যশোরে যুবক হত্যাকান্ডের ঘটনায় ছয় জনের নাম উল্লেখ করে মায়ের মামলা

0
266

বিশেষ প্রতিনিধি : পুলিশের কথিত সোর্স আব্দুর রহমান ওরফে রুমান হত্যা কান্ডে ৫ জনের নাম উল্লেখ করে কোতয়ালি মডেল থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। নিহতর মাতা আমেনা বেগম বাদি হয়ে শনিবার মামলাটি দায়ের করেন। মামলার আসামীরা হচ্ছে, যশোর শহরের সিটি কলেজ পাড়ার ইনছানের ছেলে রুবেল,ঝুমঝুমপুরের রুবেল,ঝুমঝুমপুর গাজী পাড়ার রকি,ঝুমঝুমপুর নদীর পাড়ের ফয়সারের বাড়ির ভাড়াটিয়া মনির হোসেনে ছেলে আমিনুর ও সীতারামপুর গ্রামের বুনো বাবু সহ অজ্ঞাতনামা ৫/৬জন।
সদর উপজেলার সীতারামপুর পশ্চিম পাড়ার আশরাফ ফকিরের স্ত্রী আমেনা বেগম দায়েরকৃত এজাহারে বলেছেন,তার ছেলে টাইলস মিস্ত্রীর কাজ করে। সিটি কলেজ পাড়ার ইনছানের ছেলে রুবেলসহ তার সহযোগী রুবেল ও অন্যান্যদের বিরুদ্ধে কোতয়ালি থানায় মামলা রয়েছে। হত্যাকান্ডের ৩/৪দিন পূর্বে রুবেল কারগার থেকে জামিনে বের হয়ে আব্দুর রহমান রুমানকে হত্যার উদ্দেশ্যে খোঁজ করতে থাকে। রুবেল ও তার সহযোগীরা ধারনা করেছে রুমান পুলিশের সোর্স। পুলিশ দিয়ে তাদেরকে ধরিয়ে দেয় রুমান। এ নিয়ে পূর্ব শত্রুতার চলে আসছিল। ৩ মাস পূর্বে আসামীরা রুমানকে মারপিট করে আহত করে। গত ৩০ মার্চ রাত সাড়ে ৯ টায় আসামীরা রুমানকে বাড়ি থেকে ডেকে নিয়ে আসে। পরে তাকে ঝুমঝুমপুর চান্দের মোড় হতে ভিতরের জনৈক জাহাঙ্গীরের বাড়ির নীচে নদীর পাড়ে নিয়ে পূর্ব শত্রুতার কারনে ছুরিকাঘাত ও হত্যা নিশ্চিত করতে গলা কেটে লাশ বস্তায় ভরে নদীর কচুরীপনার মধ্যে রেখে দেয়। শুক্রবার সকালে স্থানীয় লোকজন নদীর পাড়ে রক্ত মাখা জামা দেখে ও নদীতে লাশ ভাসছে খবর পেয়ে আমেনা বেগমসহ তাদের আত্মীয়স্বজন এসে বস্তা থেকে মরদেহ বের করার পর আমেনা বেগম তার ছেলেকে সনাক্ত করে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত মামলার তদন্তর কারী কর্মকর্তা হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here