যশোরে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ কোচিং সেন্টার খোলা

0
90

: স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকলেও যশোরে কোচিং বন্ধ হয়নি। নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে শিক্ষার্থীদের ঝুঁকির মধ্যে ফেলে চলছে কোচিং ক্লাস। করোনার উচ্চ সংক্রমণের কারণে কোথাও ১০০ জনের বেশি জনসমাগম নিষিদ্ধ করা হয়েছে। কিন্তু কোচিং সেন্টারগুলোয় শত শত শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের ভীড় করেছেন। সেখানে মানা হচ্ছে না কোনো প্রকার স্বাস্থ্যবিধি। ফলে শিক্ষার্থীদের মধ্যে সংক্রমণ ছড়ানো ঠেকাতে স্কুল-কলেজ বন্ধের সরকারি সিদ্ধান্ত মাঠে মারা যাচ্ছে। অথচ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পাশাপাশি কোচিংও বন্ধের নির্দেশ রয়েছে। গতপরশু শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি এরকম নির্দেশ দেন।

যশোর শহরের শীর্ষ কোচিং সেন্টারগুলো শিশু-কিশোর ও অভিভাবকের ভীড়ে সরগম হয়ে উঠেছে। শনিবার দিনভর সরেজমিনে দেখা যায়, স্টেডিয়ামপাড়ায় পৌর হকার্স মার্কেট সংলগ্ন বহুল আলোচিত আলমাস একাডেমিক কেয়ার, জিলা স্কুলের পশ্চিমপাশে এডুকেয়ার, যশোর হেডপোস্ট এলাকায় ইউসিসি, রেলগেট মুজিব সড়কে পিকাসো, শিল্পকলা একাডেমি সংলগ্ন উজ্জল’স ও কনফিডেন্স কোচিং সেন্টারে শিশু-কিশোর ও অভিভাবকের ঠাসা ভীড়। শ’ শ’ শিক্ষার্থী ও অভিভাবক আসছেন আর যাচ্ছেন। এই আসা-যাওয়া চলে সকাল ৮টা থেকে রাত ৯ টা পর্যন্ত। তারা মানছে না সরকারি বিধিনিষেধ। স্বাস্থ্যবিধি ভেঙেই চালানো হচ্ছে পাঠদান কার্যক্রম। রেড জোন যশোরে এই চিত্রকে ভয়াবহ বলছেন সমাজ সচেতন মহল। তবে কোচিং সেন্টার কর্তৃপক্ষ ও শিক্ষার্থী এবং তাদের অভিভাবকদের মধ্যে করোনা সংক্রমণ নিয়ে তেমন কোনো মাথা-ব্যথা নেই।

এরবাইরে সাইফুরস, ওরাকল, সৃজনশীল, উন্মেষ-উদ্ভাস, বিসিএস পরিক্রমা, ফ্রি ডক্টরস, ডেল্টা, বস স্পোকেন, প্রাইমেট, ওমেকা, সুপ্রিমসহ অর্ধশতাধিক কোচিং সেন্টারে একই চিত্র বিরাজ করছে। এসব ব্যক্তি মালিকাধীন প্রতিষ্ঠানে গিয়ে যায় তারা প্রকাশ্যে ক্লাস ও পরীক্ষা নিচ্ছেন। প্রাথমকি ও মাধ্যমিক শিক্ষার্থীদের বাইরে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির জন্য অনেক তরুণ-তরুণীকে কোচিংয়ে ছুটতে দেখা গেছে ।

করোনা সংক্রমণে রেড জোনের তালিকায় রয়েছে যশোরে। স্কুল-কলেজ বন্ধ রয়েছে কিন্তু থেমে নেই কোচিং ক্লাস- প্রশ্নের জবাবে আলমাস একাডেমিক কেয়ারের পরিচালক আলমাস উদ্দিন বলেন, আজ পরীক্ষা ছিল, তাই খোলা রয়েছে। তাছাড়া সরকারি বিধিনিষেধের বিষয়টি জানা ছিল না। আজই জানলাম শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও কোচিং সেন্টার বন্ধের নির্দেশ দেয়া হয়েছে।

উজ্জল’স কোচিং সেন্টারের পরিচালক উজ্জল ঘোষ জানান, তাদের কোচিং চলে বছরে ৩ মাস। গত দুই বছর লোকসান গুণতে হয়েছে। এবারও লোকসান গুণতে হবে। তিনি বলেন, সরকারি আইনের প্রতি আমাদের শ্রদ্ধা রয়েছে। বেশ কয়েকটি কোচিং সেন্টারের পরিচালক জানান, প্রশাসন কিছুই জানায়নি। তাই কোচিং কার্যক্রম বন্ধ করিনি।

যশোর জেলা শিক্ষা কর্মকর্ত একেএম গোলাম আযম জানান, দেশে এখন পর্যন্ত কোচিং বন্ধ রাখার আইন পাস হয়নি। যখন যে নির্দেশ সরকার দিয়েছে তা মৌখিক। তিনি বলেন, তবু পরির্দশনে যাবো। কোচিং বন্ধ রাখার অনুরোধ জানাবো।

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) মনোয়ার হোসেন বলেন, যখন পদক্ষেপ নেয়ার তখন নেবো।