যশোর ইবনে সিনা হাসপাতালে সেই সেফট্রিয়ক্সোন পুশেই রোগীর মৃত্যু

0
141

নিজস্ব প্রতিবেদক : রোগী মৃত্যুকে কেন্দ্র করে আজ রোববার (২৪ জুলাই) সন্ধ্যায় ইবনে সিনা হাসপাতালে হুলুস্থুল কান্ড ঘটেছে। রোগীর স্বজনদের দাবি ভুল ইনজেকশন পুশের পর রোগীর মৃত্যু হয়েছে। এ বিষয়ে কথা বলতে গেলে হাসপাতালের স্টাফরা রোগীর স্বজনদের মারপিট করতে করতে বাইরে বের করে দেন। এরপর কর্তৃপক্ষের সাথে রোগীর স্বজনদের গোলযোগ সৃষ্টি হয়। পরে পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

মৃত মইফুল বেগম (৪৩) সদর উপজেলার বিরামপুর প্রাইমারি স্কুল এলাকার সাজ্জাদ আলীর স্ত্রী।

মৃতের ছেলে হাসান আলী অভিযোগ করে বলেন, উন্নত চিকিৎসার উদ্দেশ্যে রোববার সন্ধ্যার পর মাকে যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল থেকে ইবনেসিনা হাসপাতালে নিয়ে আসি। এখানে এসে জরুরি বিভাগের কর্তব্যরত চিকিৎসক রোগীকে ‘সেফট্রিয়ক্সোন’ ইনজেকশন দেয়ার পরামর্শ দেন। চিকিৎসকের নির্দেশনা পেয়ে সেবিকা রেখা রোগীকে সেফট্রিয়ক্সোন ইনজেকশন পুশ করেন। এর কিছুক্ষণ পরে রোগী অস্থির হয়ে গেলে ডাক্তার ‘কটশন’ ইনজেকশন পুশ করেন। এরপরই রোগী মারা যায়।

তখন চিকিৎসক রোগীকে সদর হাসপাতালে নিতে বলেন। এসময় স্বজন হৈ চৈ শুরু করলে হাসপাতালের স্টাফরা তাদের হাসপাতাল থেকে বের করে দেন। এরপর স্বজনরাও মারমুখি হলে গোলযোগের সৃষ্টি হয়। পরে হাসপাতাল কৃর্তপক্ষ পুলিশকে খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে স্বজনদের শান্ত করে থানায় অভিযোগ দিতে বলেন।

যশোর সদর ফাঁড়ির পুলিশ পরির্দশক শফিক জানান, রোগীর মৃত্যুর ঘটনায় উত্তেজিত স্বজনরা হাসপাতালে হামলা করেছেন। এমন সংবাদ পেয়ে পুলিশের তিনটি টিম ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

ভুল চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যুর অভিযোগ অস্বীকার করে ইবনে সিনা হাসপাতালের উপ পরিচালক ডা. মোহাম্মাদ আলী কপোতাক্ষকে বলেন, ‘ওই রোগীকে স্বজনরা খারাপ অবস্থায় সদর হাসপাতাল থেকে রাতে ইবনে সিনার জরুরি বিভাগে আনেন। এসময় রোগীর মুমূর্ষ অবস্থা হওয়ায় চিকিৎসক ‘লাইভ সেভিং’ ইনজেকশন হিসেবে কটশন পুশ করা হয়। এর এক-দুই মিনিটের মধ্যেই রোগী বেডেই মারা যায়। রোগীর অবস্থা ক্রিটিকাল হওয়ায় ইবনে সিনা থেকে সদর হাসপাতালে নেয়ার কখাও তাদের বলা হয়।’ ইনজেকশন পুশ করার এক-দুই মিনিটের মধ্যেই রোগীর মৃত্যুর পর কিভাবে সদর হাসপাতালে নেয়ার কথা বললেন- এমন প্রশ্নের সদুত্তর তিনি দিতে পারেননি।