যশোর উপশহর এলাকাবাসী পল্লী বিদ্যুতের আওতায় যেতে নারাজ

0
282

বিশেষ প্রতিনিধি : যশোর উপশহর এলাকা সমূহ পল্লী বিদ্যুৎতের আওতায় আনার প্রতিবাদ জানিয়েছে ওই এলাকার বাসিন্দারা। উপশহরবাসীর ব্যানারে সোমবার দুপুর ১২টায় প্রেসক্লাব যশোর মিলনায়তনে এক সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে এ দাবি করা হয়। এর আগে ১৯ ফেব্রুয়ারি পল্লী বিদ্যুৎ আগ্রাসন প্রতিরোধ কমিটি’র উদ্যোগে প্রেসক্লাব যশোরে সংবাদ সম্মেলন করেছিলেন শহরতলীর শেখহাটি, নওয়াপাড়াসহ আশপাশের শতাধিক এলাকাবাসী।
প্রেসক্লাব যশোরে সোমবার সংবাদ সম্মেলনে উপশহরবাসীর পক্ষে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন,কবি কাসেদুজ্জামান সেলিম। তিনি লিখিত অভিযোগে বলেন, যশোর উপশহর হাউজিং এষ্টেটের একটি আবাসিক এলাকা। এখানে প্রায় ৩০ হাজার লোকের বসবাস। এখানে স্কুল, কলেজ, মাদরাসা, পলিটেকনিক ইনস্টিটিউট, শিশু হাসপাতাল, উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়, শতাধিক শিল্প-কারখানা, বিএডিসি ও বীজ গ্রেডিংয়ের প্রতিষ্ঠান রয়েছে। শতভাগ শিক্ষার হার সম্পন্ন এই এলাকা ১৯৬৪ সাল থেকে পর্যায়ক্রমে ওয়াপদা, পিডিবি ও ওজোপাডিকোর আওতায় বিদ্যুৎসেবা পেয়ে আসছে। কিন্তু গত ৮ ফেব্রুয়ারি পল্লী বিদ্যুতের একটি পত্রে (স্মারক : ২৭,১২,৪১৪৭,৫২৮,১০,০০৫,১৭,৬৫৫-০৮.০২.১৭) জানতে পারি, আমাদের বিদ্যুৎ সঞ্চালনার আওতা থেকে প্রত্যাহার করে পল্লী বিদ্যুতে অন্তর্ভুক্ত করার সিদ্ধান্ত হয়েছে।
সংবাদ সম্মেলনে আরো বলা হয়, গ্রামাঞ্চলে বিদ্যুৎ সুবিধা পৌঁছে দিতে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি গঠন করা হয়। তিন দশকেরও বেশি সময় ধরে সমিতি কাজ করলেও গ্রামাঞ্চলের অর্ধেক মানুষ এখনো বিদ্যুৎ সুবিধা বঞ্চিত। অথচ, সরকার সেই পল্লী বিদ্যুতকে শহরে বিদ্যুৎসেবা প্রদানকারী সংস্থার বিতরণ লাইন হস্তান্তরের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। যা অযৌক্তিক, গণবিরোধী, সেবা গ্রহিতাদের সঙ্গে প্রতারণার শামিল। সরকারের এ সিদ্ধান্ত সেবা গ্রহিতারা মেনে নিতে প্রস্তুত নন। যে কারণে এ নিয়ে উচ্চ আদালতে রিটও করা হয়েছে। কিন্তু পল্লী বিদ্যুৎ সমিতি তার তোয়াক্কা না করে লাইন দখল নিতে মরিয়া হয়ে উঠেছে।সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, পল্লীবিদ্যুৎ সরবরাহে ব্যাপক অনিয়মসহ লোডশেডিং নিত্যদিনের সমস্যা। এই লাইনের আওতায় এলে তাদের সীমাহীন দুর্ভোগে পড়তে হবে। যার জন্য তারা মানসিকভাবে প্রস্তুত নন। সংবাদ সম্মেলনে আরো বলা হয়, দাবি আদায়ে মামলা পরিচালনার পাশাপাশি নিয়মতান্ত্রিক আন্দোলন ও সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে যোগাযোগ রক্ষা করা হচ্ছে। একইসঙ্গে সরকারকে গণবিরোধী সিদ্ধান্ত থেকে সরে আসার আহ্বান জানানো হয়েছে।সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, উপশহর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান এহসানুর রহমান লিটু, সাবেক চেয়ারম্যান আজগর হোসেন, রেজাউর রহমান বিন্দুসহ এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিরা।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here