যশোরে যুবলীগের একাংশের বিএনপি কার্যালয়ে তান্বড, তরিকুলপুত্রের গাড়ি ভাংচুর ও বাড়িতে হামলা

0
112

অশান্ত হয়ে উঠেছে যশোরের রাজনৈতিক পরিস্থিতি

নিজস্ব প্রতিবেদক : অশান্ত হয়ে উঠেছে যশোরের রাজনৈতিক পরিস্থিতি। শুক্রবার মধ্যরাতে বিএনপির শীর্ষ চার নেতার বাড়িতে তা-বের পর এবার প্রকাশ্যে জেলা বিএনপি কার্যালয়ে হামলা তা-ব, কেন্দ্রীয় নেতা তরিকুলপুত্র অমিতের গাড়ি ভাংচুর ও বাড়িতে হামলা চালিয়েছে। যশোর যুবলীগ ও ছাত্রলীগের একাংশের মিছিল থেকে এই হামলার ঘটনা ঘটেছে। এসব ঘটনার পর শহরে ব্যাপক পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। শহর জুড়ে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।
প্রত্যক্ষদর্শী ও বিএনপি সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্র জানায়, যশোর সদর উপজেলার রূপদিয়া বাজারে সহিংসতার ঘটনায় গ্রেফতার ২৮ নেতাকর্মীকে রোববার বিকেলে আদালতে হাজির করা হয়। বিকেল ৩টার দিকে আদালতে নেতাকর্মীদের দেখতে যান বিএনপির খুলনা বিভাগীয় ভারপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক অনিন্দ্য ইসলাম অমিত। এসময় পুলিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে তিনি বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পড়েন। এক পর্যায়ে পুলিশ কর্মকর্তা শহরের অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়। আদালত থেকে ফেরার পথে শহরের প্রাণকেন্দ্র দড়াটানায় হামলার শিকার হন। ছাত্রলীগ ও যুবলীগের একাংশের মিছিল থেকে তার গাড়ির ওপর হামলা করা হয়। লাঠিসোটা ও লোহার রডের হামলার মুখে তার চালক গাড়ি চালিয়ে বেরিয়ে যান। এরপর ছাত্রলীগ ও যুবলীগ নেতাকর্মীরা জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে জড়ো হন। বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে সেখান থেকে ছাত্রলীগ ও যুবলীগের একটি বিক্ষোভ মিছিল বের হয়। মিছিলটির নেতৃত্ব দেন জেলা যুবলীগের সহ সভাপতি সৈয়দ মেহেদি হাসান, প্রচার সম্পাদক ও পৌর কাউন্সিলর জাহিদ হোসেন মিলন, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন বিপুল, ছাত্রলীগের সাবেক নেতা শাহজাহান কবির শিপলু। নেতৃত্বদানকারীরা জেলা আওয়ামী লীগের এমপি কাজী নাবিল আহমেদের গ্রুপের সদস্য হিসেবে পরিচিত। মিছিলটি শহরের লালদীঘি পাড়ের জেলা বিএনপি কার্যালয়ে গিয়ে ব্যাপক ভাঙচুর ও তা-ব চালায়। এ সময় বিএনপি কার্যালয়ের ভিতরের চেয়ার টেবিল, ব্যানার ফেস্টুন ব্যাপক ভাংচুর করা হয়।
এরপর মিছিলটি শহরের দড়াটানা হয়ে ঘোপ পিলুখান রোডে বিএনপি’র খুলনা বিভাগীয় ভারপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক তরিকুলপুত্র অনিন্দ্য ইসলাম অমিতের বাড়িতে হামলা চালায়। সেখানে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে ভাংচুর চালায়। এ সময় বাড়ির বাইরে থাকায় কয়েকজন গণমাধ্যমকর্মীর মোটরসাইকেল ভাংচুর করা হয়েছে। সব মিলিয়ে রোববার দুপুরের পর থেকেই যশোর শহর উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে। এছাড়াও শহরে কয়েকটি পয়েন্ট গাড়ি ভাংচুরের খবর পাওয়া গেছে।
এ সময় অনিন্দ্য ইসলাম অমিতের বাড়ি থেকে ছাত্রদল, যুবদলের নেতাকর্মীরাও পাল্টা ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। এরপর ছাত্রলীগ যুবলীগের নেতাকর্মীরা জেলা আওয়ামী লীগ কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশ করেন।
