যশোরে স্কুল শিক্ষার্থীকে অপহরণের অভিযোগে মামলা গ্রেফতার-১

0
328

বিশেষ প্রতিনিধি : যশোরে ৭ম শ্রেনীর শিক্ষার্থীকে স্কুলে যাওয়ার সময় চিহ্নিত সন্ত্রাসীরা জোর পূর্বক অপহরণের অভিযোগে কোতয়ালি মডেল থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। সোমবার রাতে অপহৃতা শিক্ষার্থীর পিতা যশোর শহরের ৫৮৫ কে/১ শহীদ মশিউর রহমান সড়ক (পালবাড়ী পাওয়ার হাউজ এর পিছনে) মৃত আকবর আলীর ছেলে আলী মনির। আসামী করেছে সদর উপজেলার চুড়ামনকাটি ইউনিয়নের গোবিলা গ্রামের প্রিন্স গাজীর ছেলে আহাদ আলী,চৌগাছা উপজেলার সৈয়দপুর গ্রামের মৃত বদর উদ্দিন সরদারের ছেলে আরশেদ আলী, সদর উপজেলার গোবিলা গ্রামের মৃত আইজউদ্দিন গাজীর ছেলে প্রিন্স গাজী ও তার স্ত্রী মোছাঃ তহমিনা বেগমসহ অজ্ঞাতনামা ৩/৪জন। পুলিশ অপহরনের সাথে জড়িত এজাহার নামীয় আসামী আরশেদ আলীকে গ্রেফতার করে মঙ্গলবার আদালতে সোপর্দ করেছে।
আলী মনির বাদি হয়ে সোমবার রাতে কোতয়ালি মডেল থানায় দায়েরকৃত এজাহারে বলেছেন, তার মেয়ে মোছাঃ সিনথিয়া মেহেরীন মৃদু (১৩) শহরতলী পালবাড়ী এফোর্ট স্কুল এন্ড কলেজের ৭ম শ্রেনীতে লেখাপড়া করে। আসামী আহাদ আলী এক সময় রাজ মিস্ত্রীর কাজ করে। আলী মনিরের বাড়ির আশে পাশে কাজ করার সুবাদে তার মেয়েকে স্কুলে আসা যাওয়ার প্রাক্কালে কু- প্রস্তাবসহ উত্যক্ত করতো। সিনথিয়া বাড়িতে বিষয়টি জানালে আহাদ আলী ও তার পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের জানায়। এতে আহাদ আলী আরো ক্ষিপ্ত হয়ে সিনথিয়াকে অপহরণের সুযোগ খুঁজতে থাকে। গত রোববার সকালে সিনথিয়া মেহেরীন মৃদু বাড়ি হতে স্কুলের উদ্দেশ্যে বের হয়। পালবাড়ী পাওয়ার হাউজের সামনে পৌছালে উক্ত আহাদ আলীসহ চারজন ও অজ্ঞাতনামা আরো ২জন সিনথিয়া মেহেরীন মৃদুকে ফুসলিয়ে একটি ইজি বাইকে তুলে অপহরণ করে নিয়ে যায়। পরবর্তীতে সিনথিয়া মেহেরীন মৃদুকে আহাদ আলী তার মামা আরশেদ আলীর বাড়িতে নিয়ে যায়। সেখান থেকে সরিয়ে অন্যত্র গোপন স্থানে নিয়ে যায়। পুলিশ আহাদ আলীর মামা আরশেদ আলীকে গ্রেফতার করলেও সিনথিয়া মেহেরীন মৃদুকে উদ্ধার করতে পারেনি।