যশোর জেনারেল হাসপাতালের প্রসূতি ওয়ার্ড থেকে শিশু চুরির ঘটনায় তিনটি তদন্ত টিম কাজ করছেন

0
362

বিশেষ প্রতিনিধি : যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতাল থেকে এক দিনের বয়সের এক নবজাতক চুরির ঘটনায় গঠিত তিনটি তদন্ত কমিটি কাজ শুরু করেছে। গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদের ভিত্তিতে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ, খুলনা স্বাস্থ্য বিভাগ ও পুলিশ-র‌্যাবের সমন্বয়ে গঠিত পৃথক তিনটি তদন্ত টিম এ কাজ করছে।
গত ৭ জুলাই যশোর সদর উপজেলার সাড়াপোল রূপদিয়া গ্রামের সাইফুল ইসলামের স্ত্রী রুপালি হাসপাতালের প্রসূতি ওয়ার্ডে ভর্তি হন। পরদিন ৮ জুলাই দুপুর দুই টায় অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে তিনি একটি ছেলে সন্তানের মা হন। ৯ জুলাই বেলা ১১টায় এক দিনের নবজাতক ছেলেকে প্রসূতি ওয়ার্ড থেকে বোরখা পরিহিত এক মহিলা কোলে নেয়ার অজুহাতে কৌশলে পালিয়ে যায়।
এ ঘটনা গণমাধ্যমে প্রকাশিত হলে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় ই-মেইলের মাধ্যমে তদন্ত কমিটি গঠনের নির্দেশ দেয়। এ নির্দেশ পেয়ে খুলনা স্বাস্থ্য বিভাগীয় সহকারী পরিচালক (প্রশাসন) এএসএম আব্দুর রহমানকে ও যশোর জেনারেল হাসপাতালের সার্জারি বিভাগের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক আব্দুর রহিম মোড়লকে প্রধান করে তিন সদস্যের পৃথক দুটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।
অপরদিকে, র‌্যাব-৬ খুলনার কর্মকর্তা লে. কর্নেল কাজী সোয়ায়েব হোসেনকে প্রধান করে ও পুলিশের সমন্বয়ে আলাদা একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। এ কমিটির অন্য সদস্যরা হলেন, র‌্যাব-৬ যশোর ক্যাম্পের এএসপি খোদাদাদ হোসেন ও যশোর কোতয়ালী থানার এসআই দেবাশিষ বিশ্বাস। পৃথক এ তিনটি তদন্ত কমিটি সোমবার সকাল ১০টার থেকেই হাসপাতালে তদন্ত কার্যক্রম শুরু করেছে। প্রথম কার্যদিবসে তারা হাসপাতালের গাইনি বিভাগের চিকিৎসক, ইন্টার্ন চিকিৎসক, ওয়ার্ডের সেবিকা, কর্মচারী, নবজাতকের মা, দাদি নানীসহ ১৩ জনের মৌখিক ও লিখিত বক্তব্য গ্রহণ করেন। পরে তারা হাসপাতালে থাকা সিসি টিভির ফুটেজ সংগ্রহ করেন।
এসময় খুলনা স্বাস্থ্য বিভাগীয় সহকারী পরিচালক (প্রশাসন) এএসএম আব্দুর রহমান সাংবাদিকদের বলেন, নির্দেশনা পেয়ে তদন্ত শুরু করা হয়েছে। তদন্তর প্রথম দিনে ১৩ জনের মৌখিক ও লিখিত বক্তব্য গ্রহন করা হয়েছে। আগামী বৃহস্পতিবার প্রতিবেদন খুলনা বিভাগীয় প্রধানের মাধ্যমে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here