেদী হাসান মধু ‘কারসাজি’ করে ৬ জনের নামে জামিননামা এবং ছাড়পত্র তৈরি করে আদালতে জমা দেন। সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের দস্তখতের পর বিষয়টি জিআরও সেরেস্তার নজরে পড়ে। সাথে সাথেই বিষয়টি আদালতসহ সংশ্লিষ্ট দফতরকে অবহিত করা হয়। তবে এরই মধ্যে আসামিদের জেলখানা থেকে বের করতে যোগাযোগ করা হয়।

কিন্তু জিআরও সেরেস্তার নজরে পড়ার কারণে জামিন না হওয়া আব্দুর রহিমের কারাগার থেকে বের হওয়া আটকে যায়।

এ ব্যাপারে অ্যাডভোকেট জুলফিকার আলী জুলু বলেছেন, বিষয়টি কোন উদ্দেশ্যমূলক নয় বরং ভুলক্রমে হয়েছে।