যশোরে মুক্তিযোদ্ধাদের স্বাক্ষর জালিয়াতির অভিযোগ

0
75

নিজস্ব প্রতিবেদক: যশোরের কেশবপুর উপজেলায় যাচাই বাছাই শেষে মুক্তিযোদ্ধাদের তালিকা থেকে বাদ পড়া ৪১ জন জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলে আপিল করেছেন। সেই আপিলে স্বাক্ষী মুক্তিযোদ্ধাদের স্বাক্ষর জাল করা হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। শনিবার প্রেসক্লাব যশোরে সংবাদ সম্মেলন করে এ অভিযোগ করেন কেশবপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার মোহাম্মদ আলী।
সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলের ৭১তম সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক দেশব্যাপী একযোগে গত ৩০ জানুয়ারি বেসামরিক গেজেটকৃত মুক্তিযোদ্ধাদের যাচাই-বাছাই অনুষ্ঠিত হয়। কেশবপুর উপজেলা পরিষদে উপজেলার মুক্তিযোদ্ধা যাচাই-বাছাই সম্পন্ন হয়। ৪৯ জন যাচাই-বাছাইয়ের তালিকাভুক্ত থাকলেও ১২ জন ওই সময় উপস্থিত ছিলেন। বাকি ৩৭ জন অনুপস্থিত ছিলেন। যাচাই-বাছাই শেষে ৪১ জনের নাম না মঞ্জুর তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হয়। তারপর ওই ৪১ জন জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলে আপিল করেন। আপিলে মুক্তিযোদ্ধা হারান কুমার নাথ ও আব্দুর রহমান ঢালীর স্বাক্ষর জাল করে না মঞ্জুর হওয়াদের পক্ষে স্বাক্ষী হিসেবে দেখানো হয়েছে।
বীরমুক্তিযোদ্ধা হারান কুমার নাথ জানান, না মঞ্জুর হওয়াদের পক্ষে স্বাক্ষী হিসেবে তিনি স্বাক্ষর করেননি। আপিল আবেদনে তার স্বাক্ষর জাল করা হয়েছে। গত ১৯ এপ্রিল তিনি বৈধভাবে চিকিৎসার জন্য ভারতে যান। ২৩ সেপ্টেম্বর দেশে ফেরেন। এই সময়ের মধ্যে তিনি দেশেই ছিলেন না। তাহলে কিভাবে তিনি স্বাক্ষর করলেন।
বীরমুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রহমান ঢালী জানান, না মঞ্জুর হওয়া ৪১ জনই ভুয়া মুক্তিযোদ্ধা। কেশবপুর উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের প্রায়ত কমান্ডার আনিছুর রহমান খানের পরামর্শে তিনি ওদের প্রত্যয়নে স্বাক্ষর করেছেন। তার অজ্ঞতার কারণে এই ভুলটি হয়েছে। ওদের পক্ষে তিনি স্বাক্ষ্য দেবেন না।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বীরমুক্তিযোদ্ধা শাহাবুদ্দিন, বীরমুক্তিযোদ্ধা আবুল কাশেম, বীরমুক্তিযোদ্ধা ফজলুর রহমান, বীরমুক্তিযোদ্ধা শামসুর রহমান, বীরমুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সাত্তার প্রমুখ।