যশোরে শিক্ষার্থীকে অপহরণের অভিযোগে মামলা

0
298

বিশেষ প্রতিনিধি : প্রকাশ্য দিবালোকে অনার্স পড়–য়া কলেজ ছাত্রী সুরভী আক্তার স্বর্ণা (২১) অপহরণের অভিযোগে কোতয়ালি মডেল থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। পুলিশ অপহৃতা কলেজ পড়–য়া ছাত্রীকে উদ্ধার করতে সক্ষম হয়েছে। তবে অপহরণের সাথে জড়িত কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি। মামলায় আসামী করা হয়েছে, ঝিনাইদহ জেলার শৈলকূপা উপজেলার বড়দা শ্রীপুর,২ নং মির্জাপুর ইউনিয়নের কদম আলীর ছেলে হাসানুর রানা,একই জেলার হরিণাকুন্ডু উপজেলার মথুরা পুর গ্রামের রবিউল ইসলামের ছেলে বাবুসহ অজ্ঞাতনামা ২/৩জন।
চুয়াডাঙ্গা জেলার জীবননগর উপজেলার দেহাটি গ্রামের আব্দুল হান্নান জোয়ারদারের স্ত্রী রিনা নাছরিন বাদি হয়ে কোতয়ালি মডেল থানায় দায়েরকৃত এজাহারে বলেছেন,তার মেয়ে সুরভী আক্তার স্বর্ণা যশোর শহরের আরবপুর মোড়স্থ মনু মিয়া মেস এ থেকে যশোর ক্যান্টমেন্ট কলেজে অর্থনীতি বিভাগে অনার্স তৃতীয় বর্ষে লেখাপড়া করে। আসামী হাসানুর রানার সাথে তার মেয়ের মোবাইল ফোনের মাধ্যমে পরিচয়। পরিচয়ের সূত্রধরে হাসানুর রহমান সুরভী আক্তার স্বর্নাকে বিয়ে করার প্রলোভন দেখাতো। রিনা নাছরিন বিষয়টি জেনে হাসানুর রানাকে মেয়ে স্বর্ণার সাথে যোগাযোগ রাখতে নিষেধ করে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে বিভিন্নভাবে হুমকী ধামকী প্রদান করে। গত ২৮ আগষ্ট বুধবার রিনা নাছরিন তার মেয়ের সাথে কলেজে সেশন চার্জ জমা দেওয়ার জন্য যান। দুপুর ১২ টায় রিনা নাছরিন কলেজের ওয়াশরুমে যান এবং স্বর্ণা কলেজের মেইন গেটের সামনে অবস্থান করে। ওই সময়ে আসামীরা স্বর্ণাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে তাদের সাথে নিয়ে যায়। রিনা নাছরিন ওয়াশরুম থেকে বের হয়ে মেয়ে স্বর্ণাকে না পেয়ে হাসানুর রানার মোবাইল নাম্বারে ফোন করলে হাসানুর রানা জানান তারা বিয়ে করবে। তারা স্বর্ণাকে ফেরত দিবে বলে জানান। রিনা নাছরিন আশংকা প্রকাশ করে তার মেয়েকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে অসৎ উদ্দেশ্যে নিয়ে গেছে। অজ্ঞাতস্থানে আটক রেখেছে। এ ব্যাপারে কোতয়ালি মডেল থানায় অভিযোগ দায়ের করার পর কোতয়ালি মডেল থানার এসআই নূর ইসলাম শুক্রবার রাতে আসামীদের বাড়ি হতে স্বর্ণাকে উদ্ধার করে। এ সময় আসামীরা পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে দ্রুত পালিয়ে যায়।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here