যশোর জেলা রেজিস্ট্রার অফিসে সদ্য যোগদানকারী নৈশ প্রহরীর হামলাকারী নূরু গং ধরা ছোয়ারবাইরে !

0
277

এম আর রকি : জেলা রেজিষ্ট্রার কার্যালয়ে নৈশ্য প্রহরী পদে চাকুরীতে যোগদান করতে এসে আব্দুল হান্নান সরকারি দপ্তরের মধ্যে মারপিটের শিকার হলেও পুলিশ গত ২৪ ঘন্টায় সন্ত্রাসীদের কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি। সোমবার মারপিটের পর চরম আতংকগ্রস্ত হয়ে আব্দুল হান্নান বিচার চেয়ে কোতয়ালি থানায় অভিযোগ দায়ের করে বাড়িতে চলে গেছেন। এদিকে, হামলার সাথে জড়িত সন্ত্রাসীদের মঙ্গলবার সকাল থেকে জেলা রেজিষ্ট্রারের কার্যালয়ের ভিতরে ও বাইরে অবস্থান করতে দেখা গেছে। আব্দুল হান্নানকে মারপিটের ঘটনারদিন বিকেলে কোতয়ালি থানার এসআই শাহিনুর ইসলাম শাহীন ঘটনাস্থলে গিয়ে মারপিটের ঘটনার সত্যতা পান বলে শিকার করলেও হামলার সাথে জড়িতদের সনাক্ত করতে পারেনি। তবে তিনি জানান, যারা এই হামলা চালিয়েছে তাদেরকে তিনি খুঁজে বের করবেন। সদ্যযোগদান করতে আসা যুবককে মারপিট করে সোমবার বিকেল থেকে জেলা রেজিষ্ট্রার কার্যালয়ে আলোচনায় উঠে বর্তমানে মনিরামপুর রেজিষ্ট্রার কার্যালয়ে কর্মরত অফিসের কুখ্যাত নুরু।
হামলর শিকার আব্দুল হান্নান থানায় দায়েরকৃত অভিযোগ নুরু,হিরা ও আতিয়ার রহমানের নাম উল্লেখ করলেও তারা এখনও পুলিশের কাছে সনাক্ত হয়নি। তবে কারা এই হামলা প্রকাশ্যে চালিয়েছে বিষয়টি ওই অফিস সংশ্লিষ্ট কাহারও অজানা নয়। সূত্রগুলো আরো জানায়, নুরু নামে ব্যক্তিটি রেজিষ্ট্রি অফিসের একটি ভয়ঙ্কর নাম। নূরু সিন্ডিকেট খুব শক্তিশালী। নূরু সিন্ডিকেটকে পাশ কাটিয়ে অত্র কার্যালয়ে কেউ জমি রেজিষ্ট্রি করতে পারেনা। টাকা ছাড়া এই অফিসে জমি রেজিষ্ট্রির কার্যক্রম হয়না বলে অভিযোগ করে বিভিন্ন জমি ক্রেতাগন। সূত্রগুলো আরো জানিয়েছে, নূরু মনিরামপুর উপজেলা রেজিষ্ট্রার অফিসে দায়িত্ব পালনের কথা থাকলেও সে অধিকাংশ সময় জেলা রেজিস্ট্রার কার্যালয়ের আশপাশে অবস্থান নেয়।
সূত্রগুলো জানান, নূরু মনিরামপুর উপজেলা অফিসের পূর্বে শার্শা উপজেলা অফিসের দায়িত্ব পালন কালে সেখানে দূর্নীতি কর্মকান্ড করায় সেখানকার লোকজন সাংবাদিক সম্মেলনের মাধ্যমে তার কুকীর্তি প্রকাশ করায় তাকে সেখান থেকে বদলী করে দেয়া হয়। শার্শার পূর্বে নুরু জেলা রেজিষ্ট্রার কার্যালয়ে দায়িত্বপালন কালে বর্তমান যশোর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শহিদুল ইসলাম মিলনের কাছে জমি রেজিষ্ট্রি বাবদ ঘুষ চাওয়ায় তিনি প্রতিবাদ করায় মারধরের শিকার হন
সূত্রগুলো বলেছে, বিএনপির ক্যাডার নুরু জেলা ছাড়াও উপজেলার রেজিষ্ট্রি অফিস নিয়ন্ত্রণ করছেন। তার অত্যাচারে অফিসের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা একেবারে জিম্মি হয়ে পড়েছে। কেউ তার অপকর্মের প্রতিবাদ করলে হত্যার হুমকিসহ মারধরে শিকার হতে হয়। বর্তমানে নূরু পিয়ন হলেও সে অবৈধভাবে কোটি কোটি টাকা, মাছের ঘেরসহ সম্পদের মালিক বনে গেছেন নামে বে নামে।
সূত্র জানিয়েছে,এছাড়া জেলা রেজিস্ট্রি অফিসে যে কর্মকর্তা আসেন তাকে নূরু জিম্মি করে ফেলেন। এরপর তাকে দিয়ে অনৈতিকভাবে জমির শ্রেনী পরিবর্তন করে রেজিস্ট্রি করে মোটা অংকের টাকা হাতিয়ে নেন। এসব করে আজ সে কোটি কোটি টাকার সম্পদের মালিক বনে গেছেন। নূরুর অবৈধ অর্থের ব্যাপারে যশোরের সচেতন সমাজ দূর্নীতি দমন কমিশনের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।
উল্লেখ্য, গত সোমবার ১২ জুন ভোলা জেলার চরফ্যাশন উপজেলার আলীগাঁও আছলামপুর গ্রামের আবুল হোসেনের ছেলে আবদুল হান্নান জানান, সোমবার বিকেলে বাংলাদেশ সরকারের নিবন্ধন পরিদপ্তরের মহা-পরিদর্শক নিবন্ধন খান মো:আব্দুল মান্নান স্বাক্ষরিত আদেশে স্মারক নং-নিপ/রেজিঃশাখাঃ-২/৮৬৭৬(৫) তারিখঃ০৫/০৬/১৭ মোতাবেক নৈশ্য প্রহরী পদে যোগদান করতে আসেন। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত নৈশ্য প্রহরী আব্দুল হান্নানের দায়ের করা অভিযোগ এজাহার হিসেবে নথিভূক্ত হয়নি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here