যশোর জেলা ডিবি’র অফিসার ইনচার্জ ইমাউল হককে দু’দফা স্ট্যান্ড রিলিজের আদেশ

0
328

খুলনা রেঞ্জের ডিআইজি’র আদেশ উপেক্ষিত হওয়ায় পুলিশ হেডকোর্য়ার্টাসের আদেশে রংপুর রেঞ্জে সংযুক্ত
এম আর রকি, যশোর : সকল নাটকের অবসান ঘটিয়ে বিদায়ী নিতে বাধ্য হয়েছে বহুলালোচিত যশোর জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) পুলিশের অফিসার ইনচার্জ ইমাউল হককে। বৃহস্পতিবার ২৯ জুন দুপুরে তিনি তার দায়িত্ব হস্তন্তর প্রক্রিয়া সম্পন্ন করেছেন। ডিবিতে কর্মরত পুলিশ পরিদর্শক রফিকুল ইসলাম দায়িত্ব গ্রহন করেছেন বলে নিশ্চিত করেছেন। বর্তমানে জেলা ডিবি কৌশলবাজ ও ধুরন্দর প্রকৃতি পুলিশ কর্তার আগ্রাসন থেকে মুক্ত হয়েছে। তাকে প্রথম দফায় খুলনা রেঞ্জের ডিআইজি কর্তৃক বাগেরহাট জেলায় স্ট্যান্ড রিলিজ তার চারদিনের মাথায় পুলিশ হেড কোর্য়ার্টাসের আদেশে প্রশাসনিক কারনে রংপুর রেঞ্জে সংযুক্তর আদেশ দেওয়া হয়েছে । ইমাউল হক মুক্ত ডিবি হওয়ায় ওই দপ্তরে কর্মরত তার অনুসারীরা পড়েছে মহা সমস্যায়।
খুলনা রেঞ্জের উপ-মহা পুলিশ পরিদর্শকের কার্যালয়ের সূত্রে বলা হয়েছে,২৫ জুন অপরাহ্নে রেঞ্জ অফিসের প্রজ্ঞাপন নং ৯৮৫ তারিখঃ২৫/০৬/১৭ইং স্মারক নং জিএ-০২/৭৫২৪/৮ তারিখঃ২৫/০৬/১৭ ইং যশোর জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) পুলিশে কর্মরত পুলিশ পরিদর্শক (নিরস্ত্র) অফিসার ইনচার্জ ইমাউল হককে জনস্বার্থে স্ট্যান্ড রিলিজের আদেশ দিয়ে বাগেরহাট জেলায় বদলী করেন। উক্ত কৌশলবাজ অফিসার ইনচার্জ ইমাউল হক স্ট্যান্ড রিলিজের আদেশ বুঝতে পেরে ২৫ জুন দুপুরে পুলিশ সুপার আনিসুর রহমানের কাছে ৩দিনের ছুটি নেন। তিনি কাগজ কলমে ৩ দিনের ছুটি নিলেও যশোর জেলা গোয়েন্দা শাখা ডিবি’র অফিসার ইনচার্জের নামে সরকারী নাম্বারটি নিজ হেফাজতে রাখেন। সরকারী ওই নাম্বারে ফোন দিলে ২৫ জুন থেকে ২৮ জুন পর্যন্ত ইমাউল হকের হেফাজতে পাওয়া যায়। সরকারী নাম্বারে সাংবাদিকরা ফোন দিলে রিসিভ করার পর নিশ্চিত হওয়া যায় পুলিশ পরিদর্শক ইমাউল হক।
পুলিশের সূত্রগুলো আরো দাবি করেছেন,২৫ থেকে ২৭ জুন পর্যন্ত পুলিশ পরিদর্শক ইমাউল হকের ছুটির মেয়াদ থাকলেও তিনি খুলনা রেঞ্জের ডিআইজি’র আদেশ উপেক্ষা করে যশোর জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) কার্যালয়ে অবস্থান করেছেন। তাছাড়া,তিনি স্ট্যান্ড রিলিজের আদেশ বাতিল করার জন্য পুলিশের উর্ধ্বতন মহলে দেন দরবার শুরু করেন। কৌশলবাজ পুলিশ পরিদর্শক ইমাউল হকের দৌরাতœ্য বুঝতে পেরে ২৯ জুন বৃহস্পতিবার পুলিশ হেড কোয়ার্টার্সসের স্মারক নং জিই/১০-২০১৬(ইন্স:)/২০১১ তারিখঃ ২৯/০৬/১৭ ইং আদেশে প্রশাসনিক কারনে খুলনা রেঞ্জ থেকে রংপুর রেঞ্জে সংযুক্তর আদেশ দেওয়া হয়। ৫ দিনের ব্যবধানে দু’টি আদেশে বৃহস্পতিবার তাকে যশোর জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) অবমুক্ত করতে হয়েছে। বহৃস্পতিবার পুলিশ হেড কোয়ার্টার্সের আদেশ ও খুলনা রেঞ্জের ডিআইজি’র আদেশের ব্যাপারে জেলায় কর্মরত পুলিশ কর্তারা স্বীকার করেছেন। বৃহস্পতিবার দুপুরে ইমাউল হক দায়িত্ব হস্তান্তর করে দুপুর দেড়টার সময় জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) অফিস ত্যাগ করলে তার বিরুদ্ধে বেরিয়ে আসে অনৈতিক কর্মকান্ডর ধারাবাহিক কাহিনী। ইমাউল হকের কৌশলবাজের সহযোগী বর্তমানে ডিবিতে কর্মরত এসআই,এএসআই ও কনস্টেবলরা পড়েছে মহা সমস্যায়। ইমাউল হকের অনৈতিক কর্মকান্ডের সহযোগীরা তাদের কৌশলবাজ কর্তার লিডার বিদায়ী নিতে বাধ্য হওয়ায় তারা চুপসে গেছে।যশোরের বিভিন্ন পত্রিকার নির্বাহী সম্পাদক,সংবাদকর্মী ও রাজনৈতিক ব্যক্তি এবং পুলিশ লাইনে,ডিবিতে এ যাবত যারা কর্মরত তাদের কাছে ইমাউল হক বলেছেন,তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে লেখা পড়া করেছেন। তিনি কখনও সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০০৩ সালে ছাত্রদলের কমিটিতে সহ-সভাপতি-৭ ও ২০০৪ সালে ওই বিশ্ববিদ্যালয়ে কমিটিতে সদস্য-৪৩ ছিলেন তা একবারও প্রকাশ করেননি। তাছাড়া,২০০৫ সালে পুলিশের এসআই পদে যোগদান করলে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় কোন বর্ষে লেখাপড়া করেছেন এ নিয়ে বিভিন্ন প্রশ্ন সৃষ্টি হয়েছেন। তিনি নিজেকে কখনও জার্নালিজম পাশ থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ ডিগ্রিধারী দাবি করে আসছেন যশোরের মানুষের কাছে। তার এই কৌশলের অন্তরালে কি লুকায়িত রয়েছে তা পুলিশের নির্ভরযোগ্য গোয়েন্দা শাখার মাধ্যমে তদন্তর দাবি করেছেন যশোরসহ পুলিশের বিভিন্ন বিভাগ।#

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here