যশোরে ভিকটিমকে আদালতের বারান্দায় আসামিপক্ষের হামলা

0
63

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরে হত্যাচেষ্টা মামলার ভিকটিম বাদী রুবিয়া ইয়াসমিন আদালতের বারান্দায় আসামি প্রধান শিক্ষক নুরুল আলমের স্বজনদের হামলার শিকার হয়েছেন। এ সময় হামলাকারীরা তাকে মারপিট করে ব্যাগ ও মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে। পুলিশ হামলার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে ৯ জনকে আটক করলেও পরে ছেড়ে দেয়া হয়েছে এবং হামলার ঘটনায় রুবিয়া ইয়াসমিন থানায় অভিযোগ দিতে গেলে পুলিশ নেয়নি বলে তিনি জানান। পুলিশ সুপারের কাছে অভিযোগ করবেন বলেও জানিয়েছেন রুবিয়া।

তবে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার তৌহিদুল ইসলাম জানান, আদালত চত্বরে রুবিয়া নিরাপত্তার অভাব পুলিশকে জানালে কয়েকজনকে সরিয়ে দেয়া হয়। কাউকে আটক করা হয়নি। আর বিষয়টি ভাই-বোনের পারিবারিক দ্বন্দ্ব।
তিনি জানান, তার বড় বোন মর্জিনার অংশের জমি ক্রয়ের জন্য তিনি পিতার বাড়ি যশোর সদরের চৌঘাটা গ্রামে আসেন। ১৮ ফেব্রুয়ারি তিনিসহ অন্য ভাই বোনেরা জমি রেজিস্ট্রির জন্য সদর সাব রেজিস্ট্রি অফিসে যান।
দলিলের গ্রহিতার কলামে তার নাম না থাকায় তিনি রেজিস্ট্রিতে বাধা দেন। এরপর তার ভাই নুরুল আলম তাকে বুঝিয়ে বাড়িতে নিয়ে যান। রাতে জমি নিয়ে কথাবার্তার এক পর্যায়ে নুরুল আলম ও ভাবি রেহেনা আলম এবং অপর ভাই নাজিম উদ্দিন তাকে বেদম মারপিট করেন। এরমধ্যে রেহেনা আলম একটি জর্জেট ওড়না দিয়ে তার গলায় পেঁচিয়ে শ^াসরোধে হত্যাচেষ্টা করে। এরপর আসামিরা তার ব্যাগে থাকা জমি কেনার ৯০ হাজার টাকা নিয়ে নেয়। চিৎকারে আশেপাশের লোকজন এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধার করেন।

এ ব্যাপারে রুবিয়া ইয়াসমিন বাদী হয়ে দুই ভাই প্রধান শিক্ষক নুরুল আলম, নাজিম উদ্দিন ও ভাবি রেহেনা আলমকে আসামি করে গত ২৪ ফেব্রুয়ারি কোতয়ালি থানায় মামলা করেন।

পুলিশ অভিযোগের ভিত্তিতে ২ মার্চ প্রধান শিক্ষক নুরুল আলমকে আটকের পর আদালতে সোপর্দ করেন। এদিন বিচারক নুরুল আলমের জামিন না মঞ্জুর করে কারাগারে পাঠান। বুধবার আসামি নুরুল আলমের জামিন আবেদন করা হয় আদালতে। এ সংবাদ পেয়ে মামলার বাদী রুবিয়া ইয়াসমিন আইনজীবী নিয়ে আদালতে উপস্থিত হন। উভয়পক্ষের বক্তব্য শুনানি শেষে আসামি নুরুল আলমের জামিন মঞ্জুর করেন বিচারক।

রুবিয়া ইয়াসমিন আরও জানান, আদালত কক্ষ থেকে বেরিয়ে বারান্দায় আসলে নুরুল আলমের স্বজন মতিয়ার রহমান, নাহিদ সিদ্দীক বুলবুলী, আজগর, মর্জিনা বেগম, আজগর আলীসহ আরও অনেকে তার উপর হামলা করে। এ সময় তারা রুবিয়া ইয়াসমিনের ব্যাগ ও মোবাইল ফোন ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে। পুলিশ সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থল এসে হামলার সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে ৯ জনকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়। আটক ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ লিখে থানায় গিয়ে জানতে পারেন সকলকে ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ।