যশোর জেলা রেজিষ্ট্রার অফিসে প্রকাশ্যে নবাগত নৈশ্য প্রহরী হামলার হোতা নূরু গং বেসামাল

0
557

ঘটনার পর থেকে নূরু গংয়ের গোপন বৈঠক

এম আর রকি যশোর: জেলা রেজিষ্ট্রার কার্যালয়ে যোগদান করতে যাওয়া নৈশ্য প্রহরী আব্দুল হান্নানকে প্রকাশ্যে মারপিটের ঘটনায় দায়েরকৃত এজাহার কোতয়ালি থানায় নথিভূক্ত হয়নি। হামলাকারীরা প্রকাশ্যে বুক ফুলিয়ে চলছে। এদিকে হামলাকারীদের প্রধান নূরু বিষয়টি শক্তহাতে দমনে চেস্টা শুরু করেছে। তাছাড়া,নূরুর বিরদ্ধে বেরিয়ে এসেছে অজানা কাহিনী।
নির্ভরযোগ্য সূত্রগুলো জানিয়েছে, নূরু গং গত ১২ জুন তার নিজস্ব কর্মস্থল মনিরামপুর উপজেলা রেজিষ্ট্রার অফিসে যোগদান করে যশোর জেলা রেজিষ্ট্রার অফিসে চলে আসেন। সে সদ্য যোগদানকারী নবাগত নৈশ্য প্রহরী আব্দুল হান্নানকে যোগদানের পরপর অফিসের দোতলা থেকে মারতে মারতে নিচে নামিয়ে তাদের দাবিকৃত অর্থ চাই। এক পর্যায় আব্দুল হান্নানকে ওই অফিস থেকে তাড়িয়ে দেন নূরুসহ তার সহযোগী আতিয়ার রহমান,রবিউল,হিরাসহ অজ্ঞাতনামা সন্ত্রাসীরা। সূত্রগুলো দাবি করেছেন, নূরু গং বুধবার যশোরের একটি স্থানে গোপন বৈঠক করেছেন।
বৈঠকে তার দূর্নীতির সহযোগীদের সর্তক ও অভয় দিয়ে বলেছেন,নবাগত নৈশ্য প্রহরী আব্দুল হান্নানকে তাদের দাবিকৃত টাকা দিতে হবে। থানা পুলিশকে ম্যানে চাকুরী তে জ করার জন্য নূরু একাই দায়িত্ব নিয়েছেন। তিনি দম্ভোক্তির সাথে জানিয়েছেন, জেলা রেজিষ্ট্রার অফিস ছাড়াও জেলার অন্যান্য উপজেলা রেজিষ্ট্রার অফিস তার নিয়ন্ত্রনে রয়েছেন। সুত্রটি জানিয়েছেন, দূর্নীতির হোতা নূরুর ছেলে একটি হত্যা মামলার আসামী। ছেলের দোহায় দিয়ে নূরু রেজিস্ট্রার অফিসে যাকে তাকে মারপিটসহ নানা কর্মকান্ড চালিয়ে যচ্ছে। ভয়ংকর নূরু সামান্য এমএল এসএস পদে চাকুরী করার সুবাধে যে ধরাকে সরা মনে করেন। নূরু গংয়ের হতে রেজিষ্ট্রার কার্যালয়ে কর্মকর্তার পাশাপাশি কর্মচারীও জমি রেজিষ্ট্রি করতে আসা জনসাধারণ আতংকের মধ্যে থাকেন। টাকা ছাড়া রেজিষ্টি কার্যক্রম হবে এ সূত্র নূরুর। অপর একটি সূত্র বলেছে, নূরু জেলার ৮উপজেলার রেজিষ্ট্রি অফিস থেকে মাসে ৮০ হাজার টাকা উৎকোচ আদায় করে। প্রতিতি উপজেলা অফিস থেকে নূরুকে ১০ হাজার অবৈধভাবে দিতে হয়। টাকা না দিলে তার রেহায় নাই। রেজিষ্ট্রার অফিসের কয়েকজন নৈশ্যপ্রহরী আব্দুল হান্নানের পক্ষ নেওয়ায় তাদেরকে নূরু গং হত্যার হুমকী দিয়েছে বলে সূত্রগুলো দাবি করেছন।অপর একটি সূত্র বলেছে, জেলা রেজিষ্টি অফিসে যে সব দলিল লেখক নকল নবীস দায়িত্ব পালন করেন তাদেরকে নূরুকে হিসাব করে চলতে হয়। নূরু গং গোটা অফিসকে একটি দূর্নীতির আখড়ায় পরিণত করেছে।একটি নবাগত নৈশ্যপ্রহরীকে ম্যানেজ করতে জেলা রেজিষ্ট্রার অফিসের অফিস সহকারী রবিউল ইসলাম আব্দুল হান্নানের ব্যক্তিগত মোবাইলে ফোন করেন। তাকে বিষয়টি মিটিয়ে ফেলার জন্য কৌশলে হুমকী দেন। যোগদান করে প্রাণের ভয়ে নৈশ্য প্রহরী আব্দুল হান্নান বর্তমানে ঢাকায় অবস্থান করছেন। এ বিষয়ে নূরুর কাছে জানতে চাওয় হলে তিনি সাংবাদিকদের জানান, আমার একটি বিপক্ষ আমার সম্মান হানী করার জন্য পত্র পত্রিকায় সংবাদ পরিবেশন করছেন। আমি সামান্য একজন পিওন। আমি ৮ টি উপজেলা থেকে কিভাবে আমি টাকা নিবো। যোগদানকৃত আব্দুল হান্নান লাঞ্চিতর দিন আমি মনিরাম পুর নিজ কর্মস্থলে অবস্থান করছি। কেউ যদি আমার বিরুদ্ধে লেখে আমার কি করনীয় আছে।আপনারা সাংবাদিক সত্যি ঘটনা লিখবেন।#

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here