যশোর অঞ্চলে সর্বোচ্চ ভ্যাট পরিশোধকারী ১৮টি প্রতিষ্ঠানকে সম্মাননা

0
71

নিজস্ব প্রতিবেদক: “অনলাইনে ভ্যাট দিন দেশ গড়ার অংশ নিন’’ এই স্লোগানে সামনে নিয়ে যশোরে জাতীয় ভ্যাট দিবস ও ভ্যাট সপ্তাহ পালিত হয়েছে। শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১ টায় কাস্টমস এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট যশোরের সম্মেলন কক্ষে ভ্যাট সম্পর্কে জনগণকে আরও সচেতন এবং উদ্বুদ্ধ করার লক্ষে সেমিনার ও সর্ব্বোচ্চ ভ্যাট দাতাদের সম্মাননা প্রদান করা হয়েছে।
অনুষ্ঠানে ২০১৯-২০২০ অর্থবছরে জেলা পর্যায়ে সর্বোচ্চ ভ্যাট পরিশোধকারী ১৮টি প্রতিষ্ঠানকে সম্মাননা ক্রেস্ট, সার্টিফিকেট প্রদান করা হয়। সম্মাননা পাওয়া প্রতিষ্ঠানগুলো হলো, যশোরের জাহাঙ্গীর কেমিক্যাল ওয়ার্কস, মেসার্স ভেনাস অটো, রুরাল রিকনস্ট্রাকশন ফাউন্ডেশন, ফরিদপুরের শাহী কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ, মেসার্স ন্যাশনাল মটরস, গোপালগঞ্জ সদরের মেসার্স আনিস মটরস, গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়ার কোটালীপাড়া কেবল ভিশন, কুষ্টিয়া সদরের এ আর এন্টারপ্রাইজ, ঝিনাইদহ খালিশপুর বি এন্ড টি মিটার লিমিটেড, ঝিনাইদহ সদরের জননী অটোস, নড়াইলের এক্সিয়ন মটরস, মাগুরা সদরের অনন্যা ফুড প্রোডাক্টস, মাগুরা সদরের লাবনি মটরস, মাগুরার সোনার বাংলা হোটেল এন্ড রেস্টুরেন্ট, মেহেরপুর সদরের মেসার্স বিশ্বাস মটরস, রাজবাড়ী সদরের আমিন বাজাজ, চুয়াডাঙ্গা উজিরপুরের এজটেক ফার্মাসিউটিক্যালস লিমিটেড, চুয়াডাঙ্গার মেসার্স সৌদি অটো।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য এবং কাস্টমস, এক্সাইজ ও ভ্যাট আপীলাত ট্রাইব্যুনালের প্রেসিডেন্ট ডঃ সহিদুল ইসলাম। কাস্টমস এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট যশোরের কমিশনার মোয়াজ্জেম হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন কাস্টম হাউজ বেনাপোলের কমিশনার আজিজুর রহমান।
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ডঃ সহিদুল ইসলাম বলেন, দেশের অর্থনীতির সিংহভাগ রাজস্ব আসে ভ্যাট থেকে। ভ্যাট প্রদানের ক্ষেত্রে মানুষ যত সচেতন ও দেশপ্রেমী হবে দেশ তত উন্নত হবে। দেশের উন্নয়নে অক্সিজেন রাজস্ব আহরণে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় রাজস্ব বোর্ড প্রতিষ্ঠা করেছেন। রাজস্ব বোর্ডের আহরিত রাজস্ব দিয়েই আজকের বড় বড় উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়িত হচ্ছে। রাজস্ব আহরণে সুশাসন প্রতিষ্ঠা ও শৃঙ্খলা আনয়ন তথা রাজস্ব আহরণের ধারাবাহিতকতা অব্যহত রাখার স্বার্থে অনলাইন ভিত্তিক ভ্যাট চালু করা হয়েছে। অনলাইন ভিত্তিক ভ্যাট চালু হওয়াতে ইতোমধ্যে ব্যবসায়ীরা উপকার পাচ্ছে। মূল্য সংযোজন কর আইন ও সম্পূরক শুল্ক আইন ২০১২ আইনরে আওতায় করদাতাগণকে উন্নত সেবা প্রদানের গতিকে ত্বরান্বিত করাসহ ব্যবসায় সংখ্যা নির্ধারণ, রির্টাণ সংখ্যা বৃদ্ধির সাথে সম্পৃক্ত যা হয়রানিমুক্ত এবং করদাতা-বান্ধব প্রশাসন প্রতিষ্ঠার ক্ষেত্রে অগ্রণী ভুমিকা রাখবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
অনুষ্ঠানে কাস্টমস এক্সাইজ ও ভ্যাট কমিশনারেট যশোরের আওতাধীন বিভিন্ন সেক্টরের ব্যবসায়ী, উৎপাদনকারী, ভ্যাটদাতা চেম্বারের প্রতিনিধিরা অংশ নেন। আগামী ১৫ ডিসেম্বর পর্যন্ত ওই সপ্তাহ চলবে।