যশোর কোতয়ালি থানার অফিসার ইনচার্জ পদটি শুন্য

0
264

চেয়ারটি পূরণে পুলিশ পরিদর্শক আজমল হুদার যোগদানের সম্ভাবনা
এম আর রকি : যশোর কোতয়ালি মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ পদের চেয়ারটি শুন্য অবস্থায় পড়ে আছে। উক্ত চেয়ারটি দখলে অনেকের মধ্যে মাগুরা জেলার সদর থানার অফিসার ইনচার্জ আজমল হুদার নাম জোরে সোরে শোনা যাচ্ছে। আগামী কয়েক দিনের মধ্যে তিনি এই চেয়ারটিতে বসবেন। অফিসার ইনচার্জ পদটি শুন্য হওয়ার পর থেকে কোতয়ালি থানায় কর্মরত পুলিশ পরিদর্শক তদন্ত,পুলিশ পরিদর্শক অপারেশন,এসআই,এএসআই ও কনস্টেবলদের মধ্যে কাজের গতি এখন মন্থর গতিতে পরিণত হয়েছে। এ তথ্য বিভিন্ন সূত্রের।
পুলিশের নির্ভরযোগ্য সূত্রগুলো বলেছে, গত ৯ দিন যাবত কোতয়ালি মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ পদটি শুন্য হয়ে পড়ে। কর্তব্যরত অফিসার ইনচার্জ ইলিয়াস হোসেনকে কোতয়ালি মডেল থানা থেকে প্রত্যাহার করার পর থেকে ওই চেয়ারটি দখলে বেশ কয়েকজনের নাম শোনা যায় জোরে সোরে। এর মধ্যে মাগুরা জেলার সদর থানায় কর্মরত অফিসার ইনচার্জ আজমল হুদার নাম রয়েছে সবাইকে ছেড়ে। সূত্রগুলো জানিয়েছেন, আজমল হুদা এই চেয়ারটি পূরনে বেশ কয়েক মাস যাবত চেষ্টা চালিয়ে আসছে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন পুলিশ কর্মকর্তা জানান,কোতয়ালি মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ পদটি পূরণে মোটা অংকের অর্থ ব্যয় করতে হয়। এই অর্থ কোথায় ব্যয় করা হয় সে ব্যাপারে কেউ কোন মন্তব্য করতে রাজী হননি। তবে কেউ কেউ বলেছেন, আগে এই পদটি পূরনে ১০/১৫ লাখ টাকা ব্যয় করলে সম্ভব হতো এখন তা ছাড়িয়ে তিন থেকে চারগুনে দাঁড়িয়েছে। যার ফলে অনেকে এই পদটি পূরণে উদ্যোগ নিলেও মোটা অংকের অর্থের কারণে পিছিয়ে যায়। আবার অনেকে ব্যয়কৃত টাকা তুলতে হিমশিম খাওয়ার আশংকায় ইচ্ছা থাকলেও এই পদটি পূরণে ব্যর্থ হয়। সূত্রটি আরো জানিয়েছেন,মাগুরা জেলায় প্রধান মন্ত্রী শেখ হাসিনা আসার পরের দিন আজমল হুদাকে যশোর কোতয়ালি থানার অফিসার ইনচার্জ হিসেবে ও যশোর কোতয়ালি থানার অফিসার ইনচার্জ থেকে ক্লোজডকৃত ইলিয়াস হোসেনকে মাগুরা জেলার সদর থানায় অফিসার ইনচার্জ হিসেবে দেখা যাবে এটা নিশ্চিত।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here