যশোরে স্বাস্থ্যখাতের সক্ষমতা বৃদ্ধি: বর্তমান অবস্থা চ্যালেঞ্জ ও উত্তরণের উপায় শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত

0
73

‘চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করলে সক্ষমতা বাড়ে,করোনা পরিস্থিতি সে শিক্ষা দিয়েছে’

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরে “স্বাস্থ্যখাতের সক্ষমতা বৃদ্ধি: বর্তমান অবস্থা, চ্যালেঞ্জ ও উত্তরণের উপায়” শীর্ষক বহুমাত্রিক অংশীজনদের নিয়ে সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকেলে শহরের একটি অভিজাত হোটেলে বাংলাদেশ এনজিও’স নেটওয়ার্ক ফর রেডিও এন্ড কমিউনিকেশনের (বিএনএনআরসি) উদ্যোগে ও দি এশিয়া ফাউন্ডেশনের সহায়তায় এ সেমিনারের আয়োজন করা হয়। এতে নাগরিক সমাজ সংস্থার প্রতিনিধি, সরকারী কর্মকর্তা, দুর্নীতি দমন কমিশনের প্রতিনিধি,সাংবাদিক-শিক্ষক, বিভিন্ন পেশা ও জনপ্রতিনিধিবৃন্দসহ ৪০জন অংশগ্রহণকারী উপস্থিত ছিলেন।
আইডিইবি’র প্রাক্তন সভাপতি এমআর খায়রুল উমামের সভাপতিত্বে সেমিনারে প্রধান অতিথি ছিলেন যশোর জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খান, বিশেষ অতিথি সিভিল সার্জন ডা. শেখ আবু শাহিন, সম্মানিত অতিথি যশোর সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম মুনীম লিংকন এবং ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের সুপারিনটেনডেন্ট ডা. মো. আখতারুজ্জামান। সেমিনারে মূলপ্রবন্ধ উপস্থাপন করেন দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকার যশোর অফিসের স্টাফ রিপোর্টার ফারাজী আহমেদ সাঈদ বুলবুল। শুরুতে সেমিনারের লক্ষ্য, উদ্দেশ্য নিয়ে আলোচনা করেন বিএনএনআরসি’র কর্মসূচি সমন্বয়কারী হীরেন পন্ডিত। মুক্ত আলোচনায় অংশগ্রহণকারীবৃন্দ তাদের বিভিন্ন মতামত ও পরামর্শ তুলে ধরেন।

সেমিনারে যশোর জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাধায়ক ডাক্তার মো. আক্তারুজ্জামান বলেন, রোগী ও তার স্বজনদের ব্যবহার ও মানসিকতার পরিবর্তন দরকার, ব্যতিক্রম কখনো উদাহরণ হতে পারে না। একজন ডাক্তারকে শতশত রোগী অ্যাটেন্ড করতে হয় সকলের ব্যবহার এক নয়, এক দুইজন ডাক্তার ও নার্সের খারাপ ব্যবহার সকলকে উপস্থাপন করে না। ২৫০ শয্যা হাসপাতালে দুর্নীতিমুক্ত করার দৃঢ় ঘোষণা দিয়ে তিনি বলেন, সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টার কোনো বিকল্প নেই।

সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম মুনীম লিংকন বলেন, এসডিজি গোল অর্জনে গুণগত স্বাস্থ্যসেবার কোনো বিকল্প নেই। দেশের স্বাস্থ্যসেবার মান ও সেবা ক্রমান্বয়ে উন্নত হচ্ছে। সরকার সুপরিকল্পিতভাবে স্বাস্থ্যসেবার প্রতিটি ক্ষেত্রে বিশেষ উন্নতি সাধন করছে। সর্বশেষ করোনার গণটিকা এ উন্নয়নের অন্যতম প্রধান উদাহরণ। এর মাঝেও অনেক সমস্যা রয়েছে এগুলো সমাধানে স্বাস্থ্য গবেষণা বিষয়ে বিশেষ গুরুত্ব দিতে হবে। পাশাপাশি এ বিষয়ে বাজেট বরাদ্দ করতে হবে। তৃণমূল ও প্রান্তিক পর্যায়ে ডাক্তারদের অবস্থা সুনিশ্চিত করতে হবে। পাশাপাশি বেসরকারি হাসপাতালগুলোকে জবাবদিহিতার মধ্যে আনতে হবে। সমস্যার পাশাপাশি প্রাপ্তি ও সম্ভাবনাগুলো এবং হাসপাতালের ক্ষেত্রেও উন্নয়ন সাংবাদিকতায় সাংবাদিকদের উদ্বুদ্ধ হতে আহবান জানান তিনি।

যশোরের সিভিল সার্জন ডাক্তার আবু শাহীন বলেন, সময়োপযোগী একটি আয়োজন, এমন আয়োজন অব্যাহত থাকলে নিজেদের ভুল ও সমস্যা জানার পাশাপাশি সম্ভবনা ও প্রাপ্তি জানতে পারবেন কর্তৃপক্ষ। সকলের আন্তরিকতার সাথে সাথে ভালো প্রাপ্তি ও কাজে উৎসাহ কামনা করেন তারা। এসডিজি লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। সকলের মানসিকতার পরিবর্তন ঘটছে, করোনা সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টাতে প্রতিহত করতে পেরেছে যশোরবাসী আগামীতে স্বাস্থ্যসেবায় আরও উন্নতি হবে এমন আশা প্রকাশ করেন তিনি।

যশোরের জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খান বলেন, স্বাস্থ্য খাত মানে শুধু ডাক্তার নয়, ওয়ার্ডবয় থেকে ডোম সিভিল সার্জন থেকে আরও উপরস্তর এর সাথে যুক্ত সম্পৃক্ত। একটি প্রতিষ্ঠানের সাথে আরেকটি প্রতিষ্ঠান প্রত্যক্ষ পরোক্ষভাবে যুক্ত। করোনা পরিস্থিতি যেভাবে যশোরে সামাল দেওয়া হয়েছে তা অনেক প্রশংসার দাবিদার। সরকারি হাসপাতালগুলো করোনা পরিস্থিতিতে যে গুনগত মানের সেবা দিয়েছে তা অনেক প্রশংসার দাবিদার। অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়ন বিবেচনায় হাসপাতালের পরিবেশ এখনো চাওয়া অনুপাতে হয়ে ওঠেনি, এ ক্ষেত্রে সকলের দায়িত্ব রয়েছে।
তিনি আরও বলেন, চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করলে সক্ষমতা বাড়ে। করোনা পরিস্থিতি সে শিক্ষা দিয়েছে। সীমিত আয়োজন ও সামর্থ্য নিয়ে যারা কাজ করছেন তাদের ইতিবাচক সমালোচনার পাশাপাশি কাজের প্রশংসা করাও দায়িত্বের মধ্যে পড়ে। এ বিষয়ে সকলকে ঐক্যবদ্ধ থেকে কাজ করতে হবে।