যশোরে সাদিক আসগর-শহিদুল ইসলামকে বিশেষ সম্মাননা

0
53

নিজস্ব প্রতিবেদক : প্রথম আলোর ২৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে যশোরে প্রীতিসম্মিলনী অনুষ্ঠিত হয়েছে। সোমবার বিকেল চারটার দিকে যশোর টাউন হল ময়দানে রওশন আলী স্মৃতি মঞ্চে এই প্রীতিসম্মিলনীর আয়োজন করা হয়। এতে দুইজনকে বিশেষ সম্মাননা প্রদান করা হয়েছে। তারা হলেন-যশোরের ৪৫টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও ৯১টি ইউনিয়ন পরিষদ চত্বর, নদীর পাড়, রাস্তার ধারে পাঁচ হাজারের বেশি বট, বকুল, জামসহ বিভিন্ন ফলদ ও বনজ বৃক্ষ লাগিয়েছেন সাদিক আসগর। আর শুধু রিকশা ও ভ্যান চালিয়ে এতিম, গরিব ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের শিক্ষা উপকরণ দেন শহিদুল ইসলাম। গত ১৪ বছরে তিনি ৫০টি প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে এবং পাঁচটি কলেজের পাঁচ হাজারেও বেশি শিক্ষার্থীকে শিক্ষা উপকরণ দিয়েছেন। যশোরের প্রীতিসম্মিলনীতে সাদিক আসগর এবং শহিদুল ইসলামকে বিশেষ সম্মাননা দেওয়া হয়। সাদিক আসগর অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি থাকায় তাঁর পক্ষে ছেলে কুতুব উদ্দীন অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে ক্রেস্ট গ্রহণ করেন।
শহিদুল ইসলাম বলেন, ‘আমাদের জীবনের আলো জ্বালানোর দায়িত্ব নিয়েছে প্রথম আলো। আজ আমি আমার কাজে আরও উৎসাহিত হয়েছি।’
অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন যশোরের জেলা প্রশাসক, মো. তমিজুল ইসলাম খান যশোর এম এম কলেজের বাংলা বিভাগের সাবেক অধ্যাপক মুস্তাফিজুর রহমান, ডা.আব্দুর রাজ্জাক মিউনিসিপ্যাল কলেজর অধ্যক্ষ জে এম ইকবাল হোসেন, প্রেসক্লাব যশোরের সাধারণ সম্পাদক এসএম তৌহিদুর রহমান, জাতীয় রবীন্দ্র সংগীত সম্মিলন পরিষদ যশোরের সভাপতি শ্রাবণী সুর, যশোর শিল্পকলা একাডেমির সাধারণ সম্পাদক মাহমুদ হাসান বুলু, প্রথম আলোর যশোর প্রতিনিধি মনিরুল ইসলাম ও মাসুদ আলম, সুরধুনী সংগীত নিকেতনের সভাপতি হারুণ অর রশিদ, তির্যক যশোরের সাধারণ সম্পাদক দীপংকর দাস রতন, যশোর বন্ধুসভার সভাপতি নাসরিন শিরিন প্রমুখ। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালন করেন যশোর বন্ধুসভার সহসভাপতি মুরাদ হোসেন।
অনুষ্ঠানটি শুরু হয় গাছের পাতা দিয়ে বাঁশি বাজানোর মধ্য দিয়ে। অনুষ্ঠানে বাঁশি বাজান যশোরের মনিরামপুর সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হায়দার আলী। অনুষ্ঠানে কবিতা আবৃত্তি করেন জেলা শিশু বিষয়ক কর্মকর্তা সাধন কুমার দাস। এ ছাড়া সংগীত পরিবেশন করেন সৌমেন্দ্র গোস্বামী ও জিএম সালমান মোস্তফা।