যশোর চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজ দীর্ঘ ৮ বছর পর নির্বাচনের জট খুলল

0
65

প্রশাসকের মেয়াদ ৪ মাস বাড়ালো মন্ত্রণালয়

নিজস্ব প্রতিবেদক : দীর্ঘ আট বছর পর যশোর চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজের নির্বাচনের জট খুলছে। বর্তমান প্রশাসকের মেয়াদ আরো চার মাস বৃদ্ধি করা হয়েছে। এসময়ের মধ্যে নির্বাচন করার জন্য বলা হয়েছে। ৩ অক্টোবর বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব তরফদার সোহেল রহমান স্বাক্ষরিত এক পত্রে মেয়াদ বৃদ্ধি করার তথ্য জানানো হয়। প্রশাসক পদে দায়িত্ব পালন করছেন যশোরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) রফিকুল হাসান।
পত্রে বলা হয়, যশোর চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজের আবেদনের প্রেক্ষিতে সুষ্ঠু ও নিরেপক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানের জন্য প্রশাসকের মেয়াদ পত্র জারির তারিখ (৩ অক্টোবর) হতে চার মাস শর্তসাপেক্ষে সময় বৃদ্ধি করা হয়েছে। পত্রে সুষ্ঠু ও নিরেপক্ষ নির্বাচন অনুষ্ঠানের শর্ত দিয়ে প্রশাসকের মেয়াদ বাড়ানোর কথা বলা হয়। শর্তে বলা হয়- বাণিজ্য সংগঠনের বিধিমালা ১৯৯৪ এর ১৪ নং বিধি অনুযায়ী ৯০ দিন পূর্বে পরিচালনা পর্ষদ তিন সদস্য বিশিষ্ট নির্বাচন বোর্ড গঠন করবে। একইভাবে তিন সদস্য বিশিষ্ট হবে আপিল বোর্ড।
প্রসঙ্গত, দীর্ঘদিন ধরে যশোর চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রিজের নির্বাচন হচ্ছে না। ২০১১ সালের ১৬ এপ্রিল চেম্বারটির সর্বশেষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ওই নির্বাচনে জেলা বিএনপির তৎকালীন যুগ্ম সম্পাদক মিজানুর রহমান খানের নেতৃত্বাধীন প্যানেল বিজয়ী হয়। ২০১২ সালের ৩ মার্চ মিজানুর রহমান খানের নেতৃত্বাধীন কমিটি দায়িত্ব বুঝে পান। ২০১৪ সালের ২৩ এপ্রিল নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়। তফসিল অনুযায়ী ওই বছরের ১২ জুলাই ভোট গ্রহণ হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সেই নির্বাচন ভেস্তে যায়। ২০১৪ সালের ১ ডিসেম্বর তৎকালীন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) সাবিনা ইয়াসমিন প্রশাসকের দায়িত্ব নেন। তিনি ২০১৭ সালের ৫ জানুয়ারি পর্যন্ত দায়িত্ব পালনকালে দুই দফায় তফসিল ঘোষণা করলেও মামলার কারণে নির্বাচন ভেস্তে যায়। ২০১৫ সালের ১৬ মে সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কামরুল আরিফকে নির্বাচন পরিচালনা কমিটির চেয়ারম্যান করে তফসিল ঘোষণা করা হয়। এ নির্বাচনে আওয়ামী লীগপন্থী ব্যবসায়ীদের একাংশ মামলা করেন। এতে ভোটের আগের দিন নির্বাচন স্থগিত হয়ে যায়। পরবর্তীতে ২০১৫ সালের ৮ অক্টোবর আবারও যুব উন্নয়ন অধিদফতরের উপ-পরিচালক এটিএম গোলাম মাহবুবকে চেয়ারম্যান করে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয়। তফসিল অনুযায়ী ওই বছরের ২৮ ডিসেম্বর নির্বাচন হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু সেই নির্বাচনও হয়নি। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক সাবিনা ইয়াসমিন বদলি হওয়ায় ২০১৭ সালের জানুয়ারি প্রশাসকের দায়িত্ব নেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) আসাদুল হক। তিনিও বদলি হয়ে গেছেন। এখন দায়িত্বে আছেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) রফিকুল হাসান। প্রশাসক হিসেবে তার মেয়াদ বাড়ানো হলো। এবার মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে নির্বাচন করার শর্তে।
যশোরের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো: রফিকুল হাসান জানান, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সব কাজ করা হবে। আমরা তাদের চিঠি পেয়েছি। শিগগিরই নির্বাচনের ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
যশোর চেম্বার অব কমার্সের সাবেক সভাপতি মিজানুর রহমান খান বলেন, তুচ্ছ কারণে দীর্ঘ ৮ বছর চেম্বারে কোন নির্বাচন হয়নি। অবশেষে মন্ত্রণালয় নির্বাচন করার জন্য বলেছে। আমরা চাই চেম্বারে একটি অবাধ ও সুষ্ঠু ভোট গ্রহন ব্যবস্থা। যেখানে ভোটাররা তাদের পছন্দমতো প্রার্থী বেছে নিতে পারে। #