যশোর জেলার প্রথম নারী জনপ্রতিনিধি নিহার আমজাদ

0
1033

এম আর মাসুদ : যশোর জেলার প্রথম নারী জনপ্রতিনিধি নিহার বানু। যিনি জনগণের কাছে নিহার আমজাদ নামে পরিচিত। যে সময় নারী ভোটাররা সাধারণত ভোট দিতে যাওয়া টাই ছিলো অনেকটা দুরুহ। সেই সময় পুরুষ স্বাশিত সমাজ ব্যবস্থায় সরাসরি পুরুষের সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে ইউনিয়ন চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে জনসেবায় রেখেছেন অনন্য কৃতিত্ব। আজ (৮ মার্চ )আন্তর্জাতিক নারী দিবসে নিহার আমজাদকে শ্রদ্ধা।
নিহার বানু ১৯৫৪ সালে যশোর জেলার শার্শা উপজেলার শার্শা গ্রামে সম্ভান্ত মুসলিম পরিবারে জন্ম গ্রহণ করেন। পিতার নাম সোলাইমান দফাদার ও মাতা গোলেনুর বেগম। ২ ভাই-বোনের মধ্যে নিহার বানু ছিলেন বড়। গ্রামের স্কুল থেকে প্রাথমিক শিক্ষা শেষ করে শার্শা এমই (বর্তমান শার্শা পাইলট স্কুল) স্কুল থেকে মাধ্যমিক শিক্ষা গ্রহণ করেন। পরে ১৯৭০ সালে বেনাপোল হাইস্কুল থেকে কৃতিত্বের সাথে এসএসসি পাস করেন। ১৯৭১ সালের শেষের দিকে মুসলিম শরিয়া মোতাবেক খালাত ভাই আমজাদ হোসেনের সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। আমজাদ হোসেন ঝিকরগাছা উপজেলার কাগমারী গ্রামের সামছুদ্দিন এর ছেলে। ব্যক্তিগত জীবনে ৪ পুত্র সন্তানের জননী তিনি। নিহার বানু স্বামীর বাড়ীতে গৃহবধূ হিসাবে সংসার জীবন শুরু করলেও একপর্যায় তিনি উপজেলার গঙ্গানন্দপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। তিনি ওই ইউনিয়ন, উপজেলা ও জেলার প্রথম নির্বাচিত নারী জনপ্রতিনিধি। তিনি নাকি খুলনা বিভাগের ও প্রথম নারী জনপ্রতিনিধি। শ্বশুর সামছুদ্দিন বিশ্বাস ছিলেন গঙ্গানন্দপুর ইউনিয়নের রিলিফ কমিটির প্রেসিডেন্ট। তার স্বামী আমজাদ হোসেনও ১০ বছর গঙ্গানন্দপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করেছেন। একপর্যায়ে ১৯৯১ সালে স্বামী আমজাদ হোসেন ঋণখেলাপির কারণে গঙ্গানন্দপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে অংশ নিতে না পারাই নিহার বানু চেয়ারম্যান পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। নারী জনপ্রতিনিধি হিসাবে তিনিই পুরুষের সাথে সারাসরি প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে প্রথম চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। স্বামীর নামানুসারে নিহার বানু জনগণের কাছে নিহার আমজাদ নামেই পরিচিত। আলাপচারিতায় নিহার আমজাদ জানালেন সে সময়কার বেশ কিছু স্মৃতির কথা। জেলা পরিষদের প্রথম সভায় জেলা প্রশাসক তাকে পেঁছনের সারী থেকে সামনে এনে বসিয়ে ছিলেন। তিনি যেখানে যেতেন সেখানেই উৎচ্ছুক মানুষের ভিড় জমতো মহিলা চেয়ারম্যান কে দেখতে। নিহার আমজাদ গঙ্গানন্দপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান থাকাকালীন সময় শুধু নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করেই ক্ষান্ত হননি। সাথে সাথে ক্ষাতি, যসও কুড়িয়েছিলেন সমান তালে। যার সুবাতাস ছড়িয়েছিল ইউনিয়ন থেকে জেলা ছাপিয়ে বিভাগ পর্যন্ত। নারী হয়েও সে সময় কোন বাঁধা না পেয়ে বরং সহযোগিতা পেয়েছিলেন এই নারী জনপ্রতিনিধি। নিহার আমজাদ অজপাড়াগাঁ গঙ্গানন্দপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়াটাও যেন ছিল নারী ক্ষমতায়ানের এক প্রথম পদক্ষেপ। একপর্যায় স্বামীর মৃত্যু বরণ করায় তিনি আর নির্বাচনে অংশ নেননি। নিহার আমজাদের দাবি একজন ইউনিয়ন চেয়ারম্যান নারী হিসাবে তিনি তখন যে সম্মান পেয়েছেন এখন বোধায় তা আর নেই। নেই জনপ্রতিনিধিদের সাথে জনগণের সম্পৃক্ততা। এখন পেশী শক্তি আর রাজনৈতিক হানাহানিতে সে অবস্থা নেই বলে তিনি আক্ষেপ করেন। বর্তমানে তিনি ঝিকরগাছার কৃষ্ণনগর বোডঘাট এলাকায় আলহাজ সামছুদ্দিন মঞ্জিলে বসবাস করেন। সংসার আর নিজের ফুল বাগান পরিচর্যায় তার দিন কাটে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here