যশোরে ৪৬টি হারানো মোবাইল ফোন উদ্ধার, খুশি মালিকরা

0
49

নিজস্ব প্রতিবেদক : সাইবার ক্রাইম ইনভেস্টিগেশন সেল গত জুন মাসে যশোর জেলার ৮টি থানায় সাধারণ ডায়েরিভুক্ত ৪৬টি হারানো মোবাইল ফোন উদ্ধার করে প্রকৃত মালিকের কাছে বুঝিয়ে দিয়েছে। ভুলবশত অন্য নাম্বারে চলে যাওয়া ১০ জন ভুক্তভোগীর নগদ-বিকাশের একলাখ ২৮ হাজার ৩শ’ টাকা উদ্ধার করে প্রকৃত মালিকের কাছে বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে। বিভিন্ন থানার জিডি মূলে হ্যাকিংকৃত ৮টি ফেসবুক আইডিও পুনরুদ্ধার করা হয়েছে।

আজ মঙ্গলবার (৫ জুলাই) পুলিশ সুপারের কনফারেন্স হলে এক অনুষ্ঠানে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মুকিত সরকার তাদের তাদের হাতে এসব মোবাইল ফোন ও টাকা তুলে দেন। হারিয়ে ও চুরি যাওয়া ফোনের জন্য করা সাধারণ ডায়েরি সূত্রে এসব মুঠোফোন উদ্ধার করা হয়। দীর্ঘদিন পরে হলেও হারানো মুঠোফোন পেয়ে খুশি মালিকরা।
প্রেস ব্রিফিংয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বলেন, সমাজে অপরাধ দমাতে জনগণের সেবার মান বাড়াতে যশোর পুলিশ গতবছর ২০২১ সালের ১৩ অক্টোবর সাইবার ক্রাইম ইনভেস্টিগেশন সেল গঠন করে। গঠনের পর থেকে সাইবার ক্রাইম সেল এ পর্যন্ত যশোরের বিভিন্ন জায়গা থেকে বিভিন্নভাবে মিসিং হওয়া ২৭৭টি মোবাইল উদ্ধার করে ওই মোবাইলের মালিকদের কাছে হস্তান্তর করেছে।

হারানো মোবাইল ফেরত পাওয়া মৎস্য কর্মকর্তা ওহেদুজ্জামান যশোরের পুলিশকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, আমি হারানো মোবাইল ফেরত পাব, তা কখনও কল্পনাও করিনি।

প্রেস ব্রিফিংয়ে আরও জানানো হয়, জুন মাসে মনিরামপুর, অভয়নগর, কোতয়ালী ও বিকরগাছা থানায় নিখোঁজ ৫ কিশোর-কিশোরীকে উদ্ধারে সহায়তা করা হয়েছে। পর্ণোগ্রাফি নিয়ন্ত্রণ আইনে দুই তরুণের কাছ থেকে ৪টি মোবাইল ফোন উদ্ধার করে জব্দ করা হয়। তারা হলো : সদর উপজেলার রহমতপুর গ্রামের মোশারেফ গাজীর ছেলে আশিক (২৪), জাহাঙ্গীর আলমের ছেলে নাজমুল হাসান (১৯) ও খলিলুর রহমানের ছেলে লিখন (২৪)। তাদের আদালতে সোপর্দ করা হলে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি নিয়ে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়। জব্দকৃত মোবাইল ফোন ফরেনসিক পরীক্ষার জন্য ঢাকায় সাইবার ফরেনসিকে পাঠানো হয়েছে।

ফেসবুকে আপত্তিকর ছবি পোস্ট করায় পুলিশ সাইবার সাপোর্ট ফর উইমেনে অভিযোগকারী এক তরুণীকে আইনগত সহায়তা প্রদান করা হয়েছে।