যশোর জিলা স্কুলের ১৮০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে শোভাযাত্রা

0
444

নিজস্ব প্রতিবেদক : মটরসাইকেল শোভাযাত্রার মধ্য দিয়ে শুক্রবার বিকেলে যশোরবাসীকে জানান দিলেন আমরা জিলা স্কুলের ‘নবীণ প্রবীণ ছাত্র। ২২ ও ২৩ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিতব্য আমরা আমাদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ১৮০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ও প্রাক্তন ছাত্র পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান উপলক্ষে মেতেছি প্রাণের উৎসবে। ‘নবীণ প্রবীণ এক প্রাণ’ শ্লোগানে শতাধিক মটরসাইকেলের এ শোভাযাত্রা শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে।

স্কুল প্রাঙ্গণ থেকে বের হয়ে এ প্রচার শোভাযাত্রা মুজিব সড়ক হয়ে দড়াটানা, চৌরাস্তা, রবীন্দ্রনাথ সড়ক (আরএন রোড), পুরাতন খুলনা বাসস্ট্যান্ড, ঢাকা রোড, শেখহাটি মোড়, খাজুরা বাসস্ট্যান্ড, জেল রোড, হাসপাতাল মোড়, দড়াটানা, বকুলতলা হয়ে পুলিশ লাইন, ভাস্কর্য্য মোড় থেকে আরবপুর মোড় হয়ে চাঁচড়া চেকপোষ্ট, রেলগেট, রেল স্টেশন, রেল রোড চারখাম্বার মোড় হয়ে ভোলা ট্যাংক রোড ঘুরে আবার জিলা স্কুল প্রাঙ্গণে এসে শেষ হয়।

শোভাযত্রায় অংশ নেন ১৮০তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ও প্রাক্তন ছাত্র পুনর্মিলনী উদযাপন কমিটির আহবায়ক এজেডএম সালেক, যুগ্ম আহবায়ক শাহীন চৌধুরী, এড. শরিফুল ইসলাম মিলন, ডাক্তার নাছিম রেজা, মাহমুদ রিবন, এড. আলী রেজা, এসএ, তৌহিদুর রহমান, শ্রাবস্তী আহমেদ, আহসান হাবীব পারভেজ, এবিএম ফজলুল করীমসহ উল্লেখযোগ্য সংখ্যক নবীণ ও প্রবীণ শিক্ষার্থীবৃন্দ।

উল্লেখ্য যশোর জিলা স্কুল প্রাক্তন ছাত্র সমিতির উদ্যোগে ‘নবীণ প্রবীণ এক প্রাণ’ এই শ্লোগানে ২০০৫ সালে প্রথম স্কুল প্রাঙ্গণে প্রাক্তন ছাত্রদের পুনর্মিলনীর আয়োজন করা হয়। এরপর ২০১৪ সালে বর্ণাঢ্য নানা আয়োজনে স্কুলের ১৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদযাপন করা হয়।

এজেডএম সালেক জানান, ১৮০ বছর ধরে শিক্ষার আলো ছড়াচ্ছে ইতিহাস-ঐতিহ্য বহনকারী যশোর জিলা স্কুল। ভাষা সৈনিক, পরমাণু বিজ্ঞানী, জ্যোতিষ বিজ্ঞানী, গবেষক, সাহিত্যিক, সাংবাদিক, সম্পাদক, গীতিকার, নাট্যকার, চলচ্চিত্রকার, অভিনেতা, রাজনীতিক, মন্ত্রী, মুক্তিযোদ্ধাসহ এ বিদ্যাপীঠের অসংখ্য নক্ষত্র ছড়িয়ে রয়েছেন দেশ বিদেশে।

ইতিহাস মতে, ১৮৩৮ সালে ৩ ফেব্রুয়ারি ১৩২ জন শিক্ষার্থী নিয়ে যশোর জিলা স্কুলের প্রথম কার্যক্রম শুরু হয় নলদী পরগণার কাছারি বাড়িতে। ১৯৭২ সালে কাছারি বাড়ি থেকে যশোর শহরের খড়কি মৌজায় স্কুলটি স্থানান্তর করা হয়। পরবর্তীতে ৭ দশমিক ৮০ একর শতক জমির উপর নির্মাণ করা হয় পাকা ভবন। বর্তমানে বিদ্যালয়টিতে প্রভাতী ও দিবা এই দুই শিফটে প্রায় ২ হাজার ছাত্র পড়াশুনা করছে। তাদের জন্য রয়েছে মাল্টিমিডিয়া ক্লাসরুম।

লেখক কাজী শওকত শাহীর শিক্ষালয়ের ইতিকথা মতে, জ্যোতিষ বিজ্ঞানী রাধাগোবিন্দ চন্দ্র, যশোরে ভাষা আন্দোলনে নেতৃত্বদানকারী আলমগীর সিদ্দিকী পরমাণু বিজ্ঞানী ড. এম শমশের আলী, বিশিষ্ট সাহিত্যিক ও গীতিকার ড. মোহাম্মদ মনিরুজ্জামান, আহছানিয়া মিশনের পরিচালক কাজী রফিকুল আলম, এমএম কলেজের প্রাক্তন অধ্যক্ষ প্রফেসর শরীফ হোসেন, ভারত সরকারের প্রাক্তন মন্ত্রী ক্যাপ্টেন ডা. জীবন রতন ধর, বিশিষ্ট বাম রাজনীতিবিদ আব্দুল হক, শহীদ সাংবাদিক সিরাজুদ্দীন হোসেন, কুইক রেডিওর আবিষ্কারক দিদার ইসলাম, জাহাঙ্গীর নগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাক্তন উপাচার্য অধ্যাপক জিল্লুর রহমান সিদ্দিকী, সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রধান উপদেষ্টা বিচারপতি লতিফুর রহমান, প্রাক্তন মন্ত্রী মেজর জেনারেল আব্দুল মান্নান সিদ্দিকী, তরিকুল ইসলাম, সাবেক এমপি খালেদুর রহমান টিটো, বর্তমান মন্ত্রী রাশেদ খান মেনন, সাবেক সচিব তসলিমুর রহমান ও মনিরুজ্জামান, স্বনামধন্য গীতিকার রফিকউজ্জামান, নাট্য পরিচালক সালাউদ্দীন লাভলু, নাট্যাভিনেতা আজিজুল হাকিম এ বিদ্যাপিঠের ছাত্র ছিলেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here