যশোরে মেয়ের আদলা ইটের আঘাতে মায়ের মৃত্যু পিতা বাদি হয়ে মেয়ের বিরুদ্ধে মামলা

0
25

নিজস্ব প্রতিবেদক : তুচ্ছ একটি ঘটনাকে কেন্দ্র করে মেয়ের ইটের আঘাতে গর্ভধারিনী মা আকলিমা বেগম (৫৫) নিহতর ঘটনায় পিতা বাদি হয়ে (রোববার ২৫ ডিসেম্বর )সকালে মেয়ে রুমা খাতুন (২৭) এর বিরুুদ্ধে কোতয়ালি মডেল থানায় হত্যা মামলা দায়ের করেন। ঘটনাটি গত শনিবার( ২৪ ডিসেম্বর )দুপুর দেড়টায় সদর উপজেলার ছোট দোগাছিয়া গ্রামের বাদি শাহজাহান আলীর বাড়িতে। পুলিশ হত্যাকারী রুমা খাতুনকে গ্রেফতার পূর্বক রোববার আদালতে সোপর্দ করলে সে স্বেচ্ছায় আদালতে হত্যাকান্ডর বর্ণনা করে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছে বলে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা জানিয়েছেন।
যশোর সদর উপজেলার চুড়ামনকাটি ইউনিয়নের ছোট দোগাছিয়া গ্রামের মৃত বাহের আলী সরদারের ছেলে শাহজাহান আলী মামলায় বলেছেন, আসামী রুমা খাতুন তার মেয়ে। বিগত ২০০৭ সালে উক্ত মেয়েকে ঝিনাইদহ কোটচাঁদপুর উপজেলার মালাধারপুর গ্রামের সমিনুর এর সাথে পারিবাকিভাবে বিয়ে দেয়। ৯ সালে রুমা খাতুনের গর্ভে জামাই সমিনুর এর ঔরষে কন্যা সন্তানের জন্ম। তার নাম মায়া । বাদির নাতনী জন্ম গ্রহন করার পর সমিনুর রহমান বাদির মেয়েকে তালাক দেন। এরপর ২০১১ সালে রুমা খাতুনকে পুননায় পারিবারিকভাবে চৌগাছার আড়পাড়া গ্রামের সামছু এর সাথে বিয়ে দেন। সামছুর সাথে ঘর সংসার করাকালে ৬ মাস পর সামছু রুমা খাতুনকে তালাক দেন। পরবর্তীতে রুমা খাতুন বিগত ২০১২ সালে তার প্রথম স্বামী সমিনুরকে পুনরায় বিয়ে করে ঝিনাইদহ জেলার শৈলকুপা থানার চড়ইবিল বাজার শেখপাড়ার ভাড়াটিয়া বাসায় বসবাস করে। আবারো সমিনুর রহমানের সংসার বেশী টেকেনি। রুমা খাতুন সমিনুর রহমানকে আবারো তালাক দিয়ে বাদির বাড়িতে চলে আসে। বাদি তার মেয়ে রুমা খাতুনকে বিগত ২০১৫ সালে পারিবারিকভাবে যশোর সদর উপজেলার চুড়ামনকাটি ইউনিয়নের খামার বাগডাঙ্গার আনিছ এর সাথে বিয়ে দেই। বিয়ের পর থেকে রুমা খাতুন তার পিতার বাড়িতে থাকতো। ২০১৬ সালে রুমা খাতুনের গর্ভে আনিছের ঔরষে একটি পুত্র সন্তান জন্ম গ্রহন করেন। কিছুদিন পর রুমা খাতুন বাদি হয়ে সর্বশেষ স্বামী আনিছের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা করেন। মামলাটি বর্তমানে চলমান রয়েছে। রুমা খাতুন তার পিতার বাড়িতে স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করে। প্রায়ই বাদির স্ত্রী আকলিমা বেগম এর সাথে পারিবারিক বিষয় নিয়ে মেয়ে রুমা খাতুনের ঝগড়া বিবাদ হতো। বাদি বিষয়টি মাঝে মধ্যে মীমাংসা করে দিতো। গত ২৪ ডিসেম্বর শনিবার দুপুর ১ টা ৩০ মিনিটে বাদির বাড়ি সংলগ্ন ডিউবওয়েলে বাদির স্ত্রী আকলিমা বেগমের সাথে তার মেয়ে রুমা খাতুনের পারিবারিক বিষয় নিয়ে কথা কাটাকাটির এক পর্যায় উভয়ের মধ্যে হাতাহাটি এবং চুল টানাটানি শুরু হয়। বাদির মেয়ে রুমা খাতুন টিউবওয়েলের পাশে থাকা আদলা ইট গর্ভ ধারিনী মা আকলিমা বেগমের উদ্দেধ্যে ছুড়ে মারে। উক্ত টিম আকলিমা বেগমের মাথার পিছনে বাম পাশের ঘারের উপর আঘাত লাগে। উক্ত আঘাতের ফলে আকলিমা বেগম মাটিতে লুটিয়ে পড়ে মৃত্যুর কোলে ঢোলে পড়ে। ঘটনার পরপর রুমা খাতুন দ্রুত পালিয়ে যায়। টিউবওয়েলের পাশে ঘটনার সময় থাকা বাদির ছোট মেয়ে শাপলা খাতুন বিষয়টি দেখে। সংবাদ পেয়ে বাদি বাড়িতে এসে ছোট মেয়ে শাপলার কাছে তার মা হত্যার বিষয় সম্পর্ক অবগত হয়। হত্যাকান্ডের সংবাদ পেয়ে পুলিশ বাদির বাড়িতে এসে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তর জন্য হাসপাতাল মর্গে প্রেরণ করে। এ ঘটনায় পুলিশ হত্যাকারী রুমা খাতুনকে দোগাছিয়া এলাকা থেকে গ্রেফতার করে। রোববার আদালতে সোর্পদ করলে রুমা খাতুন স্বেচ্ছায় আদালতে জবানবন্দি প্রদান করেন বলে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা নিশ্চিত করেন।#