যশোরে মাদক ও জঙ্গীর বিরুদ্ধে একশ’ দিনের কর্মসূচীর ২৮দিন অতিবাহিত

0
345

কোতয়ালিতে আড়াই শতাধিক মামলা, গ্রেফতার পাঁচ শতাধিক,প্রকৃত মাদক বিক্রেতা থাকছে অন্তরালে

এম আর রকি  : যশোর জেলা পুলিশের কতিপয় কর্মকর্তা ও সদস্যরা পুলিশ সুপার কর্তৃক মাদক ও জঙ্গীর বিরুদ্ধে ১শ’ দিনের কর্মসূচীকে পুঁজি করে দু’হাতে টাকা উপার্জন করছে বলে খবর পাওয়া গেছে। পাশাপাশি প্রকৃত মাদক বিক্রেতারা গা ঢাকা দেয়ায় তাদের নাগাল করতে না পেরে যাকে তাকে গ্রেফতার পূর্বক মামলা দিচ্ছে। কর্মসূচীর শুরু থেকে গতকাল বৃহস্পতিবার পর্যন্ত ২৮দিনে কোতয়ালি মডেল থানায় আড়াই শতাধিক মাদক আইনে মামলা নথিভূক্ত করা হয়েছে। কোতয়ালি থানায় যে সব এসআই,এএসআই ও থানার অধীনে পুলিশ ক্যাম্প এবং ফাঁড়ি রয়েছে ওই সব পুলিশের ইউনিট থেকে মাদক আইনে মামলা দায়ের করা হচ্ছে। কোতয়ালি থানা ছাড়াও জেলা অন্যান্য থানা যেমন,ঝিকরগাছা,শার্শা,বেনাপোল পোর্ট,চৌগাছা,বাঘার পাড়া,অভয়নগর,মনিরামপুর ও কেশবপুর থানা ও ওই সব থানার অধীনে যে সব পুলিশ ক্যাম্প,তদন্ত কেন্দ্র ও ফাঁড়ি রয়েছে সে সব পুলিশ ইউনিটে যারা দায়িত্ব পালন করছেন। তারা মাদক ও জঙ্গীকে পুঁজি করে যাকে তাকে গ্রেফতার করেছে। গত ফেব্রুয়ারী মাসের শুরু হতে এ যাবত জেলা পুলিশের ইউনিট গুলো পাঁচ শতাধিক মাদক বিক্রেতা হিসেবে গ্রেফতার দেখিয়েছে। অথচ এ সময়ের মধ্যে একজন জঙ্গীকেও গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়নি। সূত্রগুলো জানিয়েছে, পুলিশ সুপার কর্তৃক একশ’ দিনের কর্মসূচীর চার সপ্তাহে বড় মাপের কোন মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার হয়নি। তবে যারা ধরা পড়েছে। তারা সেবনকারী ও কয়েকজন খুচরা বিক্রেতা। অপর একটি সূত্র বলেছে, একশ’ দিনের কর্মসূচীকে পুঁজি করে কোতয়ালি থানা,পুলিশ ক্যাম্প ও ফাঁড়িতে কর্মরত কতিপয় কর্মকর্তা এবং সদস্যরা যাকে তাকে গ্রেফতার করছে। সূত্রগুটি জানিয়েছে,গ্রেফতার করে তাদেরকে থানা হাজতে নিয়ে রাখালেও হাজত রেজিষ্ট্রারে নাম লিপিবদ্ধ করে না। তাদের নাম লিপিবদ্ধ করা হয় একটি সাদা কাগজে। উক্ত কাগজ ডিউটি অফিসারের কাছে দিলে তিনি তার টেবিলের ড্রয়ারের মধ্যে রেখে দেয়। যার ফলে থানা হাজতে আটক ব্যক্তিকে রাখা হলেও প্রকৃত কাগজ কলমে তিনি হাজত খানায় নেই। আটক ব্যক্তিকে নিয়ে পুলিশের শুরু হয় বানিজ্য। সূত্রগুলো আরো জানায়,কোতয়ালি থানার অফিসার ইনচার্জকে ফাঁকি দিয়ে অনেক সময় থানা হাজতে আসামী রেখে অর্থলোভী পুলিশ কর্তারা অর্থ বানিজ্য করে থাকে। কোতয়ালি থানায় বর্তমানে ৩৮ জন এসআই, ৩০ এএসআই দায়িত্ব পালন করছেন। তাদের মধ্যে দুই তৃতীয়াংশ কর্মকর্তাদ্বয় চরম সর্তকতার মধ্যে আটক বানিজ্য চালিয়ে যাচ্ছেন। খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, অফিসার ইনচার্জকে ফাঁকি দিয়ে কতিপয় এসআই ও এএসআই থানা অভ্যন্তরে আবার অনেক সময় থানার বাইরে বিভিন্ন স্থানে আটককৃত ব্যক্তিদের রেখে দিয়ে দেন দরবারের এক পর্যায় ছেড়ে দিচ্ছে। কোতয়ালি থানা পুলিশের কতিপয় কর্মকর্তাদের অর্থ বানিজ্যর কারণে পুলিশের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন হওয়ার উপক্রম হয়ে দাঁড়িয়েছে বলে সূত্রগুলো জানিয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here