যশোরে ৬টি বেসরকারি হাসপাতালে দেওয়া হবে করোনার চিকিৎসা

0
36

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোরে ৬টি বেসরকারি হাসপাতালে দেওয়া হবে করোনার চিকিৎসা। করোনা রোগীর চিকিৎসায় এবার বেসরকারি হাসপাতালে ১০০ শয্যা চালুর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। শনিবার বিকেলে সার্কিট হাউজে জেলা প্রশাসক তমিজুল ইসলাম খানের সভাপতিত্বে জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

যশোর জেনারেল হাসপাতালের করোনারোগীর চাপ সামলাতে হিমশিম খাচ্ছে কর্তৃপক্ষ। রোগীর সেবা নিশ্চিতে বেসরকারি হাসপাতালে শয্যা সম্প্রসারণ করা হল। বেসরকারি হাসপাতালের ১০০ শয্যার মধ্যে রয়েছে- জনতা হাসপাতালে ৩০ শয্যা, ইবনেসিনা হাসপাতালে ২০শয্যা, নোভা মেডিকেলে ১৫ শয্যা, জেনেসিস হাসপাতালে ১৫ শয্যা, যশোর আধুনিক হাসপাতালে ২০ শয্যা ও যশোর কুইন্স হাসপাতালে ২০ শয্যা।

যশোরের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট কাজী সায়েমুজ্জামান বলেন, শনিবার বিকেলে সার্কিট হাউজে জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির সভায় বেসরকারি হাসপাতাল ক্লিনিক মালিক সমিতির নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। তাদের উপস্থিতিতে আলোচনার ভিত্তিতে বেসরকারি হাসপাতাল ক্লিনিকের ১০০ শয্যা করোনা রোগীর চিকিৎসায় ব্যবহারের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

সভায় উপস্থিত ছিলেন যশোরের পুলিশ সুপার প্রলয় কুমার জোয়ারদার, সিভিল সার্জন শেখ আবু শাহীন, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান সাইফুজ্জামান পিকুল, যশোর পৌরসভার মেয়র হায়দার গণী খান পলাশ, যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্ববধায়ক আক্তারুজ্জামান প্রমুখ।
এদিকে, যশোরে গত ২৪ ঘন্টায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে ও উপসর্গ নিয়ে রেকর্ড ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এরমধ্যে আক্রান্ত আটজন এবং উপসর্গ ছিলো ছয়জন। এছাড়াও এই সময়ে নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছে ২৫০ জনের। ৭২০ জনের নমুনা পরীক্ষা করে শনাক্তের এই সংখ্যা পাওয়া গেছে। এ নিয়ে জেলায় মৃতের সংখ্যা ১৬২। জেলায় শনাক্ত হয়েছেন ১৩ হাজার ৩৭ জন, সুস্থ হয়েছেন সাত হাজার ৪৬৯ জন। করোনা রোগীর চাপ আরো বেড়েছে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে। এখানে ১৪০টি শয্যার বিপরীতে রোগী ভর্তি রয়েছেন ২০২ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় এখানে করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছেন ছয়জন।

যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. আরিফ আহমেদ জানিয়েছেন, করোনায় আক্রান্ত হয়ে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ২৪ ঘণ্টায় মারা গেছেন সাতজন। এছাড়া উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু হয়েছে ছয়জনের। যশোর হাসপাতালে করোনা রোগীদের জন্য নির্ধারিত রেডজোনে এখন ভর্তি আছেন ১৩০ জন। এখানে শয্যা সংখ্যা ১১৮। তবে করোনা রোগের উপসর্গ নিয়ে ইয়েলো জোনে ভর্তি রয়েছেন ৭২ জন। এখানে শয্যা সংখ্যা ২২ জন। অর্থাৎ রেড ও ইয়েলো জোনে ১৪০টি শয্যা থাকলেও রোগী ভর্তি রয়েছে ২০২ জন। হাসপাতালের রেডজোনে ২৩ শয্যা বৃদ্ধির প্রক্রিয়া চলছে বলেও তিনি উল্লেখ করেছেন।