যশোর উপশহর বাদশাহ ফয়সাল ইসলামী ইন্সটিটিউট ডিজিটাল পদ্ধতিতে চলছে

0
387

যশোরে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময় সভায় অভিভাবক ও শিক্ষকবৃন্দ
নিজস্ব প্রতিবেদক : যশোর উপশহর বাদশাহ ফয়সাল ইসলামী ইন্সটিটিউট মফঃস্বল শহরে পরিপূর্ন ডিজিটাল স্কুলে রুপান্তরিত হয়ে উঠেছে। শনিবার সকালে বিদ্যালয়ে সাংবাদিকদের মত বিনিময় সভায় ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি ও স্কুলের প্রধান শিক্ষক লিখিত বক্তব্যে একথা বলেন।
লিখিত বক্তব্যে বলা হয়,১৯৮৫ সালে প্রতিষ্ঠার পর থেকে গতানুগতিকভাবেই চলছিল যশোর উপশহরের বাদশাহ ফয়সাল ইসলামি ইন্সটিটিউট। বর্তমানে পরিচালনা কমিটি দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই বদলে যেতে থাকে স্কুলটি। বাইরের কোন সহায়তা ছাড়াই প্রত্যেকটি শ্রেনীকক্ষসহ পুরো স্কুল ক্যাম্পাসে বসানো হয় ৩২টি সিসি ক্যামেরা। শিক্ষার্থী হাজিরার ক্ষেত্রে সনাতন পদ্ধতির পরিবর্তে চালু করা হয় ফিঙ্গার প্রিন্ট সিষ্টেম। প্রতিটি শেনীকক্ষে দেওয়া হয় মাল্টিমিডিয়া সেট। তৈরী করা হয় নিজস্ব ওয়েবসাইট। যার মাধ্যমে অনলাইনেই বেতন ও অন্যান্য ফিসহ যাবতীয় তথ্য সংরক্ষণ করা হয়। পাঠদানের সুবিধার্থে প্রত্যেক শেনীতে রয়েছে সাউন্ড সিষ্টেম,যা নিয়ন্ত্রন করা হয় প্রধান শিক্ষকের কক্ষ থেকে। এই সাউন্ড সিষ্টেমের মাধ্যমে প্রধান শিক্ষক ক্লাস টিচার কিংবা শিক্ষার্থীদের প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিয়ে থাকেন। আবার অবসর সময়ে শিক্ষার্থীদের দেশাত্মবোধক গানও শোনানো হয় ।স্কুলটিতে রয়েছে আধুনিক মানের কম্পিউটার ও সায়েন্স ল্যাব।
বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আছাহাবুল গাজী তার বক্তব্যে বলেন,পুরো ক্যাম্পাসজুড়ে সিটি ক্যামেরা থাকায় স্কুল চত্বর ও সংলগ্ন এলাকায় ইভ টিজিং পুরোপুরি বন্ধ হয়ে গেছে। সিসি ক্যামেরার মাধ্যমে শ্রেণীকক্ষগুলোতে সার্বক্ষনিক নজরদারি করা হচ্ছে। এমনকি শিক্ষকরা ঠিকমতো ক্লাস নিচ্ছেন কিনা তাও পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। সনাতন হাজিরাপদ্ধতির পরিবর্তে শিক্ষক,শিক্ষার্থী,কর্মচারী সবার হাজিরা নেওয়া হচ্ছে ফিঙ্গার প্রিন্টের মাধ্যমে। আবার ক্যাম্পাস থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সময়ও নেওয়া হয় সবার ফিঙ্গার প্রিন্ট। যার কারণে শিক্ষার্থীদের ক্লাস ফাঁকি দেওয়ার প্রবণতা বন্ধ হয়েছে।এছাড়া,স্কুলটির নিজস্ব ওয়েবসাইট রয়েছে, যেখানে প্রত্যেক শিক্ষার্থীর জন্য রয়েছে আলাদা আইডি। এই আইডি সারাজীবন সংরক্ষণ করা হবে। কোন শিক্ষার্থী ৫০ বছর পরেও যদি তার আইডি দিয়ে এই ওয়েবসাইটে ঢোকে তাহলে তার স্কুল জীবনের যাবতীয় তথ্য সে তখনও দেখতে পারবেন। মত বিনিময় সভায় স্কুল ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি মিজানুর রহমান খাঁন বলেন, চীন,জাপানসহ ইউরোপের দেশগুলোতে যেভাবে স্কুল পরিচালনা করা হয়, সেগুলো আমি খুব ভালোভাবে পর্যবেক্ষণ করেছি। যশোর উপশহর বাদশাহ ফয়সাল ইসলামী ইন্সটিটিউটকে আমরা সেভাবে গড়ে তোলার চেষ্টা করছি। স্কুল পরিচালনায় ইতিমধ্যেই সর্বাধুনিক সব প্রযুক্তির ব্যবহার নিশ্চিত করা হয়েছে। আগামীতেও এই ক্ষেত্রে যেসব নতুন নতুন প্রযুক্তি আসবে,সেগুলোও সাথে সাথে এই স্কুলে সংযুক্ত করা হবে। তিনি আরো বলেন, এসব প্রযুক্তি ব্যবহারে স্কুলটির শিক্ষক,কর্মকর্তা,কর্মচারিদের নিয়মিত প্রশিক্ষণও দেওয়া হয়ে থাকে। ইতিমধ্যেই বিভিন্ন স্কুল থেকে আমাদের স্কুল পরিদর্শন করতে আসছেন অনেকে। যশোর শিক্ষাবোর্ড মডেল স্কুলের প্রধান শিক্ষক আমাদের স্কুলের কার্যকমে ভিজিট করে খুবই প্রশংসামূলক মন্তব্য করেছেন। অভিভাবকরাও আমাদের এসব কার্যক্রমে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন। এ সময় তিনি এই স্কুলের বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদানের কথা তুলে ধরেন।#

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here