দলীয় কার্যালয়ের সামনে অনুষ্ঠিত বিক্ষোভ সমাবেশ থেকে বিএনপির সন্ত্রাসী কর্মকান্ড রুখে দিতে যুবলীগের নেতাকর্মীরা রাজপথে থাকবে বলে ঘোষণা দেয়া হয়। জেলা যুবলীগের সহসভাপতি সৈয়দ মেহেদী হাসানের সভাপতিত্বে সামবেশে বক্তব্য দেন সদর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক যুবলীগ নেতা আনোয়ার হোসেন বিপুল, জেলা যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক রফিকুল ইসলাম রফিক, প্রচার সম্পাদক পৌর কাউন্সিলর শেখ জাহিদ হোসেন মিলন প্রমুখ।
সমাবেশে নেতৃবৃন্দ বলেন, বিশ^ অর্থনৈতিক সংকটকে পুজি করে বিএনপি দেশকে অশান্ত করার চেষ্টা করছে। বিএনপির খুলনা বিভাগীয় ভারপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক অনিন্দ্য ইসলাম অমিত যশোরকে অশান্ত করার চক্রান্তে লিপ্ত। আন্দোলনের নামে বিএনপি তার নেতৃত্বে অরাজকতা করছে। ইতিমধ্যে একজন নির্বাচিত জনপ্রতিনিধির গাড়ি ভাঙচুর করেছে। যশোরে তাদের এই অপতৎপরতা আর চলতে দেয়া হবে না। শুধু শহরে নয়, কোন ওয়ার্ডেও কর্মসূচি পালনের নামে বিশৃঙ্খলা করতে দেয়া হবে না। যুবলীগের নেতাকর্মীরা তাদের প্রতিহত করবে।
ঘটনার পর বিএনপি’র খুলনা বিভাগীয় ভারপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক তরিকুলপুত্র অনিন্দ্য ইসলাম অমিত বলেছেন, আদালত থেকে ফেরার পথে তার গাড়িতে হামলা হয়েছে। বিপুল, টাক মিলনের উপস্থিতি এই হামলা হয়েছে। এরপর তারা পার্টি অফিসে ব্যাপক ভাংচুর করেছে। আওয়ামী সন্ত্রাসীদের হাতে কেউই নিরাপদ নয়।
আর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক সদর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেন বিপুল সাংবাদিকদের কাছে দাবি করেছেন, তারা কোনো হামলা করেননি। অমিতের সন্ত্রাসী কর্মকা-ের প্রতিবাদে তারা রাজপথে অবস্থান করছেন।
এ বিষয়ে জেলা বিএনপির সদস্য সচিব অ্যাড. সৈয়দ সাবেরুল হক সাবু বলেন, আওয়ামী লীগের সন্ত্রাসীরা নারকীয় তান্ডব চালিয়েছে। রাজনৈতিক দলের পবিত্রস্থান দলীয় কার্যালয়। সেটিও তান্ডব থেকে রক্ষা পায়নি। বিএনপির খুলনা বিভাগীয় ভারপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক অনিন্দ্য ইসলাম অমিতকে হত্যা চেষ্টা করা হয়েছে। তার গাড়ি ভাংচুর করা হয়েছে। তাদের বাড়িতে হামলা করেছে আওয়ামী সন্ত্রাসীরা। তাদের তান্ডবে আমরা কেউ নিরাপদ নয়। আওয়ামী লীগের জেলা পর্যায়ের অভিভাবকদের ভূমিকাও প্রশ্নবিদ্ধ। তারা আসলে কি চাইছেন। তারা অরাজকতার পরিবেশ সৃষ্টি করতে চাইলে পরিস্থিতি আরও খারাপ হবে। তাদের ভূমিকায় আমরা হতবাক হয়েছি।
এব্যাপারে যশোর কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি তাজুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেছেন, কয়েকটি স্থানে অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেছে। তবে কোনো পক্ষই থানায় অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।
এর আগে শুক্রবার মধ্যরাতে যশোরে বিএনপির শীর্ষ চার নেতার বাড়িতে মধ্যরাতে তা-বের ঘটনা ঘটে। বিএনপি নেতাদের অভিযোগ ‘জয় বাংলা’ শ্লোগান দিয়ে আওয়ামী সন্ত্রাসীরা এই হামলা, ভাংচুরের ঘটনা ঘটায়। হামলার ঘটনা ঘটে বিএনপির খুলনা বিভাগীয় ভারপ্রাপ্ত সাংগঠনিক সম্পাদক অনিন্দ্য ইসলাম অমিত, জেলা বিএনপির সদস্য সচিব অ্যাড. সৈয়দ সাবেরুল হক সাবু, যুগ্ম-আহ্বায়ক দেলোয়ার হোসেন খোকন ও আহ্বায়ক কমিটির সদস্য আলহাজ মিজানুর রহমান খাঁনের বাসভবনে।