যশোরে মৃত ও জিবন্ত সমাধী স্মৃতিসৌধর উদ্বোধন

0
298

হারুন আর রশিদ : বসুন্দিয়ার আফরা ঘাটের পাশে এক গনকবর, যেখানে ১০জন নিহতের সাথে ৩জন জীবিত মানুষকে কবরে দিয়ে হত্যা করে পাক বাহিনী ও তাদের দোসররা। এই লোমহর্ষক হত্যা কাহিনী স্মরণে রাখার জন্য যশোর জেলাপ্রশাসক ড.হুমায়ুন কবীরের আর্থিক সহয়তায় নির্মান করা হয়েছে স্মৃতিসৌধ। বসুন্দিয়া ইউনিয়ন মুক্তিযোদ্ধা কমাণ্ডার আব্দুর রশীদ খানের প্রানন্ত প্রচেষ্টায় এই স্মৃতিচিহ্ন স্থাপন করা সম্ভব হয়েছে।
আজ ১৭ মে দুপুর ১২টায় এক সংখিপ্ত অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ঐ স্মৃতি সৌধ উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক ড.হুমায়ুন কবির। এসময় বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমাণ্ডার রাজেক আহম্মেদ, ঘাতক দালাল নির্মূল কমিটির জেলা সভাপতি হারুন অর রশীদ, জেলা মুক্তিযোদ্ধা ডেপুটি কমাণ্ডার প্রকৌশলী আবুল হোসেন,উপজেলা ডপুটি কমাণ্ডার আফজাল হোসেন দদুল সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা পঙ্কজ কুমার ঘোষ। সংক্ষিপ্ত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন বসুন্দিয়া ইউ পি চেয়ার ম্যান রিয়াজুল ইসলাম খান ও শহিদ পরিবারের সদস্য বিকাশ কুমার দাস স্মৃতিচারন করেন।
৭১এ পাক হানাদার বাহিনী বসুন্দিয়া ঘাটে অবস্থান নিয়ে জগন্নাথপুর বারইপাড়ায় আক্রমন করে ১৩ জনকে ধরে এনে আফরা ঘাটের পাশে লাইন দিয়ে দাড় করিয়ে গুলি করেএক এক করে হত্যাযঞ্জ চালায়। এই গুলিতে ১০জন যায়গায় নিহত হয় তিন জন বেচেছিলো একজনের পায়ে গুলি লাগে সে দর্শকদের দেয়া পানি খায় এবং অনুরোধ করে তাকে নদীতে ফেলে দিতে।কিন্তু খান বাহিনী একটা গর্ত খুঁচে প্রথমে মৃতদের গর্তে ফেলে পরে জীবিতদের দিয়ে মাটিচাপা দেয়। কিছুক্ষণ পর জীবিতরা মাটি সরিয়রে ুঠে পড়ে পূণরায় গর্তথেকে লাশ তুলে আগে জীবিতদের দিয় উপরে মৃতদের দিয় মাটিচাপাদিয়ে বড় গাছের ডাল চাপা দেয়। এই লোহর্ষক ঘটনার বর্ণনা শুনে আমরা স্থম্ভিত হয়ে যায়। গনকবরে নিহতরা হলেন বিষ্ণু দাস,প্রফুল্ল,জগবন্ধু দাস,বিমল দাস,যোগেন্দ্র নাথ দাস,হাজারী দাস,মনিন্দ্র নাথ দাস,তারাপদ সেন,অমর নন্দী, ও একজন কৃষান। জীবিত কবর দেয়া হয় নিতাই সেন,নিখিল দাস ও গবিন্দ মাস্টার।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here