যশোরে শিশু চুরির ঘটনায় মমতাজ পারভিনকে ফাসানো ও মুক্তির দাবিতে সংবাদ সন্মেলন

0
310

নিজস্ব প্রতিবেদক,যশোর: যশোর জেনারেল হাসপাতাল থেকে শিশু চুরির দায় এড়াতে পুলিশ ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ মমতাজ পারভীন নামে এক সমাজকর্মীকে ফাঁসানোর চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ করেছে তার পরিবার। শনিবার দুপুরে প্রেসক্লাব যশোরে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলন থেকে এমন দাবি করেন মমতাজ পারভীনের মেয়ে সাবরিন সুলতানা প্রত্যাশা।

লিখিত বক্তব্যে প্রত্যাশা বলেন, ‘আমার বাবা গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়ায় গত ৮ জুলাই তাকে যশোর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরদিন চিকিৎসকের পরামর্শে আল্ট্রাসনো করাতে বাবাকে নিয়ে আমার মা হাসপাতালের নিচতলায় আসেন। এর আগে একটি বেসরকারি ক্লিনিক থেকে রক্ত ও প্রস্রাব পরীক্ষা করান। আল্ট্রাসনো রুমের সামনে থেকে বাইরে চিৎকার শুনে আমার মা বেরিয়ে এসে জানতে পারেন একটি শিশু চুরি হয়েছে।

এসময় তিনি ভুক্তভোগীদের আশেপাশে খোঁজখবর নেওয়ার পরামর্শ দেন। এজন্য অপরিচিত এক ব্যক্তি নিজেকে দুদক কর্মকর্তা দাবি করে আমার মাকে শিশু চুরির সঙ্গে জড়িত বলে সন্দেহ করেন। তিনি পরে আমার মাকে পুলিশের কাছে দিয়ে দেন। কিন্তু বাস্তবতা হচ্ছে আমার মা ওই লেবার ওয়ার্ডে একবারও যাননি।’

সংবাদ সম্মেলনে মমতাজ পারভীনের ছেলে মেহেদী হাসান, মতিয়ার রহমান, এনামুল হক প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে ছেলে চুরি হওয়া মায়ের উদ্বৃতি দিয়ে প্রত্যাশা বলেন, ‘বোরকা পরা এক মহিলা ছেলেটি চুরি করেছে। আমার মা মমতাজ পারভীন ওই দিন হাসপাতালে বোরকা পরে যাননি।’

তিনি আরো বলেন, ‘‘আমার মা মমতাজ পারভীন ‘শুকতারা নারী কল্যাণ সংস্থা’র নির্বাহী পরিচালক। এই সংস্থার মাধ্যমে ২০ বছর ধরে সমাজের নারী ও শিশুদের উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছেন তিনি। একই সাথে তিনি ২৭ বছর ধরে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে যুক্ত।

বর্তমানে তিনি জেলা মহিলা আওয়ামী লীগের সমাজকল্যাণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। মমতাজ বেগমের বড় ভাই সপরিবারে ওমান প্রবাসী। একমাত্র মেয়ে সাবরিন সুলতানা প্রত্যাশা ঢাকার একটি সংস্থার কান্ট্রি ডিরেক্টর অফিসে কর্মরত। মমতাজের ছোট ছেলে বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ছেন। আর মমতাজের স্বামী সাখাওয়াৎ হোসেন সাবেক সরকারি কর্মকর্তা।’

সংবাদ সম্মেলন থেকে শিশু চুরির ‘মূল হোতাদের’ খুঁজে বের করা এবং মমতাজ পারভীনের মুক্তি দাবি করা হয়।

উল্লেখ্য- গত ৯ জুলাই যশোর জেনারেল হাসপাতাল থেকে একদিন বয়সী একটি শিশু চুরি হয়। ওই ঘটনার পর স্থানীয় জনতা সন্দেহবশত মমতাজ পারভীনকে পুলিশে দেন। পরেপুলিশ তাকে হেফাজততে জিঞ্জাসাবাদের জন্য নেয়।

অন্যদিকে, তোলপাড় সৃষ্টি করা ঘটনাটি তদন্তে পুলিশের একাধীক টিম কাজ শুরু করে। কিন্তু আজ পর্যন্ত শিশুটিকে উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। এমনকী ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের শনাক্ত করা যায়নি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here