যশোরে ৬টি বাওড় থেকে মাছ উৎপাদনে লক্ষ্যমাত্রা অর্জন নিয়ে সংশয়

0
897

এম আর রকি : যশোর মৎস্য অধিদপ্তরাধীন রাজস্ব খাতভূক্ত ৬টি বাওড়ের মাছ উৎপাদন ও আয়ের লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত হয়নি বলে খবর পাওয়া গেছে। চলতি অর্থবছরে অর্থাৎ ২০১৭-২০১৮ আর্থিক সালে কার্পজাতীয় মাছ ও রানী মাছ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা এখনও অর্জিত হয়নি। গত অর্থ বছরের ন্যায় এ বছর লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে।
জেলা মৎস্য অধিদপ্তর সূত্রে জানাগেছে, যশোর জেলার অধীনে সরকারি ব্যবস্থাপনায় ৬টি বাওড় রয়েছে। বাওড় গুলি হচ্ছে বলুহর বাওড়,জয়দিয়া,বেড়গোবিন্দপুর ও ডায়নার বিল,মর্জাদ বাওড়, ফতেপুর ও কাঠগড়া বাওড়। জেলার সরকারী এই বাওড় দেখাশুনার জন্য মৎস্যজীবির সংখ্যা রয়েছে ৯৫৪জন। বলুহর বাওড় ২৮২ হেক্টর,জয়দিয়া ১৭৯ হেক্টর,বেড় গোবিন্দপুর বাওড় ২১৭ হেক্টর,ডায়নার বিল ৩১ হেক্টর,মর্জাদ বাওড় ২৫৩ হেক্টর,ফতেপুর বাওড় ৪৭ হেক্টর ও কাঠগড়া বাওড় ১৪৯ হেক্টর জমি নিয়ে এর আয়তন। মৎস্য অদিপ্তর সূত্রে আরো জানাগেছে, চলতি অর্থ বছরে বলুহর বাওড়ে কার্পজাতীয় মাছ উৎপাদনের লক্ষ্য মাত্রা ১৯০ মেট্রিকটন,রানী মাছ ৮০ মেট্রিক টন,জয়দিয়া বাওড়ে কার্পজাতীয় ৮১ মেট্রিকটন,রানী ৩৫ মেট্রিকটন,বেড় গোবিন্দ বাওড়ে কার্পজাতীয় ১শ’ মেট্রিকটন,রানী ৬০ মেট্রিকটন, ডায়ানার বিলে কার্পজাতীয় ২০ মেট্রিকটন,মর্জাদ বাওড়ে কার্পজাতীয় মাছ ৮১ মেট্রিক টন,রানী ৪০ মেট্রিকটন,ফতেপুর বাওড়ে কার্পজাতীয় ২০ মেট্রিকটন,রানী মাছ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ৬ মেট্রিকটন ও কাঠগড়া বাওড়ে কার্পজাতীয় মাছ ২৭ মেট্রিন টন,রানী মাছ ৯মেট্রিকটন সহ সর্বমোট কার্পজাতীয় মাছ ৫১৯ মেট্রিক টন রানী মাছ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ২৩০ মেট্রিকটন টার্গেট করা হয়। কার্পজাতীয় মাছ উৎপাদনের টার্গেট নেওয়া হলে ফতেপুর বাওড় থেকে অর্জিত হয় ৩.৫ মেট্রিক টন উর্পাজিত হয়েছে।এছাড়া, রানী মাছ উৎপাদনের টার্গেট নেওয়া হলেও অর্জিত হয়েছে ১৩৪.৪৭ মেট্রিক টন। এই খাত থেকে অর্জিত আয় হয়েছে ২৬১.৭৩ টাকা। এই অর্থ বছরে কার্পজাতীয় মাছ থেকে আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ও অর্জিত টাকায় শতভাগ লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হলেও অর্জিত হয়েছে ৩৫৯.৩০ ও ৬০ শতাংশে ক্ষেত্রে ২২০.৪২ টাকা অর্জিত হয়। মৎস্য অধিদপ্তর সূত্রে আরো জানাগেছে, হ্যাচারীতে প্রতিবছর লক্ষ্যমাত্রার থেকে ও বেশী উৎপাদন ও আয় হয়। চলতি অর্থবছরে গত নভেম্বর পর্যন্ত হিসাব অনুযায়ী রেনু উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ১৫২৫.০০ কেজি করলেও অর্জিত হয়েছে ১৫৩৬.০৫ কেজি, এই খাতে ব্যয় ১৯.০৭লাখ টাকা ধরা হলেও অর্জিত হয়েছে ১৯.০০ লাখ টাকা। অপর দিকে, আয়ের লক্ষ্যমাত্রা ২৭.৪৫ লাখ টাকা ধরা হলেও অর্জিত হয়েছে ২৭.৫৩২৫ টাকা। সর্বমোট ব্যয় লক্ষ্যমাত্রা ২৮.০০ ধরা হলেও অর্জিত ব্যয় হয়েছে ২৭.৫০ টাকা। সর্বমোট লক্ষ্যমাত্রা আয় টার্গেট ধরা হয় ৪০.৩৭ ধরা হলেও অর্জিত আয় হয়েছে ৩৭.০৫২৫। হ্যাচারীতে প্রতিবছর লক্ষ্যমাত্রার থেকে বেশী উৎপাদন ও আয় হয়।মৎস্য অধিদপ্তর সূত্রে আরো জানাযায়, প্রতি কেজি রানী মাছের বিক্রয় মূল্য ২শ’ টাকা দেখানো হয়েছে। সম্পূর্ন আয় মৎস্যজীবিগন ভোগ করেন।কার্পজাতীয় মাছের ৪০ শতাংশ ভাগ মৎস্যজীবিগন ভোগ করেন। যা তাদের আর্থসামাজিক উন্নয়নে বিশেষ অবদান রাখছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here