যশোর উপশহরে এনজিও পরিচালক ভিকু হত্যাকান্ডে রিমান্ডে দু’জন মুখ খুলেছে বাহার ।। এখনও ধরা পড়েনি

0
417

এম আর রকি : যশোর উপশহর সি ব্লকে এনজিও কর্মকর্তা গোলাম কুদ্দুস ভিকু (৫০) হত্যা মামলার এজাহার নামীয় গ্রেফতারকৃত মাসুদুর রহমান ও আমেনা খাতুন রিমান্ডে মুখ খুলেছে। তারা এই হত্যাকান্ডে প্রধান আসামী বাহারের দিকে তীর ছুড়ছে। সে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তার কাছে বলেছেন,নিহত গোলাম কুদ্দুস ভিকুর সাথে তাদের কোন বিরোধ ছিলেন না। বাহারের সাথে অর্থনৈতিক কারণে বিরোধ চরম পর্যায়ে পৌছায়। এমনকি হত্যাকান্ডের ঘটনার পরের দিন থেকে বাহার গা ঢাকা দিয়েছে। বাহার এই হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত রয়েছে বিধায় ভিকুর হত্যাকান্ডের খবর নিশ্চিত হয়ে সে পলাতক জীবন যাপন শুরু করেছে। যশোর সদর উপজেলার রাজাপুর গ্রামের মৃত আব্দুল মজিদের ছেলে বাহার প্রত্যাশা সমাজ কল্যাণ সংস্থায় গুরুত্বপূর্ন দায়িত্ব পালনের সুযোগে অর্থনৈতিক লেনদেন করার সুযোগে সে অর্থ ঘাপলা করায় ভিকুর সাথে তার মতবিরোধ দেখা দেয়। বাহার গ্রেফতার হলে এই হত্যা মামলার কূল কিনারা পুলিশ খুঁজে পাবে বলে সূত্রগুলো দাবি করেছেন। বৃহস্পতিবার রিমান্ড শুনানী শেষে বিজ্ঞ আদালত যশোর সদর উপজেলার ঘুরুলিয়া গ্রামের আবেদ আলী মোল্যার ছেলে মাসুদুর রহামন ও ঝিনাইদহ জেলার মহেশপুর উপজেলার নস্তি ( কামারপাড়া) গ্রামের মৃত আলাউদ্দিনের মাসুদুর রহমানকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা গত ৪ ডিসেম্বর ভিকু হত্যা মামলার এজাহার নামীয় দুই নাম্বার আসামী মাসুদুর রহমান ৩ নং আসামী মোছা আমেনা খাতুনকে গ্রেফতার পূর্বক ৫ দিনের রিমান্ডের আবেদন জানিয়ে আদালতে সোপর্দ করে। বিজ্ঞ আদালতের বিচারক তাদেরকে কারাগারে প্রেরণ করে ৭ ডিসেম্বর শুনানীর দিন ধার্য্য করে। রিমান্ড শুনানী শেষে বৃহস্পতিবার ১ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন। রিমান্ডে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তার সামনে মাসুদুর রহমান ও আমেনা খাতুন মুখ খুলেছেন বাহারের বিরুদ্ধে। তারা বলেছেন,সংস্থার নির্বাহী পরিচালকের সাথে বাহারের অর্থনৈতিক তছরুপ কর্মকান্ডে বিরোধ চরমে পৌছায়। যার কারণে ভিকুকে বাহার এই হত্যার পরিকল্পনা করতে পারে। এখন মামলার এজাহার নামীয় প্রধান আসামী বাহার গ্রেফতার হলে এই হত্যার মোটিভ উদঘাটন সম্ভব। তদন্তকারী কর্মকর্তা জানান,বাহার গ্রেফতার হলে এই হত্যাকান্ডের কারা জড়িত তা বের হবে।এদিকে, রিমান্ডে আসা মাসুদুর রহমান ও আমেনা খাতুন মাঝে মধ্যে জ্ঞান হারিয়ে ফেলার উপক্রম হয়ে দাঁড়ায়। তদন্তকারী কর্মকর্তা পরিস্থিতি দেখে তাদেরকে আদালতে পাঠানোর কথা বললে তারা স্বাভাবিক অবস্থা সৃষ্টি করে করে তদন্তকারী কর্মকর্তা জানান।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here