যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারে ধারণ ক্ষমতার চেয়ে ৪৬০ জন কম বন্দির অবস্থান

0
468

বর্তমানে ১৪৫৯জন বন্দির মধ্যে ১৩৯৫জন পুরুষ ও ৬৪জন মহিলা
এম আর রকি : যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারে ধারণ ক্ষমতার চেয়ে অনেক কম কয়েদী ও হাজতী আসামী রয়েছেন বলে খবর পাওয়া গেছে।
কারাগারের নির্ভরযোগ্য সূত্রগুলো জানিয়েছেন, যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারে বন্দি ধারণ ক্ষমতা ১৯১৯ জন। এর মধ্যে পুরুষ ১৮৭৪ জন ও মহিলা ৪৫ জন। গতকাল বুধবার ২৯ নভেম্বর যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারে ধারণ ক্ষমতার চেয়ে ১৪৫৯ জন বন্দি অবস্থান করছেন। এর মধ্যে পুরুষ বন্দির সংখ্যা ১৩৯৫জন ও মহিলা বন্দির সংখ্যা ৬৪জন। এর মধ্যে হাজতী বন্দির সংখ্যা ৯০৭জন। এর মধ্যে পুরুষ ৮৮০ ও মহিলা ২৭জন। হাজতি বন্দির মধ্যে সাধারণ হাজতি পুরুষ ৬০৭জন মহিলা ২৫জন,দায়রা হাজতি পুরুষ ২৫৮জন মহিলা ২৫জন। ডিভিশন প্রাপ্ত মাত্র ১জন পুরুষ,আরপি (ভারত) নাগরিক ১৪জন। কয়েদী বন্দির সংখ্যা ৫৫২জন। কয়েদি বন্দির মধ্যে সশ্রম কয়েদি পুরুষ ৪০৯ জনের মধ্যে ৩৯৪জন সাধারণ কয়েদী ও ১৫জন জেএমবি সশ্রম কয়েদি ও মহিলা সশ্রম কয়েদির সংখ্যা ২৮জন। মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত পুরুষ কয়েদী রয়েছেন ৭২জন ও মহিলা রয়েছেন ৭জন।
কারাগারের সূত্রগুলো আরো জানিয়েছেন, কয়েদি ও হাজতী আসামীদের মধ্যে যাবজ্জীবন বন্দির সংখ্যা ৩২৪জন, বিডিআর বন্দি ১জন,ডিভিশনপ্রাপ্ত বন্দি ১জন,জেএমবি ১৫,বিদেশী সাজাপ্রাপ্ত (ভারত) ৩জন,বিদেশী বিচারাধীন (ভারত) ৩জন,বিদেশী আরপি (ভারত) ১৪জন, অপরাধী পাগল ৪জন,মানসিক হাজতি ১৯জন , মায়ের সাথে শিশু রয়েছে ৩জন ও যুদ্ধাপরাধীর সংখ্যা ৩জন। বর্তমানে কারাগারে যে সব কয়েদি ও হাজতি বন্দি রয়েছেন তাদেরকে সব সময় পর্যবেক্ষনে রাখা হয়েছেন বলে কারাগারের সিনিয়র জেল সুপার কামাল হোসেন জানিয়েছেন। তিনি আরো জানান, যশোর কেন্দ্রীয় কারাগারকে সিসি ক্যামেরার আওতায় আনা হয়েছে। সর্বক্ষনিকভাবে সিসি ক্যামেরার মাধ্যমে কারাগারে অবস্থানরত বিভিন্ন স্থান সমূহ পরিলক্ষিত করা হচ্ছে। তাছাড়া,বন্দিদের দেখা সাক্ষাতের কক্ষে যাতে কোন মাদকদ্রব্য কিংবা নাশকতা মূলক কর্মকান্ড ঘটানোর জন্য কেউ প্রস্তুত গ্রহন করছেন কিনা তা পরিলক্ষিত করা হচ্ছে সিসি ক্যামেরার মাধ্যমে। তাছাড়া,কারাগারের প্রধান ফটক দিয়ে কারাগারের ভিতরে কে ও কি মালামাল প্রবেশ করানো হচ্ছে কিংবা কারাগারের অফিস, প্রধান ফটকের সম্পূর্ন অবস্থানে দায়িত্বরত কর্মচারীদের কর্তব্য দেখভালসহ কারাগারের বিভিন্ন পয়েন্টে দেখভাল করার জন্য সিসি ক্যামেরার আওতায় আনা হয়েছে। যাতে কারাগারে সব সময় নিরাপত্তার বেষ্টনীর মধ্যে থাকে।অপরাধীদের প্রবেশ ও অবস্থান নিশ্চিত করতে এবং কারাগারের নিরাপত্তার কথা ভেবে এই সিসি ক্যামেরার আওতায় আনা হয়েছে বলে কারাগারের সূত্রগুলো জানিয়েছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here