যশোরে হাতেনাতে চার চাঁদাবাজ আটক

0
116

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরে চার চাঁদাবাজকে আটক করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার শহরের মুসলিম একাডেমি স্কুলের সামনে থেকে ডিবি পুলিশ তাদের আটক করে। এসময় তাদের কাছ থেকে চাঁদার ৩০ হাজার টাকা ও ১০০ টাকার ৪টি স্বাক্ষর করা নন জুডিশিয়াল স্ট্যাম্প উদ্ধার করা হয়।

এব্যাপারে মঙ্গলবার রাতে কোতোয়ালী থানায় একটি মামলা করেছেন যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার গদখালী নবীননগর গ্রামের বাসিন্দা বর্তমানে চাঁচড়া মধ্যপাড়ার মৃত শহিদুল্লাহ সরদারের ছেলে তুহিন সরদার। মামলায় ৬ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরো ২/৩ জনকে আসামি করা হয়।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন, যশোরের ঝিকরগাছা উপজেলার পুরোন্দপুর (বিহারীপাড়া) গ্রামের মৃত জামাল উদ্দিনের ছেলে মনিরুল ইসলাম ওরফে মনি, একই এলাকার এনায়েত হোসেনের ছেলে মামুন আহম্মেদ ওরফে সুমন, প্রাইভেটকারের চালক রবিউল ইসলামের ছেলে শরিফুল ইসলাম ও একই উপজেলার কৃষ্ণনগর গ্রামের মৃত আনারউদ্দিনের ছেলে আজিজুর রহমান ওরফে পান্ডু।

আর পলাতক রয়েছেন, ঝিকরগাছা উপজেলার পুরন্দরপুর গ্রামের মৃত জামাল উদ্দিনের ছেলে জাহিদ হাসান ওরফে রনি (৩৮) ও একই উপজেলার বামনালী (চাপাতলা) গ্রামের আব্দুল হক পাটোয়ারির ছেলে রাসেল পাটোয়ারি।

মামলায় তুহিন সরদার বলেন, তিনি যশোরসহ বিভিন্ন এলাকায় কাপড়ের ব্যবসা করেন। ঝিকরগাছা উপজেলার পুরোন্দপুর (বিহারীপাড়া) তার ক্রয়কৃত তিনশতক জমি আছে। ওই জমি ঝিকরগাছা উপজেলার বামনালী ( চাপাতলা) গ্রামের আব্দুল হক পাটোয়ারীর ছেলে রাসেল পাটোয়ারীর কাছে নগদ ১০ লাখ টাকায় বিক্রি করে দেন। ওই জমির পাশে তার বড় ভাই হাবিব সরদারের জমি ক্রয় করার জন্য হুমকি দেয়া হয়। এক পর্যায় গত ২ ফেব্রুয়ারি রাসেল পটোয়ারীসহ তার সহযোগী ঝিকরগাছা পুরোন্দপুর (বিহারীপাড়া) গ্রামের মনিরুল ইসলাম ওরফে মনি, মামুন আহম্মেদ ওরফে সুমন, শরিফুল ইসলাম, জাহিদ হাসান ওরফে রনিসহ অজ্ঞাত ২/৩ জন রাত ১০টায় চাঁচড়া মধ্যপাড়ার বাদি তুহিন সরদারের বাড়িতে আসেন। তাকে জীবননাশের হুমকি দিয়ে ৫ লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন। চাঁদাবাজরা তুহিন সরদারকে জানান, চাঁদার টাকা দিতে না পারলে তার ভাই হাবিব সরদারের এক শতক জমি রাসেল পাটোয়ারীর নামে লিখে দিতে হবে। বাদি প্রতিবাদ করলে আসামিরা ধারালো অস্ত্র দিয়ে তুহিন সরদারকে হত্যার হুমকি দিয়ে চাঁদা হিসেবে ৫০ হাজার টাকা গ্রহণ করেন ও ১০০ টাকার ৪টি নন জুডিসিয়াল স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর করে নেন। বাকি সাড়ে ৪ লাখ টাকা ৭ ফেব্রুয়ারি সকাল ১০টায় দিতে হবে বলে প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে চলে যান। আসামিরা চলে যাওয়ার পর দুইটি মোবাইল নাম্বার থেকে তুহিন সরদারের মোবাইল ফোনে ফোন করে চাঁদার বাকি টাকা চেয়ে হুমকি দেয়া হয়। বাদি বিষয়টি স্থানীয় লোকজনের সাথে আলোচনা করে জেলা ডিবি পুলিশের স্মরণাপন্ন হন। ডিবি পুলিশ সাদা পোষাকে আগে থেকেই মুসলিম একাডেমির সামনে অবস্থান নেয়। মঙ্গলবার দুপুর ১২টার দিকে চাঁদাবাজরা প্রাইভেটকার নিয়ে বাদির কথা মতো মুসলিম একাডেমির সামনে আসেন। তাদের দাবিকৃত চাঁদার বাকি সাড়ে ৪ লাখ টাকা চাইলে তুহিন সরদার ৩০ হাজার টাকা আসামি মনিরুল ইসলাম ওরফে মনির হাতে দেন। এ সময় আসামি মামুন আহেমদ ওরফে সুমন ও শরীফুল ক্ষিপ্ত হয়ে তুহিনকে মারতে উদ্যত্ত হলে ডিবি পুলিশ চার চাঁদাবাজকে গ্রেফতার করে।