যশোরে রিকশা চালানোর অন্তরালে প্রতিনিয়ত লাখলাখ টাকার মূল্যবান সম্পদ নিয়ে লাপাত্তা হচ্ছে একদল অপরাধী !

0
354

এম আর রকি : যশোরে রিকশা চালানোর অন্তরালে একটি শক্তিশালী সিন্ডিকেট শহরের বিভিন্ন পয়েন্ট থেকে যাত্রীদেরকে ফাঁদে ফেলে লাখলাখ টাকার মূল্যবান মালামাল চুরি করা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। ঘটনার ব্যাপারে কোতয়ালি মডেল থানায় অভিযোগ করেও কোন সূরাহা হচ্ছে না। যার ফলে দিনদিন এই চক্রের তৎপরতা আশংকাজনক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। রোববার দুপুরে কোতয়ালী মডেল থানার সামনে এক কম্পিউটার ব্যবসায়ীর আড়াই লাখ টাকার মালামাল কৌশলে চুরি করে লাপাত্তার ঘটনা ঘটেছে। এর দুই দিন পূর্বে শহরের দড়াটানা সংলগ্ন যশোর জেনারেল হাসপাতালের অদূরে একটি ঔষধ কোম্পানীর লাখ টাকার মালামাল চুরি করে লাপাত্তা হয়েছে চক্রটি। ঘটনার ব্যাপারে কোতয়ালি মডেল থানা পুলিশ চক্রের সন্ধ্যানে অভিযান চালালেও ফলাফল জিরো অবস্থানে রয়েছে।
যশোর শহরের জেলরোড বর্তমনে এম কে রোড জেস্ টাওয়ার চতুর্থতলার বাবর কম্পিউটার দোকান মালিক বাবর আলী কোতয়ালি মডেল থানায় রোববার দুপুরে দায়েরকৃত অভিযোগে বলেছেন,তার দোকানের কর্মচারী চৌগাছা উপজেলার হাজরাখানা গ্রামের নুরুল ইসলামের ছেলে ইমন শহরের আর এনরোডস্থ এসএ পরিবহন হতে দোকানের বিভিন্ন মালামাল ল্যাপটপ সামগ্রী সিসি ক্যামেরা,ডিভিআর আইটেমের মালামালসহ আড়াইলাখ টাকা মূল্যের মালামাল নিয়ে একটি অজ্ঞাতনামা একটি রিকশায় তুলে দোকানের উদ্দেশ্যে আসছিল। দুপুর আনুমানিক ১ টায় চৌরাস্তা মোড়স্থ কোতয়ালি মডেল থানার সামনে এলজি শো’রুমের সামনে আসা মাত্রই চক্রের সদস্য রিকশা চালক তার রিকশার চেইন ফেলে রিকশা থামিয়ে দেয়। রিকশা চালক কৌশল নিয়ে রিকশার চেইন লাগানোর এক পর্যায় চক্রের ৪/৫জন হঠাৎ রিকশার সামনে এসে রিকশার যাত্রী ইমনকে শার্টের কলার ধরে হুমকী ধামকীর এক পর্যায় প্রাননাশের হুমকী দিয়ে হাত ধরে টানাটানি করে। আর এই সুযোগে রিকশা চালক মালামাল নিয়ে দ্রুত সটকে পড়ে। রিকশা চালকের সন্ধান করতে করতে গিয়ে তাকে হামলাকারীরা দ্রুত সটকে পড়ে। বিষয়টি কর্মচারী ইমন দোকান মালিক বাবর আলীকে জানালে বাবর আলী কোতয়ালি মডেল থানায় অভিযোগ করেন।অপর একটি সূত্র বলেছেন,দুই দিন পূর্বে একটি ঔষধ কোম্পানীর প্রতিনিধি রিকশা যোগে বিভিন্ন প্রকার ঔষধ নিয়ে শহরের জেনারেল হাসপাতালের সামনে ব্রীজের উত্তর পাশে আসলে রিকশা চালক কৌশল নিয়ে রিকশা বিকল হয়ে যাওয়ার এক পর্যায় ঔষধ প্রতিনিধিকে নামতে বললে নামার সাথে সাথে চক্রের ৩/৪জন সদস্য উক্ত ঔষধ প্রতিনিধিকে ধাক্কা মারার এক পর্যায় হাতাহাতি শুরু করে। এই সুযোগে রিকশায় থাকা কয়েকলাখ টাকা মূল্যের ঔষধ নিয়ে রিকশা চালক সটকে পড়ে। খোঁজ নিয়ে আরো জানাগেছে,গত বছরে এ ধরনের ঘটনায় কোতয়ালি মডেল থানায় অভিযোগ দায়ের করা হলেও পুলিশ এই চক্রটিকে ধরতে ব্যর্থ হওয়ায় চক্রটি থেকে গেছে ধরা ছোয়ার বাইরে। যার ফলে প্রতিনিয়ত রিকশা চালানোর অন্তরালে দস্যুতাসহ ডাকাতির ঘটনা ঘটছে। এ ব্যাপারে ভূক্তভোগীরা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীসহ পুলিশের আইজি’র হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here