যশোর কোতয়ালি মডেল থানায় ডিউটি অফিসারের কক্ষে হাজত রেজিষ্ট্রারের পাশাপাশি ডিউটি অফিসার নামে একটি ফাইলের কার্যক্রম চালু রয়েছে

0
191

এম আর রকি : যশোর কোতয়ালি মডেল থানায় হাজত রেজিষ্ট্রার ছাড়াও ডিউটি অফিসারের কক্ষে ডিউটি অফিসারের একটি আলাদা ফাইল চালু রয়েছে। এই ফাইল থানার কতিপয় এসআই ও এএসআইদের হাতে গ্রেফতারকৃত নারী পুরুষ মুক্তি বানিজ্যর কাজের জন্য ব্যবহার হচ্ছে বলে খবর পাওয়া গেছে।
থানার নির্ভরযোগ্য সূত্রগুলো জানিয়েছেন,কোতয়ালি মডেল থানার ডিউটি অফিসারের কক্ষে ডিউটি অফিসার নামে একটি ফাইল খোলা হয়েছে। তবে এই ফাইল ডিউটি অফিসারের জন্য নয়। এমনটি জনগণের কোন উপকারে এই ফাইল খোলা হয়নি। এই ফাইল খোলা হয়েছে থানায় কর্মরত কতিপয় অর্থলোভী এসআই ও এএসআইদের জন্য। এই ফাইলের ব্যাপারে বর্তমান অফিসার ইনচার্জ অবগত নন। সূত্রগুলো জানিয়েছেন, এই ফাইল চালু করেছেন সাবেক অফিসার ইনচার্জ মো: ইলিয়াস হোসেনের আমলে। মাস কয়েক পূর্বে হাজত রেজিষ্ট্রারের পাশাপাশি প্রতিদিন কতিপয় এসআই,্এএসআই শহরের বিভিন্ন স্থান থেকে সন্দেহজনক কারনে যে নারী ও পুরুষদের আটক করে থানায় নিয়ে আসে। তাদের নাম সাদা কাগজে লিখে উিউটি অফিসারের টেবিলের বাম পাশের ড্রয়ারে রেখে দিতেন। হাজত রেজিষ্ট্রারে হাজত খানায় রাখা আসামীদের নাম অর্ন্তভূক্ত করা হয়না। আটককৃত ব্যক্তিদের আত্মীয়স্বজন থানায় খোঁজ খবর নিতে আসলে সাদা কাগজ ও চিরকুটে লেখা আসামীদের নাম দেখে ডিউটি অফিসার আটককৃত সংশ্লিষ্ট অফিসারের নাম জানান। নাম জানানোর পর বন্দি ব্যক্তির আত্মীয়স্বজনেরা সংশ্লিষ্ট অফিসারকে আটকের ব্যাপারে জিজ্ঞাসাবাদ করতেই তার কাছে মাদক পাওয়া গেছে বলে অভিযোগ করেন। তাছাড়া,তার বিরুদ্ধে বহুবিধ অভিযোগ রয়েছে বলে ভয়ভীতি দেখাতে থাকে। এমনকি তাকে মাদকসহ বিভিন্ন মামলায় চালান দেওয়ার ভয়ভীতি দেখাতে থাকে। তাকে মাদকসহ বিভিন্ন মামলা থেকে বাঁচাতে হলে মোটা অংকের উৎকোচ দাবি করা হয়। সূত্রটি জানিয়েছেন,আটককৃত ব্যক্তি বুঝে মুক্তি বাবদ অংকের পরিমান চাওয়া হয়। আটককৃত ব্যক্তি বড়লোক পরিবারের সদস্য হলে তাদের কাছে চাওয়া হয় নূন্যতম ৫ লাখ টাকা তার পর দর কষাকষির এক পর্যায় নন্যূতম এক লাখে এসে দাঁড়ায়। নাম প্রকাশ না করার শর্তে থানায় কর্মরত কয়েকজন কর্মকর্তা জানান,কোতয়ালি থানায় দায়িত্ব পালন করে কারা এ ধরনের কর্মকান্ড করছেন তাদের জন্য গোটা পুলিশ জনগনের কাছে চরমভাবে সমালোচিত হচ্ছে। এমন অবস্থা চলতে থাকলে অচিরেই পুলিশ ও জনগনের মধ্যে দূরত্ব বাড়তে বেশী দিন সময় লাগবে না বলে যশোরের বিভিন্ন পেশার মানুষের সাথে আলাপ আলোচনা করতে এটা জানাগেছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here