যশোর কোতয়ালি মডেল থানায় গত ১০ মাসে দেড় হাজার মামলা নথিভূক্ত হলেও তদন্তর নামে অনেক মামলার ভবিষৎ অন্ধকার

0
198

এম আর রকি :কোতয়ালি মডেল থানায় গত ১০ মাসে দেড় সহ¯্রাধিক মামলা নথিভূক্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে মাদক মামলার সংখ্যা প্রায় এক হাজার,বাকী মামলার মধ্যে রয়েছে খুন,ধর্ষন,অপহরণ,ডাকাতি,দস্যুতা,চুরি,সিঁদেল চুরি,দাঙ্গা হামলা,মুক্তিপন আদায়ে অপহরণ,অস্ত্র,বিস্ফোরক,চোরাচালানী, নারী ও শিশু নির্যাতন,প্রতারণাসহ অন্যান্য ধারায়।
কোতয়ালি মডেল থানা সূত্রে জানাগেছে, চলতি বছরের ১ জানুয়ারী থেকে গতপরশু মঙ্গলবার ৩১ অক্টোবর ১০ মাসে এক হাজার ৫শ’ ৭টি মামলা থানায় নথিভূক্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে গত মাস অক্টোবরে ১শ’ ৩২টি মামলা। তার আগের মাসে সেপ্টেম্বর মাসে মামলা দাঁড়ায় দেড় শতাধিক। মামলা গুলির মধ্যে মাদক মামলার ছড়াছড়ি। বাকী মামলার মধ্যে খুন,ডাকাতি,ধর্ষন,অপহরণ,নারী নির্যাতন,প্রতারণাসহ অন্যান্য মামলায় ইতিপূর্বে চার্জশীট দাখিল করেছে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তারা। সূত্রগুলো বলেছে,মাদক মামলায় প্রতিদিন চার্জশীট দাখিল করছেন তদন্তকারী কর্মকর্তাদ্বয়। বাদ বাকী মামলায় তদন্ত কার্যক্রম এগিয়ে চলেছে বলে মামলা সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। থানার সূত্রগুলো বলেছে,কোতয়ালি মডেল থানা ও থানার অন্তর্গত পুলিশ ক্যাম্প,ফাঁড়ী এবং পুলিশ সংশ্লিষ্ট দপ্তর গুলিতে যারা দায়িত্ব পালন করছেন তারাও কোতয়ালি মডেল থানার ন্যায় মাদকদ্রব্য গ্রেফতারের অভিযানে নেমে পড়েছেন। তারাও সপ্তায় মাদকসহ বিক্রেতাকে গ্রেফতার দেখিয়ে থানায় নিয়মিত মামলা রুজু করছে। সূত্রগুলো বলেছেন, পুলিশের দায়ের করা মামলা গুলির চার্জশীট প্রদানে যতটা সহজ হচ্ছে। অন্যান্য ধারায় মামলায় চার্জশীট প্রদানে নানা জটিলতা সৃষ্টি হচ্ছে। যার ফলে অনেক মামলার ভবিষৎ অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। তদন্তকারী কর্মকর্তার বদলী ও সময় মত জখমী সনদ পত্র না পাওয়া আবার সময় মতো ঘটনাস্থলে পরিদর্শনের অভাবে এই অবস্থা সৃষ্টি হয়। তাছাড়া, মাদক,চোরাচালানী,খুন,ডাকাতি,ধর্ষন,দস্যুতা,চুরিসহ অন্যান্য মামলার যারা তদন্তের দায়িত্ব পালন করছেন তাদেরকে মাদক মামলায় চার্জশীট দিতে তেমন সমস্যায় পড়তে হয়না। বাকী মামলাগুলি তদন্তর নামে মন্থর গতির কারনে মাসের পর মাস অতিবাহিত হলেও কোন সূরাহা হচ্ছেনা। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তার সাথে আলাপকালে তারা জানান,মাদক ছাড়া অন্যান্য যে মামলা তদন্তর দায়িত্ব যা পেয়েছেন তা খতিয়ে দেখতে সমস্যার ব্যাপার হয়ে দাঁড়ায়। তাছাড়া, অন্যান্য ধারায় মামলার আসামীও পুলিশের গ্রেফতার হয়না। যার ফলে মামলার আসামীরা বাদীকে মামলা তুলে নেওয়ার হুমকী ধামকী অব্যাহত রাখে। যার ফলে মামলা করেও বিপদে পড়ছে অনেক নিরীহ প্রকৃতির ব্যক্তিরা। রুজুকৃত মামলা গুলির মধ্যে অন্যান্য ধারায় মামলা নিষ্পত্তিতে বড় বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে জখমী সনদপত্র। জখমী সনদপত্র না পেয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা তদন্ত কার্যক্রম শেষ করলেও জখমী সনদ পত্রের অভাবে চার্জশীট দেওয়ার ক্ষেত্রে পড়েন চরম সমস্যায়। সব মিলিয়ে কোতয়ালি মডেল থানায় দায়েরকৃত মামলাগুলির মধ্যে হাসপাতাল গুলো হতে জখমী সনদপত্র না পাওয়ার কারণে অনেক মামলার তদন্ত কার্যক্রম শেষ করেও চার্জশীট দিতে পারছেন না অনেক পুলিশ কর্মকর্তা। এ ব্যাপারে তারা উধ্বর্তন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here