যশোরে মাস্কবিহীন ক্রেতার কাছে পণ্য বিক্রি করলে দোকান বন্ধ করার হুঁশিয়ারি

0
100

নিজস্ব প্রতিবেদক : মাস্কবিহীন ক্রেতার কাছে পণ্য বিক্রি করলে দোকান বন্ধ করার হুঁশিয়ারিচলমান করোনা সংকট ভয়াবহ রুপ নেয়া এবং যশোর বিশেষ নজরদারিতে থাকায় মাস্ক পরা বাধ্যতামূলক করতে জেলা পুলিশ কঠোর অ্যাকশানে নেমেছে। যশোর সদর উপজেলা এলাকায় ২৫টি টিম কাজ করছে।
এছাড়া করোনা সচেতনতামূলক কার্যক্রমের অংশ হিসেবে ৬টি পিকআপে মাইকিং করা হচ্ছে। ক্রেতা বিক্রেতা উভয়কেই পরতে হবে। মাস্ক বিহীন আসা কোনো ক্রেতার কাছে পন্য বিক্রি করলে দোকান বন্ধ করা হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন পুলিশ সুপার। জেলার বাকি ৮ থানা এলাকায়ও পুলিশ কর্মকর্তাগণ সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করে করোনা সংকট মোকাবেলায় কাজ করছেন।
চলমান করোনা সংক্রমণের ভয়াবহতা মোকবেলায় মাস্ক পরা নিশ্চিত করতে মাঠে নেমেছে যশোর জেলা পুলিশের প্রতিটি ইউনিট। শহরের প্রবেশ পথগুলোতে কড়া চেকপোস্ট বসানো হয়েছে। মাস্ক ছাড়া কাউকেও শহরে ঢুকতে দেয়া হচ্ছে না। ৩টি স্পেশাল টিম, ৫টি রেগুলার টিমসহ চেকপোস্ট বসিয়ে মাস্ক পরা নিশ্চিত করা হচ্ছে। কেউ অকারণে নানা অজুহাতে শহর ও শহরতলীতে যত্রতত্র আসা যাওয়া প্রতিরোধ করা হচ্ছে।
১ জুন সকাল থেকেই যশোর সদরসহ জেলার গুরুত্বপূর্ণ স্থান সমূহে জেলা পুলিশের উর্ধŸতন কর্মকর্তাগণ নিয়মিত টহলের মাধ্যমে জনসাধারণকে সচেতন করতে প্রচারনা শুরু করেন। পিকআপে মাইক ও ব্যানার টাঙিয়ে প্রচারনা চালিয়েছেন। তারা মাস্ক বিতরণ করেছেন। যশোর কোতোয়ালি থানা পুলিশ ও ট্রাফিক পুলিশ ছাড়াও বিভিন্ন ইউনিট যশোর শহরের মণিহার, চাঁচড়া, ধর্মতলা, পালবাড়ি উপশহর, খাজুরা বাসস্ট্যান্ড, রেলস্টেশন রেলগেটসহ ব্যস্ত মোড়গুলোতে চেকপোস্ট মাস্ক পরা নিশ্চিত করেছে। এছাড়া শহর ও শহরতলীতে ১৭টি টিম কাজ করেছে। করোনা সংক্রমন রোধে জনসাধারনকে সচেতন করতে উপজেলা পর্যায়ে স্ব স্ব থানার অফিসার ইনচার্জের নেতৃত্বে অফিসারগণ কাজ করছেন। সেখানেও চলছে সচেতনতা মাইকিং।
এ ব্যাপারে যশোরের পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়ারদার জানিয়েছেন, নভেল করোনা ভাইরাস নিয়ে আতঙ্কিত না হয়ে বেশি বেশি সচেতন হতে হবে। অবশ্যই মাস্ক পরতে হবে। স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলাও জরুরি। যশোরে জেলার বিভিন্ন বাজার, রাস্তা, ব্যস্ত এলাকা মার্কেটসহ জনবহুল এলাকায় কড়া সতর্কতা দিয়ে কাজ করছে পুলিশ। বাজারে ক্রেতা বিক্রেতাকে মাস্ক পরতে হবে। দোকানী নিজেই শুধু মাস্ক পরবেন না, কোনো ক্রেতা মাস্ক পরে না আসলে তার কাছে পন্য বিক্রি করা যাবে না। এর ব্যত্যয় ঘটালে দোকান বন্ধ করে দেয়ার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে অফিসারদের। পরবর্তী নির্দেশনা না দেয়া পর্যন্ত এই হুঁশিয়ারি বলবৎ থাকবে বলেও জানিয়েছেন পুলিশ সুপার।