যশোর উপশহরে এনজিও কর্মকর্তা ভিকু হত্যা মামলাটি সিআইডিতে যাচ্ছে

0
353

গ্রেফতারকৃত মাসুদুর রহমান ও অমেনা খাতুনের রিমান্ডের শুনানীর দিন আগামীকাল

এম আর রকি : যশোর উপশহর সি ব্লকে এনজিও কর্মকর্তা গোলাম কুদ্দুস ভিকু (৫০) হত্যা মামলাটি যে কোন সময় যশোর ক্রিমিনাল ইনভেস্টিগেশন ডিপার্টমেন্ট (সিআইডি) তদন্তর দায়িত্ব নেবেন। মঙ্গলবার সিআইডি ঢাকা অতিরিক্ত আইজিপি’র দপ্তরে যশোর সিআইডি জোনের পুলিশ পরিদর্শক হারুণ অর রশীদ তাদের তফসীলভূক্ত মামলা হিসেবে প্রতিবেদন প্রেরণ করেছেন। প্রতিবেদনের এক কপি কোতয়ালি মডেল থানার অফিসার ইনচার্জকে দিয়েছেন। সেক্ষেত্রে যে কোন সময় মামলটি হস্তান্তর প্রক্রিয়া শুরু হবে বলে সূত্রগুলো জানিয়েছেন। এই হত্যা মামলায় দু’জন ছাড়া নতুন কেউ আটক হয়নি। তবে এই হত্যাকান্ডে ভাড়াটে খুনী হিসেবে যারা ঘটনা ঘটিয়েছে পুলিশ তাদের খুঁজছে। গ্রেফতারকৃত দু’জনকে পাঁচ দিনের রিমান্ডের আবেদন জানিয়ে আদালতে প্রেরণ করা হয়। তাদের রিমান্ডের শুনানী দিন ধার্য্য হয়নি বলে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কোতয়ালি মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক ( ইন্টেলিজেন্স এন্ড কমিউনিটিং পুলিশ) সৈয়দ আলমগীর হোসেন মঙ্গলবার জানিয়েছেন। মামলার এজাহার নামীয় আসামী যশোর সদর উপজেলার ঘুরুলিয়া গ্রামের অবেদ আলী মোল্যার ছেলে মাসুদুর রহমান ও ঝিনাইদহ জেলার মহেশপুর উপজেলার নস্তি(কামারপাড়া) গ্রামের আলাউদ্দিন বিশ্বাসের মেয়ে মোছাঃ আমেনা খাতুন কারাগারে অবস্থান করছেন। রিমান্ডের রিমান্ডের শুনানীর ব্যাপারে তদন্তকারী কর্মকর্তার কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, রিমান্ডের শুনানীর কাগজ এখনও হাতে পাননি। তবে যে কোন সময় রিমান্ডের শুনানী হতে পারে বলে সূত্রগুলো জানিয়েছেন। গ্রেফতারক এজাহার নামীয় ২ ও ৩ নং আসামী গ্রেফতার হলেও ১ নং আসামী সদর উপজেলার রাজাপুর গ্রামের মৃত আব্দুল মজিদের ছেলে বাহার এখনও ধরা ছোয়ার বাইরে। রোববার রাতে পুলিশের হাতে গ্রেফতার হওয়া মাসুদুর রহমান ও আমেনা খাতুন হত্যাকান্ডের ব্যাপারে গুরুত্ব পূর্ণ তথ্য দিয়েছে তা পুলিশ খতিয়ে দেখছে। আমেনা খাতুন গোলাম কুদ্দুস ভিকুর স্ত্রী হলেও তাদের মধ্যে এখন বিবাহ বিচ্ছেদের মামলা মোকদ্দমা চলছে বলে পুলিশকে জানিয়েছেন। মাসুদুর রহমান প্রত্যাশা সমাজ কল্যাণ সংস্থায় হিসাবরক্ষক পদে চাকুরী করার কথা জানিয়েছেন। এনজিও’র অর্থ আত্মসাতের ঘটনা নিয়ে বেশ কিছুদিন যাবত অফিসের কর্মচারী ও কর্মকর্তার মধ্যে বিরোধ চলে আসছিল। একটি সূত্র জানিয়েছেন, আমেনা খাতুন এই এনজিও’র পূর্বে অন্য একটি এনজিওতে চাকুরী করার সুবাদে ভিকুর সাথে পরিচয় । তার পর তাদের মধ্যে বিয়ে হয়। বিয়ে হওয়ার পর মন মানিল্য দেখা দেয়। পরে ভিকু আবারো বিয়ে করে। যে ঘটনায় আমেনা স্বামী ভিকুর বিরুদ্ধে ঝিনাইদহ কোর্টে মামলা দায়ের করেন। উক্ত মামলা নিয়ে ভিকু আমেনা খাতুনের মধ্যে বিরোধ এবং এনজিও’র অর্থ তছরুপের ঘটনাকে কেন্দ্র করে এই হত্যা পরিকল্পনা ঘটানো হয়েছে বলে সূত্রগুলো দাবি করেছেন। উপশহর এলাকাবাসীরা জানান, গত ২ ডিসেম্বর শনিবার রাতে গোলাম কুদ্দুস ভিকু তার বাড়ির সামনে বোমা ও গুলিতে নিহত হয়েছে ভাড়া করা সন্ত্রাসীদের মাধ্যমে। তার কারণ ভাড়া করা সন্ত্রাসী ছাড়া এ ধরনের হত্যাকান্ডের ঘটনা ঘটানো সম্ভব নয়। সর্বশেষ কোর্ট পুলিশ পরিদর্শক রেজাউল ইসলামের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান,আগামী ৭ ডিসেম্বর বৃহস্পতিবার রিমান্ডের আবেদন শুনানীর দিন ধার্য্য রয়েছেন। আমেনা খাতুন ও মাসুদুর রহমান রিমান্ডে আসলে এই হত্যাকান্ডে কাদেরকে ভাড়া করা হয়েছে ও পলাতক বাহারকে নিয়ে তারা এক যোগে ভিকুকে হত্যার পরিকল্পনা করেছেন তার বেরিয়ে আসারা সম্ভবনা রয়েছেন। গোলাম কুদ্দুস ভিকু যশোর উপশহর সি ব্লকের ৫৬ নং বাসার ইয়াসিন আলীর ছেলে ও এ ব্লকে অবস্থিত প্রত্যাশা সমাজ কল্যাণ সংস্থার নির্বাহী পরিচালক ছিলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here