যশোরে ২৫বছর ধরে অবৈধ ভাবে চলছে হীরা প্লাস্টিক কারখানা দেখার কেউনেই

0
399

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোর শহরতলীর উপশহরে দীর্ঘ ২৫ বছর ধরে অবৈধ ভাবে চলছে হীরা প্লাস্টিক নামে একটি প্লাস্টিক কারখানা। সরকারি জায়গা দখল করে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগ নিয়ে কারখানাটি পরিচালিত হলেও এটি দেখার কেউ নেই। কারখানা স্থাপনের জন্য সংশ্লিষ্ট যে দপ্তর গুলির অনুমতির প্রয়োজন তাও নেওয়া হয়নি। জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষ, বিদ্যুৎ বিভাগ, পরিবেশ অধিদপ্তর, শ্রমঅধিদপ্তর, উপশহর ইউনিয়ন পরিষদ সরকারি এসব দপ্তর গুলির প্রত্যেকেই কারখানা থেকে অবৈধ ভাবে আর্থিক সুযোগ সুবিধা নিচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে সরেজমিন কারখানা ঘুরে জানা যায়, ১৯৯২ সালে বিএনপির শাসনামলে তৎকালীন উপশহর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে অবৈধ ভাবে হীরা প্লাস্টিক কারখানা স্থাপনের অনুমতি দেয়। বর্তমান চেয়ারম্যান এহসানুর রহমান লিটুও সেই ধারাবাহিকতা অব্যাহত রেখেছে। প্রতিমাসে অবৈধ হীরা প্লাস্টিক কারখানা থেকে উপশহর ইউনিয়ন পরিষদকে তিন হাজার টাকা দেয়া হয় বলে অভিযোগ রয়েছে। অথচ জায়গার প্রকৃত মালিক জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষ যশোর। ২০০৭ সালের ২৪ মে জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষের তৎকালীন উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মো. ফয়েজ ভূঞা হীরা প্লাস্টিকের সত্বাধীকারি মো. বারেক মিয়াকে একটি উচ্ছেদ নোটিশ দেয়। নোটিশে উল্লেখ করা হয় আপনি যশোর হাউজিং এস্টেটের ০৫ নং সেক্টরের সরকারি জমি/রাস্তার উপর অবৈধ ভাবে সীমানা প্রাচীর/ ইমারত নির্মান করেছেন। আপনার উক্ত অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ যোগ্য। এমতাবস্থায় আগামী ৭ দিনের মধ্যে অবৈধ স্থাপনা অপসারনের জন্য নির্দেশ প্রদান করা হল। অন্যথায় সরকারি নীতিমালা অনুযায়ি উচ্ছেদ পূর্বক অবৈধ স্থাপনা সমূহ সরকারের অনুকুলে বাজেয়াপ্ত করা হবে। কিন্তু নোটিশ প্রদানের পর কয়েক হাজার সপ্তাহ পার হলেও জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষ অবৈধ প্লাস্টিক কারখানার বিরুদ্ধে আজ পর্যন্ত কোন ব্যবস্থা নিতে পারেননি। এব্যাপারে জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষের বর্তমান উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী দীপক কুমার সরকারের কাছে জানতে চাওয়া হলে বলেন, আমি দায়িত্ব নেওয়ার পরও প্লাস্টিক কারখানাকে একটি নোটিশ দিয়েছি। অথচ নোটিশের কোন কপি দিতে দেখাতে পারেননি দীপক কুমার সরকার।
বিদ্যুৎ বিভাগ-২ এর নির্বাহী প্রকৌশলী শহীদুল হকের কাছে জানতে চাওয়া হয় নতুন বিদ্যুৎ সংযোগ নিতে হলে কি কি কাগজ প্রয়োজন ? তিনি জানান, আমাদের অনলাইনে একটি আবেদন ফরম আছে। ফরমটি পূরন করে জমির দলিল অথবা ভাড়া হলে বৈধ মালিকের চুক্তি পত্র ও আবেদনকারির ভোটার আইডি কার্ড দিয়ে আবেদন জমা দিতে হবে। কিন্তু হীরা প্লাস্টিক কারখানার বিদ্যুৎ সংযোগ নিতে এসব কোন নিয়মই মানা হয়নি। তারপরও অবৈধ কারখানায় ৪৪০ ভোল্টের