যশোর উপশহর পুলিশ ক্যাম্পের থ্রি আইসি ইব্রাহিম খলিলের ওয়্যারলেস খোয়ার ঘটনায় মঙ্গলবার পুলিশ লাইনে ক্লোজড \ দুই কিশোরকে গ্রেফতার অতপর মুক্ত

0
390

নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোর উপশহর পুলিশ ক্যাম্পের থ্রি-আইসি এএসআই ইব্রাহিম খলিলের নামে ইস্যুকৃত ওয়ারলেস সেট খোয়া গিয়েছে। আসামি আটক করতে গিয়ে ওয়্যারলেস সেট খোয়া যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে বলে সূত্রগুলো জানিয়েছেন।
সরকারী ইস্যুকৃত ওয়ারলেস সেট খোয়া যাওয়ার পর তিনি বিষয়টি ধামাচাপা দেওয়ার চেষ্টা চালিয়েছে। ওয়্যারলেস সেট খোয়া যাওয়ার ঘটনায় মঙ্গলবার সকালে এএসআই ইব্রাহিম খলিলকে পুলিশ লাইন্সে ক্লোজ করা হয়েছে। তার ক্লোজ হওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সহকারী পুলিশ সুপার ক-সার্কেল অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নাঈমুর রহমান। এদিকে ওয়্যারলেস সেট খোয়া যাওয়ার পর এএসআই ইব্রাহিম খলিল উপশহর আবাসিক এলাকার বাসিন্দা ১নং সেক্টরের মোজাম্মেল হোসেনের ছেলে রাশেদ ও আব্দুল কাদেরে ছেলে সাদ্দামকে দোষারোপ করে সোমবার রাতে ডেকে নিয়ে গ্রেফতার করে। তবে গ্রেফতারকৃত পরিবারের কাছে গ্রেফতারের বিষয়টি অস্বীকার করেন। এ ঘটনায় উদ্বিগ্ন পরিবারের লোকজন ইব্রাহিম খলিলকে দায়ী করে মঙ্গলবার দুপুরে কিশোরদের সন্ধানে কোতয়ালি মডেল থানায় ছুটে যান। শেষমেশ বিকেলে আটক কিশোরদের পরিবারের জিম্মায় ছেড়ে দেয়া হয়েছে বলে জানা গেছে।
কিশোর দুই পরিবারের লোকজনের অভিযোগ, প্রায় এক মাস আগে উপশহর পুলিশ ক্যাম্পের এএসআই ইব্রাহিম খলিল ১ নম্বর সেক্টর এলাকায় আসামি ধরতে যান। এ সময় তিনি একজন আসামি আটকের পর মোটরসাইকেলে উঠতে গেলে পড়ে যান। বিষয়টি দেখতে পেয়ে সাদ্দাম ও রাশেদ ছুটে গিয়ে এএসআই ইব্রাহিম খলিলকে উঠতে সাহায্য করে। এ ঘটনার পর এএসআই ইব্রাহিম খলিল ক্যাম্পে ফিরে যান। কিন্তু পরে তিনি সাদ্দাম ও রাশেদকে ডেকে তার ওয়্যারলেস সেট হারিয়ে গেছে বলে জানান এবং সন্ধান দিতে বলেন। কিন্তু ওয়্যারলেস সেট সম্পর্কে কিছু জানেনা বলা সত্তে¡ও পুলিশ কর্মকর্তা বারবার তাদের উপর চাপ সৃষ্টি করতে থাকেন। সর্বশেষ গত সোমবার রাত ১০টার দিকে সাদ্দাম ও রাশেদ এলাকায় ব্যাডমিন্টন খেলছিলো। এ সময় এএসআই ইব্রাহিম খলিল মোবাইল ফোনে তাদের ডেকে নিয়ে যান। কিন্তু এরপর থেকে রাশেদ ও সাদ্দামের কোন খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিলোনা। তাদের মোবাইল ফোন সেটও বন্ধ পাওয়া যায়। ফলে পরিবারের লোকজন উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন। পুলিশের বিভিন্ন দফতরে যোগাযোগ করেও তাদের সন্ধান পাওয়া যাচ্ছিলো না। এদিকে সাদ্দাম ও রাশেদের কোন খোঁজ না পাওয়ায় মঙ্গলবার দুপুরে পরিবারের লোকজন কোতয়ালি মডেল থানায় ছুটে আসেন। কিন্তু সাদ্দাম ও রাশেদকে থানায় না পেয়ে পরিবারের লোকজন চরম উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন। স্বজনেরা জানান, তারা ডিবি পুলিশ কার্যালয়ে খোঁজ নিয়েছেন। কিন্তু সেখানেও সাদ্দাম ও রাশেদ ছিলোনা। অপরদিকে বিকেলে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে সাদ্দামের পিতা আব্দুল কাদের জানান, তার ছেলে ও রাশেদকে সন্দেহজনকভাবে ধরে নিয়ে গিয়েছিলো। বিকেলে পুলিশ তাদের ছেড়ে দিয়েছে। সাদ্দাম জানায়, তাদের সদর উপজেলার নরেন্দ্রপুর পুলিশ ক্যাম্পে রাখা হয়েছিলো। অন্যদিকে যোগাযোগ করা হলে সহকারী পুলিশ সুপার নাঈমুর রহমান সাংবাদিকদের জানান, আসামি আটক করতে গিয়ে এএসআই ইব্রাহিম খলিলের ওয়্যারলেস সেট খোয়া গেছে। এ ঘটনায় তাকে ক্লোজ করা হয়েছে। অপরদিকে এএসআই ইব্রাহিম খলিল দাবি করেন, ওয়্যারলেস সেটটি পাওয়া গেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here