যশোরে যৌতুকের দাবিতে গৃহবধূ সাথী হত্যার অভিযোগে জামাতা বিয়াইসহ তিনজনের বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশীট

0
300

এম আর রকি : ৫০ হাজার টাকা যৌতুক দাবি করে গৃহবধূ ও দুই সন্তানের জননী সাথী (৩০) কে পিটিয়ে হত্যা করে মুখে বিষ ঢেলে দেওয়ার অভিযোগে জামাতাসহ তিনজনের বিরুদ্ধে চার্জশীট দাখিল করেছেন। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা তালবাড়িয়া পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ এসআই জাকির হোসেন অভিযোগ প্রমানীত হওয়ায় চার্জশীট দাখিল করেন। আসামীরা হচ্ছে,সাতক্ষীরা জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার গড়–ই মহল পোষ্ট রতনপুর ওয়ার্ড নং ০২ আফছার উদ্দিন গাজীর ছেলে জামাতা শহিদুল ইসলাম ওরফে শহিদ,মৃত শহর আলী গাজীর ছেলে বিয়াই আফছার উদ্দিন গাজী ও জামাতার ভাগ্নে সাতক্ষীরা জেলার কালীগঞ্জ উপজেলার খুব্দীপুর গ্রামের বর্তমানের উপশহর ৫নং সেক্টর বাসা নং ২০ এর আব্দুর হাকিমের ছেলে সিরাজুল ইসলাম। আসামীরা সবাই পলাতক রয়েছে।
মামলা বিবারণে জানাযায়,যশোর সদর উপজেলার ঘুরুলিয়া সাদ্দাম মোড়ের মৃত জুমাত আলী মোল্যার ছেলে জলিল বিগত ২০১৪ সালের ১ নভেম্বর বিকেলে যশোর কোতয়ালি মডেল থানায় বাদি হয়ে এজাহার দায়ের করেন। তিনি এজাহারে উল্লেখ করেন,তার মেয়ে সাথী’র সাথে শহিদুল ইসলাম ওরফে শহিদের ১০ বছর পূর্বে বিয়ে হয়। বিয়ের পর সাথীর গর্ভে শহিদের ঔরসে দু’টি ছেলে জন্ম গ্রহন করেন। বিয়ের পর ঘর সংসার করাকালে বছর কয়েক পর শহিদুল ইসলাম স্ত্রী সাথীকে নিয়ে যশোর সদর উপজেলার শেখহাটি জামরুল তলার খোকনের বাড়ি ভাড়ানিয়ে সেখানে বসবাস করতে থাকে। সে ব্যবসা করার জন্য সাথীকে তার পিতার বাড়ি হতে ৫০ হাজার টাকা যৌতুক এনে দিতে বলে। যৌতুকের নির্যাতন থেকে রক্ষা করতে সাথীর পিতা জামাইকে নগদ ২০ হাজার টাকা প্রদান করেন। কিছুদিন যেতে না যেতে পুনরায় ৫০ হাজার টাকা যৌতুক চেয়ে স্বামী শহিদুল ইসলাম তার পিতা আফছার উদ্দিন গাজী ও ভাগ্নে সিরাজুল ইসলামের পরামর্শ অনুযায়ী নির্যাতন করে। গত ২০১৪ সালের নভেম্বর মাসে নির্যাতনের এক পর্যায় পিটিতে হত্যা করে। পরে অবস্থা বেগতিক দেখে মুখে বিষ ঢেলে আত্মহত্যা বলে অপপ্রচার চালায়। সাথীর লাশ উদ্ধার করে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে মর্গে ময়নাতদন্ত সম্পন্ন করা হয়। পরবর্তীতে ভিসারা রিপোর্টে সাথীকে হত্যা করা হয়েছে মর্মে রিপোর্ট আসে। কোতয়ালি থানায় ১৪ সালের ১ নভেম্বর হত্যা মামলা দায়ের করা হলে প্রথমে মামলাটি তদন্তর ভার পড়ে তৎকালীন কোতয়ালি মডেল থানায় কর্মরত এসআই বিধান কুমার বিশ্বাসের উপর। তিনি বদলী হয়ে যাওয়ার কারনে মামলাটি এসআই তপন কুমার সিংহর উপর তদন্তর ভার পড়েন। সে বদলী হয়ে যাওয়ার পর মামলাটি বর্তমানে যশোর সদর উপজেলার তালবাড়িয়া পুলিশ ক্যাম্পের ইনচার্জ এসআই জাকির হোসেনের উপর তদন্তর দায়িত্ব পড়ে। তিনি তদন্ত কার্যক্রম শুরু করার পর ও ভিসারা রিপোর্টের সূত্রধরে নিশ্চিত হন সাথীকে হত্যা করা হয়েছে। পরে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ২০০০ এর ১১(ক)/৩০ ধারার অভিযোগ প্রমানীত হওয়ায় ১৯ এপ্রিল বুধবার আদালতে চার্জশীট দাখিল করেন। অভিযোগ পত্র নং ৪০৮ তারিখঃ ৯/৩/১৭ ইং।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here