দুই দুইটি মিটার সংযোগ দেওয়া হয়েছে। আবাসিক এলাকায় কি ভাবে দুইটি বানিজ্যিক মিটার সংযোগ দেওয়া হয়েছে জানতে চাওয়া হলে বিদ্যুতের নির্বাহী প্রকৌশলী শহীদুল হক বলেন বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে অভিযোগ পেলে তদন্ত করে দেখা হবে। নির্বাহী প্রকৌশলী শহীদুল হকের সাথে প্রতিবেদকের কথা শেষ হওয়ার কিছু সময় পর বাংলা লিংকের ০১৯৭২৬৯১২১৪ নম্বর মোবাইল থেকে ফোন আসে। পরিচয় জানতে চাওয়া হলে বলেন, আমি বিদ্যৎ বিভাগের উপ-সহকারি প্রকৌশলী বাবলু চৌধুরি উপশহরের দায়িত্বে আছি। এক্সচেন স্যার আপনার নাম্বারটা দিয়ে কথা বলতে বললেন। অবৈধ সংযোগের ব্যাপারে তার কাছে জানতে চাওয়া হলে বাবলু চৌধুরি বলেন, সংযোগটি অনেক দিন আগের। আমার জানা মতে ইউনিয়ন পরিষদের কাছ থেকে জমি লীজের কাগজ জমা দিয়ে সংযোগ নিয়েছে। জায়গা জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষের আর লীজ নিয়েছে ইউনিয়ন পরিষদের কাছ থেকে। কিভাবে অবৈধ জায়গায় আপনারা সংযোগ দিয়েছেন। সংযোগ প্রদানের আগে জমাদানকৃত কাগজপত্র সঠিক আছে কিনা যাচাই বাছাই করেছেন কি ? একপর্যায়ে ইঞ্জিনিয়ার বাবলু চৌধুরি বলেন, ধরে নেন সংযোগটি অবৈধ ? কিন্তু সংযোগটি আমাদের সময়ে দেয়া হয়নি। অথচ ২৫ বছর ধরে অবৈধ বিদ্যুৎ সংযোগের বিরুদ্ধে কোন ব্যবস্থা নেয়নি বিদ্যুৎ বিভাগ। অভিযোগ রয়েছে বিদ্যুত বিভাগের সংশ্লিস্ট কর্মকর্তা হীরা প্লাস্টিক কারখানার কাছ থেকে নিয়মিত মাসোহারা আদায় করার কারণে দীর্ঘ ২৫ বছরেও অবৈধ সংযোগ বিচ্ছিন্ন করেনি। কারখানার নেই পরিবেশ লাইসেন্স। শুধু নামমাত্র উপশহর ইউনিয়ন পরিষদের একটি ট্রেড লাইসেন্স ব্যবহার করে পরিচালিত হচ্ছে অবৈধ হীরা প্লাস্টিক কারখানা। কারখানার দুই পাশে রয়েছে দুইটি স্কুল। পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারি পরিচালক মোহম্মদ আতাউর রহমানের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, কোন অনুমতি নিয়েছে বলে আমার জানা নেই। আতাউর রহমান ২০১৫ সালের ০৫ মার্চ পরিবেশ অধিদপ্তর যশোর অফিসে যোগদান করেন। তিনি বলেন পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্রের লাইসেন্স ছাড়া কি ভাবে বিদ্যুত বিভাগ বিদ্যুত সংযোগ দিয়েছে ? কোন কারখানায় বিদ্যুত সংযোগ নিতে হলে পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড় পত্র আবেদনের সাথে জমা দিতে হয়। এবিষয়টি হয়তো জানা নেই বিদ্যুত বিভাগের সংশ্লিস্ট কর্মকর্তার।
কারখানা ঘুরে দেখা গেছে অস্বাস্থ্যকর ও ঘিঞ্জি পরিবেশে হীরা প্লাস্টিক কারখানায় শ্রমিকরা কাজ করছে। এখানে শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি দেয়া হয়না বলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক শ্রমিক অভিযোগ করেছে। শিশু শ্রমিক দিয়ে এখানে ভারি কাজ করানো হয়। অথচ শ্রমঅধিদপ্তরের যশোরের উপমহাপরিদর্শক সৌমেন বড়–য়া কিছুই জানেন না। একারখানায় প্লাস্টিকের বিভিন্ন সরঞ্জামের পাশাপাশি তৈরি করা হয় এ্যাসিড। এছাড়া হীরা প্লাস্টিক কারখানায় রাতে একটি রাজনৈতিক দলের সন্ত্রাসী অস্ত্রধারীদের অভয়ারন্যে পরিনত হয় বলে একধিক অভিযোগ রয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here