যশোরে লম্পট শিক্ষকের পক্ষে ম্যানেজিং কমিটির একটি পক্ষ

0
453

বিশেষ প্রতিনিধি : যশোরের চৌগাছা উপজেলার কাটগড়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্রীর শ্লিলতাহানির ঘটনায় অভিযুক্ত ও সাময়িক বহিষ্কৃত শিক্ষক ইসমাইল হোসেনকে চাকরিতে পুনর্বহালের চেষ্টা করছে ম্যানেজিং কমিটির একটি পক্ষ। অথচ গত ৫ এপ্রিল ম্যানেজিং কমিটির সভায় ওই শিক্ষককে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়।

এরআগে ওই শিক্ষার্থীর শ্লিলতাহানি করার অভিযোগ ওঠে শিক্ষক ইসমাইলের বিরুদ্ধে। এ অভিযোগের সত্যতা পাওয়া এবং কারণ দর্শানো নোটিশের সন্তোষজনক জবাব না দিতে পারায় ২৮ মার্চ তাকে সাময়িক বরখাস্ত করার সিদ্ধান্ত হয়। সূত্র জানিয়েছে, গত ২৫ মে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে চাপে রেখে ওই শিক্ষককে হাজিরা খাতায় স্বাক্ষর করিয়েছে বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটির একটি পক্ষ। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শ্লিলতাহানির ঘটনায় দুঃখ প্রকাশ এবং এ ধরনের ঘটনা ভবিষ্যতে ঘটাবেন না মর্মে একটি লিখিত মুচলেকা দিতে বললেও তা দেননি অভিযুক্ত শিক্ষক ইসমাইল হোসেন। পরে নবম শ্রেণিতে ক্লাস নিতে গেলে শিক্ষার্থীরা ওই শিক্ষকের ক্লাস বয়কট করে। সূত্র জানায়, ম্যানেজিং কমিটির যে পক্ষটি শিক্ষক ইসমাইল হোসেনকে বহিষ্কারের দাবিতে অটল ছিল, তারাই এখন কোনো এক অদৃশ্য কারণে ওই শিক্ষককে চাকরিতে পুনর্বহালের জোর প্রচেষ্টা চালাচ্ছে।

এদিকে, অভিযুক্ত শিক্ষক ইসমাইল হোসেনের বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগের বিষয়ে পুনঃতদন্তপূর্বক দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি ও তাকে চাকরি থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কারের দাবি জানিয়ে ৫৬ জন অভিভাবক চৌগাছা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারের কাছে গণস্বাক্ষরযুক্ত একটি আবেদন করেছেন। গত ১৫ মে অভিভাবকরা এই আবেদনের অনুলিপি শিক্ষামন্ত্রী নূরুল ইসলাম নাহিদ, উপ-পরিচালক, মাধ্যমিক শিক্ষা অধিদপ্তর খুলনা, যশোরের জেলা প্রশাসক, যশোর শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান, জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার ও চৌগাছা উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে রেজিস্ট্রি ডাকযোগে এর অনুলিপি পাঠিয়েছেন। নির্যাতনের শিকার ছাত্রী গত ২৯ মার্চ প্রধান শিক্ষক বরাবর লিখিত অভিযোগে জানায়, ২৮ মার্চ দুপুরে স্কুল ছুটির পর কৌশলে অফিস কক্ষে ডেকে নিয়ে শিক্ষক ইসমাইল হোসেন তার শ্লিলতাহানি করেছেন। এ সময় তার চিৎকারে স্কুলের ঝাড়ুদার কল্পনা রানি ও আয়া সুখতারা বেগম এসে ছাত্রীকে উদ্ধার করেন। অভিযোগের প্রেক্ষিতে প্রধান শিক্ষক ৩০ মার্চ বিষয়টি উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারকে জানালে তিনি তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দেন। এরপর ১ এপ্রিল বিদ্যালয় ব্যবস্থাপনা কমিটির জরুরি সভায় তাকে তিন দিনের মধ্যে কারণ দর্শাতে বলা হয়। ৪ এপ্রিল ইসমাইল হোসেন এর লিখিত জবাব দেন। অভিযোগের সত্যতা প্রমাণিত হওয়ায় ও শিক্ষকের জবাব সন্তোষজনক না হওয়ায় ম্যানেজিং কমিটি ৫ এপ্রিল তাকে সাময়িকভাবে বহিষ্কার করে।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার নারগিস পারভীন গণস্বাক্ষরযুক্ত আবেদনটি পাওয়ার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসারকে বিষয়টি পুনঃতদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়ার নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here