যশোরে হারবাল চিকিৎসার আড়ালে সন্ত্রাসী কথিত হাকিমের কবলে এক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী প্রতারিত হওয়ার খবর!

0
574

এম আর রকি : যশোর শহরতলী আরবপুর মোড়স্থ ঢাকা হারবাল মেডিকোর কথিত হাকিম রাজু খানের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী কার্যকলাপসহ রোগীদের সাথে প্রতারণা মূলকভাবে ঔষধ বিক্রি করার অভিযোগ উঠেছে। ভূক্তভোগীরা তার প্রতারণার শিকার হয়ে রোগ নিরাময় গ্যারিন্টি পেয়ে তার প্রতিষ্ঠান থেকে ঔষধ সেবন করে ফল না পাওয়ায় অভিযোগ করতে গেলে পুনরায় ঔষধের দামসহ নিতে ও মারপিটের হুমকী দেয় বলে খবর পাওয়া গেছে। সম্প্রতি যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী তার প্রতারণার শিকার হয়ে ঔষধ বাবদ ৫ হাজার টাকা খুইয়েছে। তিনি উক্ত হাকিমের বিরুদ্ধে কোতয়ালি মডেল থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন।
অভিযোগে জানাগছে, যশোরে বাঘারপাড়া উপজেলার কঠুরাকান্দী গ্রামের বর্তমানে যশোর শহরের খড়কী কবরস্থান রোডের অমরকৃষ্ণ পালের ছেলে যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ^বিদ্যালয়ের ম্যানেজমেন্ট বিভাগের ১ম বর্ষের ছাত্র সুকদেব কামার পাল কোতয়ালি মডেল থানায় দায়েরকৃত অভিযোগে বলেছেন, তিনি টিভিতে বিজ্ঞাপন দেখে ২ মাস পূর্বে যশোর শহরতলী আরবপুর মোড়স্থ ঢাকা হারবাল মেডিকো প্রতিষ্ঠানে গত ২৫ জানুয়ারী যান। উক্ত প্রতিষ্ঠানের কথিত হাকিম রাজু খান কলেজ শিক্ষার্থীকে কি রোগ জানতে চাইলে তিনি জানান,এ্যাজমা,শ^াসকষ্ট,পলিপাস রোগে দীর্ঘদিন ধরে ভুগছে। কথিত হাকিম রাজু শিক্ষার্থী সুকদেব কুমার পালের কথা শুনে বলেন,এই কোর্স সম্পন্ন ও সফলতার ক্ষেত্রে ৫ হাজার টাকা মূল্যের হাকিমের দেওয়া ঔষধ সেবন করতে করতে হবে। উক্ত মূল্যের ঔষধে রোগ নিরাময় না হলে পরবর্তীতে আর টাকা দিতে হবে না। ঔষধ প্রয়োজন হলে তা ফ্রি সরবরাহ করা হবে। তবে কথিত হাকিম রাজু শিক্ষার্থীকে রোগ নিরাময়ের গ্যারান্টি প্রদান করেন। কথিত হাকিম রাজু খানের কথা শুনে শিক্ষার্থী তার শারীরিক ঔষধ থেকে চিরতরে ভাল হতে ওই দিন ৫ হাজার টাকা প্রদাণ করে। টাকা পাওয়ার পর রাজু খান শিক্ষার্থী সুবদেব পালকে তার দেওয়া ঔষধ প্রদান করে। এক সপ্তাহের ঔষধ প্রদান করায় কলেজ শিক্ষার্থী সুকদেব পাল তা শেষ করে ফেলে হাকিমের নিয়ম মোতাবেক। ঔষধ শেষ হলেও শিক্ষার্থীর শারীরে র্দীঘ দিন থাকা রোগের কোন উন্নতি হয়নি। নিরাময় না হওয়ায় ৬ ফেব্রুয়ারী সুকদেব পাল উক্ত কথিত হাকিম রাজু খানের উক্ত প্রতিষ্ঠানে যান। হাকিমকে রোগ নিরাময় হয়নি বলে জানান। হাকিম রাজু খান শিক্ষার্থীর উপর চড়াও হয়ে বলেন ঔষধ প্রদান