যশোরে ১৭ লাখ টাকা ডাকাতি : ব্যাগ নিয়ে পালিয়ে যাওয়া রাজু ও তার মাকে আটকের গুঞ্জন!

0
318

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরে ব্যবসায়ীর ১৭ লাখ টাকা ডাকাতি মামলার অন্যতম প্রধান আসামি আরাফাত ওরফে রাজুকে আটকের গুঞ্জন উঠেছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা তার মা মেহেরুন্নেছাসহ তাকে আটক করেছে বলে শহরে প্রচার হচ্ছে। এমনকি তার মায়ের কাছ থেকে ছিনিয়ে নেয়া টাকার মধ্যে ৯ লাখ টাকা উদ্ধার হয়েছে এমন সংবাদ শোনা গেলেও এ বিষয়ে পুলিশসহ অন্যান্য বাহিনীর কোনো দায়িত্বশীল কর্মকর্তা কোন মন্তব্য করেননি।

এদিকে এ মামলার আসামি সোহেল শেখ (২৩) কে আটক করেছে র‌্যাব-৬ যশোর ক্যাম্পের সদস্যরা। রোববার বেলা পৌনে ১১টার দিকে নড়াইলের লোহাগড়া উপজেলার কানলা ফেরিঘাট মিনিবাস কাউন্টারের সামনের থেকে তাকে আটক করা হয়েছে বলে র‌্যাবের একটি প্রেসবিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে। সোহেল যশোর শহরের ধর্মতলা এলাকার তৈয়ব আলী ওরফে তবিবর রহমানের ছেলে। সোহেল এই ডাকাতি মামলার অন্যতম আসামি।

গত ২৯ সেপ্টেম্বর দুপুরে শহরের এমকে রোডস্থ জেস টাওয়ারের বিপরীতে ইউসিবিএল ব্যাংকের সামনে ইকবাল হোসেন নামে এক ফল ব্যবসায়ীর ১৭ লাখ টাকা ছিনিয়ে নেয় ৮/৯জনের একটি ডাকাত গ্রুপ। ওই টাকা ছিনিয়ে নেয়ার অগ্রভাগে যে তিনজন ছিলো তার মধ্যে আরাফাত ওরফে রাজু অন্যতম। রাজুকে টাকাভর্তি ব্যাগটি নিয়ে দৌড়ে যেতে দেখা গেছে। সিসি ক্যামেরায় ধারণকরা ফুটেজে তার পালিয়ে যাওয়ার দৃশ্য দেখে এবং এ ঘটনার সাথে জড়িত আটক ৫ জনের স্বীকারোক্তিতে আরাফাতের নাম ও পরিচয় শনাক্ত করে পুলিশ। কিন্তু আরাফাত পলাতক থাকায় তাকে আটক করতে পারেনি পুলিশ। তবে গত শনিবার কোনো এক সময় পুলিশের হাতে আরাফত আটক হয়েছে বলে গুঞ্জন উঠেছে।

একটি সূত্র জানিয়েছে, টাকা ভর্তি ব্যাগ কেড়ে নেয়ার পর আরাফাত তার পূর্ব বারান্দী মোল্লাপাড়া খালপাড় এলাকার বাড়িতে ওঠে এবং ছিনিয়ে নেয়া টাকার মধ্যে ৯ লাখ টাকা তার মায়ের কাছে দিয়ে সে চলে যায় বন্ধু কালুর বাড়িতে। কালু ওই এলাকার শাহজাহানের ছেলে। কালুর বাড়িতে বসে ওই টাকার আরো ভাগবাটোয়ারা হয়। যা কালু ও তার অপর দুই ভাই বিল্লাল ও শুকুর গত শুক্রবার আদালতে ১৬৪ ধারায় সাক্ষী হিসাবে জবানবন্দিতে উল্লেখ করেছে। সন্ত্রাসী আরাফাত ওরফে রাজু ধর্মতলা খ্রীস্টান পাড়ার লিটনের ছেলে। তবে সে তার মা মেহেরুন্নেছার সাথে পূর্ববারান্দীপাড়া খালপাড় এলাকায় বসবাস করে। তার বিরুদ্ধে ছিনতাই, ডাকাতি, মারামারিসহ অনেক অভিযোগ আছে।

মামলার তদন্তকারী কর্মকতা সদর পুলিশ ফাঁড়ির ইনাচার্জ ইন্সপেক্টর তুষার কুমার মন্ডল জানিয়েছেন, নতুন করে কাউকে আটক করা যায়নি। তবে অভিযান চলছে, শিগগির সফল হবো।

১৭ লাখ টাকা ডাকাতির ঘটনায় দায়ের করা মামলায় এ পর্যন্ত ৫জনকে আটক করে পুলিশ। আটক ৫ জন হলো, শহরের পুলিশ লাইন টালিখোলা এলাকার শফি দারোগার বাড়ির ভাড়াটিয় মুনসুর মোাল্লার ছেলে টিপু, বারান্দী মোল্লাপাড়া কবরস্থান পাড়ার রবিউল ইসলামের ছেলে সাইদ ইসলাম শুভ (২৪), ধর্মতলা হ্যাচারিপাড়ার রুহুল আমিনের ছেলে বিল্লাল হোসেন ওরফে ভাগ্নে বিল্লাল (২২), সিটি কলেজ পাড়ার নিজাম উদ্দিনের ছেলে রায়হান (২৮) এবং পূর্ব বারান্দিপাড়ার মৃত মুফতি আলী হোসেনের ছেলে ইমদাদুল হক (২১)। তাদের কাছ থেকে নগদ ২ লাখ ৪৮ হাজার ৫শ’ টাকা, একটি কালো স্কুল ব্যাগ, ২টি চাকু এবং একটি মোটরসাইকেল (যশোর-ল-১৩-২৬৩৩) জব্দ করা হয়েছে। তবে এই ডাকাতির পেছনে যশোর শহরের রাজনৈতিক প্রভাবশালী একটি গ্রুপ আছে বলে পুলিশ সুপার আশরাফ হোসেন সাংবাদিকদের সাছে এক ব্রিফিং এ উল্লেখ করেছিলেন। কিন্তু ওই প্রভাবশালী কাউকে এখনো পর্যন্ত আটক করতে পারেনি পুলিশ।