যশোরে ভাল বেতনে চাকুরী দেওয়ার প্রলোভনে পাচারের অভিযোগে পিতা ছেলের বিরুদ্ধে মামলা

0
184

বিশেষ প্রতিনিধি : ভাল বেতনে চাকুরী দেওয়ার প্রলোভন দিয়ে আবু বক্কার (২৪) নামে এক যুবককে সৌদিতে নিয়ে সেখান থকে ইন্দোনেশিয়ায় বিক্রি করার অভিযোগে কোতয়ালি মডেল থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। ঘটনাটি যশোর সদর উপজেলার কামালপুর গ্রামের।আসামীরা হচ্ছে, ওই গ্রামের মৃত মানিক খাঁর ছেলে সামু ও তার ছেলে শাহীন।
সদর উপজেলার কামাল পুর গ্রামের আব্দুস সাত্তার কোতয়ালি মডেল থানায় দায়েরকৃত এজাহারে বলেছেন, একই গ্রামের মৃত মানিক খাঁর ছেলে সামুর ছেলে শাহীন র্দীঘদিন সৌদিতে চাকুরী করে। সামু ও তার ছেলে শাহীন দেশে এসে আব্দুস সাত্তারের বাড়িতে আসে। শাহীন আবার সৌদিতে চলে যায়। সামু বাদিকে জানায়,তার তার ছেলে আবু বক্কারকে ভালবেতনে সৌদিতে পাঠাতে পারে। সেখানে যেতে হলে সাড়ে ৬লাখ টাকা দিতে হবে। উক্ত টাকা দিলে সৌদিকে ৩ বছর কনস্ট্রাকশন ফার্মে সুপারভাইজার পদে ভাল বেতনে চাকুরীর ব্যবস্থা করে দিবে। আব্দুস সাত্তারকে সামু তার বিদেশ থাকা ছেলে শাহীনের কথা বলিয়ে দেয়। শাহীন আব্দুস সাত্তারকে জানানয় পাসপোর্টসহ উক্ত টাকা দিলে সৌদিতে নিয়ে যাবে। শাহীন বিদেশ থেকে চলে আসে। এদিকে গত বছর ১ আগষ্ট সকাল ১১ টায় আব্দুস সাত্তার সামুকে স্বাক্ষীদের সামনে সাড়ে ৫ লাখ টাকা প্রদান করেন। পরবর্তীতে ওই বছর ২০ সেপ্টেম্বর সকাল ৯ টার পর আব্দুস সাত্তারের ছেলে আবু বক্কারকে বাড়ি হতে নিয়ে আসে। ওই দিবাগত রাতে শাহজালাল বিমানবন্দর দিয়ে সৌদিতে নিয়ে যায়। সেখানে আবু বক্কারকে কোন কাজ না দিয়ে ৪/৫মাস ধরে শাহীনের কাছে নিয়ে রাখে। সেখান থেকে আবু বক্কারকে শাহীন ২লাখ টাকার বিনিময়ে ইন্দোনেশিয়ায় বিক্রি করে দেয়। আবু বক্কার মোবাইল ফোনের মাধ্যমে ঘটনা জানায়। বর্তমানে চরমভাবে নির্যাতনের মধ্যে রয়েছে বলে আবু বক্কার তার পিতাকে জানায়। ছেলের এই খবর শুনের আব্দুস সাত্তার ৩০ অক্টোবর কোতয়ালি মডেল থানায় মামলা করতে গেলে থানা পুলিশ মামলা হিসেবে গ্রহন করেন না। ফলে তিনি কোর্টে পিটিশন দায়ের করলে আদালতে বিজ্ঞ বিচারক কোতয়ালি মডেল থানার অফিসার ইনচার্জকে মামলা হিসেবে নথিভূক্ত করার নিদের্শ দেন। শুক্রবার কোতয়ালি থানায় মানব পাচার আইনে পিতা ছেলের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।#

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here