যশোরে শেখ হাসিনার জন্মদিনের অনুষ্ঠানে আ’লীগের হাতাহাতি- হট্টগোল

0
41
Exif_JPEG_420

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরে শেখ হাসিনার জন্মদিনের অনুষ্ঠানে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের মধ্যে হাতাহাতি ও হট্টগোলের ঘটনা ঘটেছে। বুধবার দুপুরে জেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে এই ঘটনাটি ঘটে। প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছে, সিনিয়র নেতাদের চেয়ারে বসানোকে কেন্দ্র করে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর আওয়ামী লীগের সমর্থকদের মধ্যে এই হাতাহাতি ও হট্টগোল ঘটনাটি ঘটে। তবে এই ঘটনায় কেউ আহত না হলেও দলীয় কার্যালয়ে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে।
সংশ্রিষ্ঠ সূত্রে জানাগেছে ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৬তম জন্মদিন উপলক্ষে বুধবার দুপুরে শহরের গাড়ি খানাস্থ জেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে আলোচনা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করে জেলা আওয়ামী লীগ। অনুষ্ঠান শুরুর আগে উপস্থিত হন পৌর আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ। একপর্যায়ে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা শহিদুল ইসলাম মিলনের নেতৃত্বে একটি মিছিল নিয়ে তার সমর্থকরা দলীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠান টেবিলে পাশে আসে। এর পর সিনিয়র-জুনিয়র নেতাদের আগে বসা নিয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন ও পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম মাহমুদ হাসান বিপুর মধ্যে একে অপের বিবাদে জড়ান। এক পর্যায়ে জেলার সভাপতির সমর্থক ও পৌর আওয়ামী লীগের সমর্থকদের মধ্যে হাতাহাতি ও হট্টগোলের ঘটনা ঘটে। পরে সাংবাদিকরা ছবি তোলা ও ভিডিও করতে থাকলে নিজেরাই নিবৃত্ত হয়ে যায়।
অনুষ্ঠানে উপস্থিত নাম প্রকাশে জেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র দুই নেতা জানান, মিছিল সহকারে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন দলীয় কার্যালয়ে প্রবেশ করে তার সংরক্ষিত সভাপতির চেয়াটিতে তিনি বসেন। একই সাথে তার তিন চেয়ার পরেই সভাপতির ছেলে জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য সামির ইসলাম পিয়াস, অধ্যাপক মোয়াজ্জেম হোসেন, মৎস্য সমিতির নেতা ফিরোজ হোসেন সিনিয়র নেতাদের চেয়ারগুলো দখল করে নেন। এসময় জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম আফজাল হোসেন, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক অধ্যক্ষ হারুনুর রশিদ, আইন বিষয়ক সম্পাদক আব্দুল কাদীরসহ অনেক সিনিয়র নেতারা চেয়ার না পেয়ে দাঁড়িয়ে ও পিছনের সারিতে বসেন। এক পর্যায়ে পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম মাহমুদ হাসান বিপু সিনিয়র নেতাদের বসার সুযোগ করে দিতে জুনিয়র সদস্যদের আহ্বান জানালে উত্তেজিত হয়ে যান জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলন। এর পর একে অপের বিবাদে জড়ান। এক পর্যায়ে জেলার সভাপতির সমর্থক ও পৌর আওয়ামী লীগের সমর্থকদের মধ্যে হাতাহাতি ও হট্টগোলের ঘটনা ঘটে। এ সময়ে বারবার শহিদুল ইসলাম মিলন পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বিপুকে মারতে যান। মাস কয়েক আগের পুলিশি নির্যাতনের ঘটনা টেনে এনে বিপুকে উদ্দেশ্য করে সভাপতি মিলন বলেন, ‘পুলিশ দিয়ে তোকে পিটায়ে হয়নি; মার খেয়েও সব ভুলে গেছিস। আরো পিটানোর দরকার তোর! এসময় সভাপতির কিছু উৎশৃঙ্খল ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরাও ত্যাড়ে আসে পৌর আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের মারতে। অনুষ্ঠানে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা কোতয়ালী মডেল থানার এস আই সফিক সাংবাদিকের জানান, অনুষ্ঠানে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের মধ্যে কিছুটা উত্তেজনা সৃষ্টি হয়েছিলো। পরে দুপক্ষের মধ্যেই পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়। এই বিষয়ে পৌর আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক এস এম মাহমুদ হাসান বিপু কোন মন্তব্য করতে রাজি হয়নি। আর এই বিষয়ে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা শহিদুল ইসলাম মিলনের কাছে বক্তব্য চাইলে তিনি বলেন, ‘হাতাহাতি নয়; আপনারা লিখবেন মারামারি করেছি। এদিকে, হাতাহাতি ও হট্টগোলের ঘটনার পরে অনুষ্ঠান শুরুর পৌনে এক ঘন্টা পরে অনুষ্ঠানে যোগ দেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহীন চাকলাদার এমপি। এর পর জেলা আওয়ামী লীগের সকল স্তরের নেতৃবৃন্দদের সাথে নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ৭৬তম জন্মদিনে উপলক্ষে দোয়া ও কেক কাটা সম্পন্ন হয়।
প্রসঙ্গত, দীর্ঘদিন ধরে যশোর জেলা আওয়ামী লীগ দুই গ্রুফে বিভক্ত। একটি অংশ নেতৃত্ব দেন যশোর-৩ আসনের সংসদ সদস্য কাজী নাবিল আহেমদ ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা শহিদুল ইসলাম মিলন। অন্যটি যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহীন চাকলাদার এমপি। পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এস এম মাহমুদ হাসান বিপু শাহীন চাকলাদার এমপির অনুসারি।