করা হয়েছে রোগ নিরাময় হওয়ার জন্য। রোগ নিরাময় না হলে আরো এক কোর্স নিতে হবে মূল্য দিয়ে। শিক্ষার্থী কথিত হাকিমের কথায় হতবাক । তিনি হাকিমের প্রথম দিন ঔষধ প্রদানের সময় যা বলা হয়েছিল তা বললে ক্ষেপে যান। উক্ত শিক্ষার্থীকে মারমুখি হয়ে উঠেন। এক পর্যায় ঢাকা হারবাল মেডিকো প্রতিষ্ঠান থেকে বের করে দেয়। উক্ত শিক্ষার্থী এর প্রতিকার চেয়ে ওই দিন কোতয়ালি মডেল থানায় রাজু খানের বিরুদ্ধে হারবাল ব্যবসার আড়ালে প্রতারণার বিষয় নিয়ে অভিযোগ দায়ের করেন। শিক্ষার্থী সুকদেব পালের অভিযোগ পেয়ে কোতয়ালি মডেল থানার এসআই মিজানুর রহমান সম্প্রতি উক্ত ঢাকা হারবাল মেডিকো প্রতিষ্ঠানে যান। সেখানে গিয়ে তিনি রাজু খানের কর্মকান্ড দেখে ও বিভিন্ন সূত্রে মাধ্যমে সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের মাধ্যমে তার কম মূল্যের ঔষধ অধিক দামে বিক্রির পাশাপাশি তিনি গ্রাম গঞ্জের রোগীদের তার চেম্বারে ভিড়িয়ে দুই হাত দিয়ে অবাধে টাকা হাতিয়ে নিয়ে রোগ নিরাময় গ্যারান্টি দিয়ে ঔষধ সেবন করে। তার ঔষধের গুনগত মান নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন ভূক্তভোগী রোগীরা। তিনি ঢাকা হারবাল মেডিকো নামে চটকদারি বিজ্ঞাপন যশোরের সিটি ক্যাবলে দিয়ে গোটা যশোর অঞ্চলের মানুষকে প্রতারণা ফেলে স্বল্প মূল্যের ঔষধ চড়া দামে বিক্রি করছে। তিনি হারবাল ঔষধ অবৈধভাবে নিজে তৈরী করছেন বলে খবর পাওয়া গেছে। তাছাড়া,দেশের হারবাল কোম্পানীর ঔষধ তিনি ক্রয় করে নিজে উক্ত ঔষধ তৈরী করছে বলে রোগীদের কাছে প্রকাশ করেন। পরে রোগীদের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে রোগ নিরাময়ের গ্যারান্টি দিয়ে। ঢাকা হারবাল মেডিকো’র নামে যশোর শহরতলী পালবাড়ী,চাঁচড়া চেকপোষ্ট মোড়,চাঁচড়া ডালমিলসহ যশোরের বিভিন্ন পয়েন্টে গড়ে ওঠা হারবাল প্রতিষ্ঠানের কথিত হাকিম রোগীদের সাথে প্রতারণা করে রোগ নিরাময়ের গ্যারান্টি দিয়ে হাতিয়ে নিচ্ছে মোটা অংকের অর্থ। প্রায় বছর কয়েক যাবত ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানের অভাবে গড়ে ওঠা এসব হারবালের কথিত হাকিম বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। তারা স্বল্প মূল্যের ঔষধ বিক্রি করছে চড়া দামে। তাদের তৈরীকৃত ঔষধ সেবন করে অনেক রোগীরা মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েছে। অনেকে সারা জীবন পঙ্গু হয়ে জীবনযাপন করছে। অবিলম্বে এসব প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহন করতে যশোরের জেলা প্রশাসকসহ সিভিল সার্জনের আশু হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন যশোরের সচেতন নাগরিক সমাজ।