যশোরে ৬ শর্তে বাড়িতে কারাভোগের আদেশ

0
110

নিজস্ব প্রতিবেদক : দুই বছরের সশ্রম কারাদন্ড, এক হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও এক মাসের সশ্রম কারাদন্ডে দন্ডিত হয়েও বাড়ি ফিরে গেলেন আলিমুন নেছা। তবে বাড়ি যেয়ে তাকে আদালতের বেধে দেয়া ছয়টি শর্ত অবশ্যই মানতে হবে । রোববার বাড়িতে কারাভোগের আদেশ দিয়েছেন যুগ্ম দায়রা জজ ২য় আদলতের বিচারক শিমুল কুমার বিশ্বাস। সাজাপ্রাপ্ত আলিমুন নেছা চৌগাছা উপজেলার চাঁন্দাপূর্বপাড়া গ্রামের হাবিবুর রহমানের স্ত্রী। সমাজসেবা অধিদপ্তরের প্রবেশন অফিসারের নজরদারিতে থেকে কোন প্রকার অপরাধের সাথে জড়ানো যাবেনা। সর্বত্র শান্তি বজায় রাখতে হবে এবং সকলের সাথে সদাচারণ করিবেন। আদালত অথবা আইন প্রয়োগকারী সংস্থা তাকে কখনো তলব করিলে শাস্তি ভোগ করার জন্য প্রস্তুত হয়ে হাজির হতে হবে। কোন প্রকার মাদক সেবন, বহন, সংরক্ষণ এবং সেবনকারী, বহনকারী ও হেফাজতকারীর সাথে মেলামেশা বা চলাফেরা করতে পারবেন না। আদালত কর্তৃক প্রবেশন অফিসারের তত্বাবধানে থেকে নিজের বাস স্থান ও জীবন ধারণের উপায় সম্পর্কে অবহিত করতে হবে। এই সময়কালীন প্রবেশন অফিসারের লিখিত অনুমতি ছাড়া নিদিষ্ট এলাকার বাইরে যেতে পারবেন না।
আদেশে প্রবেশনের কোন শর্ত ভঙ্গ করলে, প্রবেশন চলাকালিন যে কোন সময় আদালতের এ রায় বাতিল হবে এবং কারাদন্ডে দন্ডিত হয়ে কারাগারে অন্তরীন থাকতে হবে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন যুগ্ম দায়রা জজ ২য় আদালতের সরকারী কৌশলী (এপিপি) ভীমসেন দাস।
আদালত সূত্র জানায়,
২০০৮ সালের ১৬ জুন চৌগাছা উপজেলার চাঁন্দাপূর্বপাড়া গ্রামের নিজ বসত বাড়ি থেকে পাঁচ বোতল ফেনসিডিল সহ আটক হন আলিমুন নেছা।এ ঘটনায় মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তরের উপ পরিদর্শক মোহাম্মদ হান্নান বাদী হয়ে চৌগাছা থানায় মামলা করেন। এ মামলায় আদালত থেকে জামিন পাওয়ার পর দীর্ঘ ১৩ বছরের মধ্যে হাজিরা কামাই দেননি তিনি। এ মামলা ছাড়া তার আর কোন মামলাও নেই। দীর্ঘ স্বাক্ষ্য গ্রহণ শেষে আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগে প্রমানিত হয়। আসামির সার্বিক বিষয় বিবেচনা করে হাইকোর্টের দেয়া নির্দেশনা অনুযায়ী পুর্নবাসনের জন্য শর্ত সাপেক্ষে প্রবেশন অফিসারের নিয়ন্ত্রণে প্রবেশনে মুক্তি প্রদানের সিদ্ধান্ত নেন বিচারক।