যশোরে যুবদল-ছাত্রদলের কর্মসূচিতে ১২ নেতাকর্মীকে গ্রেফতারের অভিযোগ

0
28

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরে জাতীয়তাবাদী যুবদল ও ছাত্রদলের কর্মসূচিতে নগর যুবদলের সভাপতি-সম্পাদকসহ ১২ নেতাকর্মীকে গ্রেফতারের অভিযোগ উঠেছে। শনিবার বিকালে শহরের লালদিঘিস্থ জেলা বিএনপির কার্যালয় চত্বর থেকে নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করা হয়। তবে, পুলিশ বলছে যাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন নাশকতাসহ বিভিন্ন মামলা রয়েছে তাদেরকেই গ্রেফতার করা হয়েছে।
বিএনপি নেতাদের অভিযোগ, আদালতের রায়ে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ও স্ত্রী ডা. জোবাইদা রহমানে সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার প্রতিবাদে কেন্দ্রীয় কর্মসূচির অংশ হিসাবে শনিবার বিকালে দলীয় কার্যালয়ে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশের আয়োজন করে যশোর জেলা যুবদল ও ছাত্রদল। বেলা ৩ টার পর থেকে দলীয় কার্যালয়ের আশপাশের ভবনের নিচে দলীয় নেতাকর্মীরা অবস্থান নিতে থাকেন। এসময় হঠাৎ করে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বেলাল হুসাইন ও কোতায়ালী থানার ভারপ্রাাপ্ত কর্মকর্তা তাজুল ইসলামের নেতৃত্বে পুলিশের একটি টিম নিয়ে এসে লালদিঘি পাড়ে আসেন। এসেই তারা উপস্থিত পুলিশ সদস্যদের পাশের একটি ভবনের নিচে বসা নেতাকর্মীদের আটকের নির্দেশ দেন। আটককৃত নেতাদের মধ্যে নগর যুবদলের সভাপতি রফিকুল ইসলাম চৌধুরি মুল্লুক চাঁদ ও সাধারণ সম্পাদক এহসানুল হক সেতুসহ ১২ জন নেতাকর্মী রয়েছেন। এর আগে, শনিবার সকাল থেকে রাত পর্যন্ত লাল দিঘিপাড়স্থ জেলা বিএনপির কার্যালয়ের সামনের জনগুরুত্বপূর্ণ সড়কটির দুটি প্রবেশ পথ পুলিশ লোহার ব্যারিকেড দিয়ে আটকে দেয়। জেলা বিএনপি কার্যালয়সহ গোটা আশপাশ এলাকা বিপুল সংখ্যক পুলিশ মোতায়েন করা হয়। এদিকে, উপতপ্ত পরিস্থিতির মধ্যে এদিন সন্ধ্যায় জেলা যুবদল ও ছাত্রদলের নেতৃবৃন্দ শহরের রবীন্দ্রনাথ সড়ক (আর এন রোডে) বিক্ষিপ্তভাবে বিক্ষোভ মিছিল করে। সেখান থেকেও বেশ কয়েকজনকে পুলিশ গ্রেফতার করে নিয়ে যায় বলে নেতাকর্মীদের ভাষ্য। জেলা বিএনপির সদস্য সচিব সৈয়দ সাবেরুল হক সাবু বলেন, ‘বিএনপি নেতাকর্মীরা একজায়গায় জড়ো হলেই সরকারের মাথায় কাজ করে না। বিভিন্ন মিথ্যা অভিযোগে আমাদের নেতাকর্মীদের গ্রেফতার করেছে। গ্রেফতারকৃতদের ইতোমধ্যে কারাগারে প্রেরণও করেছে। জেলা যুবদলের সভাপতি এম তমাল আহমেদ বলেন, দলের শান্তিপূর্ণ কর্মসূচিতে পুলিশ বিনা উস্কানীতে ন্যাক্কার জনক ভাবে নেতাকর্মীকে আটক করেছে। শান্তিুপূর্ণ কর্মসূচিতে পুলিশের এমন আচরণের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই। একই সাথে আটক আটক নেতাকর্মীদের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি জানাচ্ছি। এই বিষয়ে যশোরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বেলাল হোসাইন ও কোতয়ালী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তাজুল ইসলামের মুঠোফোনে একাধিক বার যোগাযোগ করা হলে তারা দুই জনই ফোন রিসিভ করেননি। তবে এই বিষয়ে থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) একেএম শফিকুল আলম চৌধুরী বলেন, বিভিন্ন মামলায় তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে। তবে কতজনরে গ্রেফতার করা হয়েছে সেটি বলতে পারছি না।